ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন। ডিমলায় ৭ই মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা। কিশোরগঞ্জে জলাশয় সংস্কার পুনঃ খনন কাজের উদ্ধোধন
নবীনগরে চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতার হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

নবীনগরে চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতার হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি,
করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ফেইসবুকে সামাজিক জনসচেতনতামূলক পোস্ট দেওয়ায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার সলিমগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতার হাতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সামনে স্থানীয় এক সাংবাদিক লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও উওেজনা বিরাজ করছে।
জানা যায়, শনিবার সকালে উপজেলার সলিমগঞ্জ বাজারে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে জম জমাট তরমুজের বাজার, লোকে লোকারন্য হয়ে যায় ওই স্থান। এ নিয়ে ফেইসবুকে লাইভে আসেন দেশ সংবাদ অনলাইন পোর্টাল ও পল্লী টিভির (আইপি টিভি) স্থানীয় সাংবাদিক মো: আক্তারুজ্জামান।
লাইভে এসে তিনি বলেন, সারাদেশ যখন করোনা আতঙ্ক নিয়ে প্রতিটি দিন পার করছে। সরকার নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করার নির্দেশ দিয়েছে। অপ্রয়োজনে ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রেখে প্রয়োজনীয় মালামাল ক্রয় করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যে সলিমগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সামনে তরমুজের জমজমাট বাজার বসেছে। অতিরিক্ত জনসমাগম ঘটিয়ে তারা সরকারের নির্দেশনা অমান্য করে ব্যবসা বানিজ্য করছেন। এই দৃশ্য কি চেয়ারম্যান সাহেবের নজরে আসে না? তিনি করোনা সচেতনতায় কি দায়িত্ব পালন করছেন? এই লাইভ দেখে তেলে বেগুনে জ্বলে উঠেন সলিমগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা মো: খোরশেদ আলম।নির্যাতিত সাংবাদিক আক্তারুজ্জামান বলেন, দুপুরে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইকবাল হাসান, নবীনগর থানার ওসি (তদন্ত) রুহুল আমিন সাহেব সলিমগঞ্জ বাজারে আসেন বাজার মনিটরিং করতে। এই সংবাদ পেয়ে নিউজ সংগ্রহ করতে গেলে ওই স্থানে উপস্থিত ছিলেন চেয়ারম্যান মো: খোরশেদ আলম। আমাকে দেখতে পেয়েই গালমন্দ ও কিল ঘুষি মারতে থাকেন। এক পর্যায়ে তিনি আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দমকি প্রদান করেন ।তিনি আরো বলেন, এ ঘটনা দেখে উপস্থিত সকলেই অবাক হয়ে যান। ওসি রুহুল আমিন এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, আপনি এই রকম একটি কাজ করতে পারেন না। আমাদের সামনে আপনি একজন সাংবাদিকের গায়ে হাত দিতে পারেন না। সে অপরাধ করলে তার বিরুদ্ধে মামলা করতে পারেন।ওসি (তদন্ত) রুহুল আমিন বলেন, ঘটনার সময় আমরা দোকানের ভিতর ছিলাম, পরে বিষয়টি জানতে পেরে চেয়ারম্যান সাহেবকে কঠিন ভাষায় জবাব দিয়েছি।চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম বলেন, আমি রাত দিন কাজ করে যাচ্ছি। তার লাইভে আমার সম্মানহানী হয়েছে। সে কারণে রাগে তাকে মারতে গিয়েছিলাম। তরজুম বিক্রেতাদের আমিও নিষেধ করেছিলাম। তারা আমার কথা শুনে নাই।এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও উওেজনা বিরাজ করছে। নিন্দার ঝড় উঠেছে গোটা নবীনগরে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST