ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা । নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন। ডিমলায় ৭ই মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা।
করোনার কারণে বৈশাখের সব অনুষ্ঠান বাতিল।দুই হাজার কোটি টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছে পোশাকশিল্প ও ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীরা।

করোনার কারণে বৈশাখের সব অনুষ্ঠান বাতিল।দুই হাজার কোটি টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছে পোশাকশিল্প ও ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীরা।

চোখে পড়বেনা এমন দৃশ্য।ফাইল ছবি।
ঢাকা প্রতিবেদক ,
করোনার কারণে বৈশাখের সব অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।সবকিছুই যেন থমকে গেছে।আর এতে ক্ষতির মুখে পড়েছে ব্যাবসায়ীরা। ভাইরাসটি প্রতিরোধে মানুষকে ঘরে থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দুদিন আগে পয়লা বৈশাখের সব অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। সরকার ১১ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করেছে। সেই সঙ্গে সারা দেশের দোকানপাট ও বিপণিবিতান (শপিং মল) ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। ফলে বর্তমান পরিস্থিতিতে বৈশাখকেন্দ্রিক বেচাবিক্রি বন্ধ।
সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পয়লা বৈশাখে দেশীয় পোশাক কেনার প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ছিল। ফলে করোনার কারণে বৈশাখে বড় ক্ষতির মুখে পড়বে দেশি পোশাকশিল্প ও ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীরা। বৈশাখী বিক্রি বন্ধ হওয়ায় দুই হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হবে বলে দাবি করেছে দেশীয় ফ্যাশন হাউস মালিকদের সংগঠন ফ্যাশন এন্টারপ্রেনারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ফ্যাশন উদ্যোগ)।
আজ বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমনটি জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি মো. শাহীন আহম্মেদ। তিনি বলেন, করোনার কারণে মার্চের শুরুর দিকে বেচাবিক্রি কমে যায়। তাতে ইতিমধ্যে প্রায় ১২৫ কোটি টাকা লোকসান গুনতে হয়েছে। আর মার্চের শেষে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করার ফলে বৈশাখী বিক্রি বন্ধ হয়ে গেছে। এতে করে দেশীয় পোশাকশিল্প প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হবে।
বৈশাখী বিক্রি না হওয়ায় দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলোর কর্মীদের আগামী তিন মাসের বেতন-ভাতা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে। একই সঙ্গে প্রান্তিক কারুশিল্পী ও বয়নশিল্পীদের কাজের মজুরি বাবদ বকেয়া প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা পরিশোধেও হিমশিম খাবে প্রতিষ্ঠানগুলো, এমন দাবি করেছেন ফ্যাশন এন্টারপ্রেনারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ফ্যাশন উদ্যোগ) সভাপতি।
বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশীয় পোশাকশিল্পে যুক্ত প্রান্তিক কারুশিল্পী ও বয়নশিল্পীদের কাজের মজুরি এবং ফ্যাশনহাউসের কর্মীদের বেতন পরিশোধে সরকারের কাছে বিনা সুদে ১ বছরের জন্য ৫০০ কোটি টাকা ঋণ দাবি করেছে ফ্যাশন উদ্যোগ। সংগঠনটি বলছে, বর্তমান পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলে ঈদের ব্যবসাও হারাবে দেশীয় পোশাকশিল্প। ফলে সরকারের যথাযথ উদ্যোগই শিল্পটিকে বাঁচিয়ে রাখতে পারে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST