ঘোষনা:
শিরোনাম :
গাজীপুর কাশিমপুর কারাগারে লেখক মুস্তাকের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত কমিটি। সাতক্ষীরায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই ইটভাটা শ্রমিকের মৃত্যু। খুৃলনা মহানগর বিএনপির সভাপতির নেতৃত্বে তাৎক্ষণিক মিছিল,পুলিশ বিএনপি কার্যালয় ঘিরে রেখেছে। নীলফামারী, র‌্যাব-১৩, ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ১ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার। নির্বাচনে কারচুপির চেষ্টা করবেন না- সৈয়দপুরে জাপা মহাসচিব। উর্দুভাষী মানুষ আমার আত্মার আত্বীয়,নীলফামারীতে নির্বাচনী সভায় জাহাঙ্গীর কবীর নানক। নীলফামারীর উন্নয়নের স্বার্থে নৌকার বিকল্প নেই -জাহাঙ্গীর কবির নানক। কাশিমপুর কারাগারে মৃত্যুবরণ করা লেখকরে মৃত্যুতেও তদন্ত হবে,চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী । কিশোরগঞ্জে বিনামূল্যে কৃষকের মাঝে কৃষি যন্ত্রপাতি বিতরণ। কিশোরগঞ্জের প্রকৃতিকে আলোকচ্ছটায় উদ্ভাসিত করে তুলেছে শিমুল ফুল
টেকনাফে করোনা সন্দেহ ৫ ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ

টেকনাফে করোনা সন্দেহ ৫ ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ

টেকনাফ প্রতিনিধি,
করোনা সন্দেহে কক্সবাজারের টেকনাফের বিভিন্ন এলাকা থেকে জ্বর, সর্দি, কাশি, গলা ব্যাথা ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত ৫ ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নীরিক্ষার জন্য কক্সবাজার মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে।
আজ শনিবার এসব নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয় বলে জানান টেকনাফ উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালের স্থাস্থ,পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. টিটু চন্দ্র শীল।
তিনি বলেন, জ্বর সর্দি, কাশি, হাঁচি,গলা ব্যাথায় আক্রান্ত হওয়া রোগীরা নিজে থেকেই করোনা পরীক্ষার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করলে স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে মেডিকেল টিম গিয়ে তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পাশাপাশি তাদেরকে পরিবারের সদস্যদের থেকে নিজ নিজ বাড়িতেই আলাদা করে রাখা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার ফলাফল আগামীকাল রবিবার পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আরও বলেন, লকডাউনে থাকা বাড়ির পবিবারের সকল সদস্যদের থার্মাল স্কানিং করা হয়েছে।আপাতত তারা সকলেই কারো যাতে সংস্পর্শে না আসে সেজন্য ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয় ।সার্বক্ষণিক কোন ধরণের খাদ্য সামগ্রীর প্রয়োজন হলে স্থানীয় প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। পাশাপাশি স্থাস্থ্যগত দিক দিয়ে উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল তাদের তদারকি করবে।
এদিকে, টেকনাফ সচেতনতা বৃদ্ধি,সতর্কতা বাড়ানো হয়েছে।খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া অযথা ঘর থেকে বের না হওয়া,পৌর শহরসহ গ্রামঞ্চলের হাটবাজার গুলোতে টহল জোরদার করেছে নিয়োজিত নৌবাহিনীর সদস্যদের সহায়তায় স্থানীয় প্রশাসন। পাশাপাশি লকাডাউনকৃত বাড়ি ও দোকান পরিদর্শন করা হয়।
প্রসঙ্গত ঢাকায় এক র‌্যাব সদস্যের কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস টেষ্ট পজেটিভ পাওয়ায় টেকনাফে ১৫টি বাড়ি ও দোকান লকডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন। তার মধ্যে রয়েছে ৭টি বসতবাড়ি, ৭টি দোকান ও কেয়ারল্যাব নামে একটি প্যাথলজি সেন্টার রয়েছে। শুক্রবার রাতে এসব বাড়ি ও দোকানগুলো লকডাউন করেছে স্থানীয় প্রশাসন কয়েকদিন আগে ঢাকা থেকে আক্কাস নামে এক র‌্যাব সদস্য টেকনাফ পৌরসভার পুরাতন পল্লান পাড়া এলাকায় শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসেন। এরপর গত ২৬ মার্চ তিনি ঢাকায় ফিরে যান। তিনি ঢাকায় সর্দি, জ্বর ও কাশিতে আক্রান্ত হন। পরে ৩ এপ্রিল ঢাকায় পরীক্ষা করলে তার শরীরে কোভিড-১৯ পজেটিভ পাওয়া যায়। পরে তাকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়। তারই সূত্র ধরে শুক্রবার রাতেই টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম, টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. টিটু চন্দ্র শীলের নেতৃত্বে একটি টিম লকডাউন ঘোষণা করেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST