ঘোষনা:
পাকিস্তানে ফিক্সারদের জাতীয় অপরাধী হিসেবে গণ্য করে নতুন আইন প্রণয়নের দাবি।

পাকিস্তানে ফিক্সারদের জাতীয় অপরাধী হিসেবে গণ্য করে নতুন আইন প্রণয়নের দাবি।

স্পোর্টস ডেস্ক,
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাঁহাতি ওপেনার শারজিল খানকে পুনরায় ফেরানোর প্রসঙ্গে উত্তাল পাকিস্তানের ক্রিকেট মহল।তিনি পাকিস্তান সুপার লিগের চিহ্নিত ফিক্সার হয়েও কেন পাকিস্তান দলে সুযোগ পাবেন- এ প্রশ্নই সাবেক এবং বর্তমান ক্রিকেটারদের।
বিশেষ করে সাবেক ক্রিকেটারদের একটাই কথা, কোনভাবেই যেন ফিক্সারদের ফেরানো হয়না। সাবেক উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান রশিদ লতিফ এক ধাপ এগিয়ে, দাবি করেছেন ফিক্সারদের জাতীয় অপরাধী হিসেবে গণ্য করে নতুন আইন প্রণয়নের জন্য।
তার এ প্রস্তাবের পথেই হাঁটছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। বোর্ডের চেয়ারম্যান এহসান মানি জানিয়েছেন, ফিক্সারদের অপরাধী হিসেবে গণ্য করে নতুন আইন পাশের জন্য সরকারের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।
বিশ্বের অনেক দেশেই ম্যাচ ফিক্সিংকে ক্রিমিনাল অফেন্স হিসেবে ধরা হয়। পাকিস্তানেও এ আইন চালু করার পক্ষে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। যার প্রক্রিয়াও শুরু হয়ে গেছে বলে জানালেন পিসিবি চেয়ারম্যান।
এহসান মানি বলেন, ‘আমি এরই মধ্যে সরকারের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলেছি। কারণ অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কার মতো দেশগুলোতে ম্যাচ ফিক্সিংকে গুরুতর অপরাধ হিসেবেই ধরা হয়। আমরা তাদের প্রক্রিয়াটা ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ এবং আমরাও চাই ক্রিকেটে দুর্নীতিকে ক্রিমিনাল অ্যাক্ট হিসেবেই ধরা হোক।’
ফিক্সিংকে অপরাধ হিসেবে ধরলেও, যারা শাস্তি ভোগ করে ক্রিকেটে ফেরার অবস্থায় থাকবেন, তাদের জন্য দরজার বন্ধ হবে না বলেও জানিয়েছেন এহসান মানি। এক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট খেলোয়াড়ের কথা বলেননি তিনি, জানিয়েছেন সবার জন্য একই নিয়ম।
পিসিবি চেয়ারম্যানের ভাষ্যে, ‘আমি কোন নির্দিষ্ট খেলোয়াড়ের কথা বলবো না। তবে এখন যেসব খেলোয়াড় নিজেদের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেলেছে এবং রিহ্যাব প্রক্রিয়াও শেষ করেছে, তাদের অবশ্যই পুনরায় খেলার অধিকার রয়েছে। এটা সবার জন্যই এক।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST