ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন। ডিমলায় ৭ই মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা। কিশোরগঞ্জে জলাশয় সংস্কার পুনঃ খনন কাজের উদ্ধোধন
করোনা সংকটে সৈয়দপুরের কৃষি শ্রমিকরা পুলিশি সহায়তায় নওগাঁ যাচ্ছেন ধান কাটতে।

করোনা সংকটে সৈয়দপুরের কৃষি শ্রমিকরা পুলিশি সহায়তায় নওগাঁ যাচ্ছেন ধান কাটতে।

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর বোরো মওসুমে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফসলের ক্ষেত পাকা ধানে ভরে উঠেছে। শুরু হয়েছে বৈশাখ মাস। মাঝে মধ্যে কালবৈশাখীও ছোবল হানছে। দেখা দিয়েছে করোনাভাইরাসের মহামারী। এমন অবস্থায় কৃষি শ্রমিক সংকটে পড়েছে হাওড় অঞ্চল ও নিচু এলাকার কৃষকরা। ঠিক সময়ে ঘরে ধান তুলতে পারবে কিনা এমন আশংকায় দিন গুণছেন ওইসব এলাকার ধান চাষীরা। অন্যান্য বছর নীলফামারী জেলা থেকে নওগাঁ ও বগুড়া জেলায় বোরো মওসুমে ধান কাটতে যেত কৃষি শ্রমিকরা। কিন্তু করোনার ধ্বংসলিলায় দেশের বেশির ভাগ জেলায় চলছে লকডাউন। ফলে এক জেলার মানুষ অন্য জেলায় যেতে রয়েছে সরকারি বিধি নিষেধ। কিন্তু আমাদের দেশে খাদ্য সংকট মোকাবেলায় বোরো ফসল ৬০ ভাগ পূরণ করে। অবশিষ্ট ৪০ ভাগ পূরণ হয় আমন মওসুমের ধানে। বোরো মওসুমে ধান কাটতে না পারলে খাদ্যের যোগান দেয়া কষ্টকর হবে। এমন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পুলিশি সহায়তায় গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সৈয়দপুর থেকে কমপক্ষে ৩০০ কৃষি শ্রমিক নওগাঁ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় গেছে ধান কাটতে। ওই জেলায় মঙ্গলবার হতে কৃষি শ্রমিক যাওয়া শুরু করেছে।
কথা হয় কৃষি শ্রমিক বেলাল, করিম, হামিদুল, জালাল, আব্দুলের সঙ্গে। তারা জানান, শুধু উপার্জন করার জন্য আমরা ধান কাটতে যাচ্ছি না, আমরা যাচ্ছি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে।
এ বিষয়ে জানতে কথা হয় সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খানের সঙ্গে। তিনি বলেন যে সব কৃষি শ্রমিক বাইরের জেলায় যেয়ে এ ক্রান্তিকালে মজুরীর বিনিময়ে ধান কাটার জন্য ইচ্ছুক সেই সব কৃষি শ্রমিকদের উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নিকট থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার সনদ নেয়া হচ্ছে। এবং কৃষি শ্রমিকদের যাওয়ার সময় মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার দেয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে যেসব করণীয় আছে সেসব বিষয়ে সচেতন করা হচ্ছে। এমনকি অল্প ভাড়ার বিনিময়ে যাতায়াতের জন্য ব্যবস্থা করে দেয়া হচ্ছে পরিবহনের। করোনা পরিস্থিতিতে সৈয়দপুর থেকে বিভিন্ন জেলায় যাওয়া কৃষি শ্রমিক বিষয়ে কথা হয় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড রুহুল আলম মাস্টারের সঙ্গে। তিনি জানান, সাধারণ মানুষরাই দেশকে বাঁচাতে দেশের যে কোন দুর্যোগে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি নেয় এবারেও তার ব্যতয় ঘটছে না।
সৈয়দপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর আখতার হোসেন ফেকু জানান, কৃষকদের পাশে থাকা সব মানুষের নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। বাংলাদেশ পল্লী চিকিৎসা সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক ও পপুলার ল্যাব এন্ড মিশন জেনারেল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. দেলোয়ার হোসেন জানান, নিরাপদ দূরত্বে থেকে কাজ করলে করোনার ঝুঁকি শতকরা ৮০ ভাগ থাকে না।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST