ঘোষনা:
জলঢাকা বড়ঘাট এলাকায় ইউপি সদস্যের নেতৃতে সেচ ক্যানেলের ইউক্যালিপটাস গাছ কর্তন-থানায় অভিযোগ।

জলঢাকা বড়ঘাট এলাকায় ইউপি সদস্যের নেতৃতে সেচ ক্যানেলের ইউক্যালিপটাস গাছ কর্তন-থানায় অভিযোগ।

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
জলঢাকা বড়ঘাট এলাকায় ইউপি সদস্যের নেতৃতে সেচ ক্যানেলের ইউক্যালিপটাস গাছ কর্তন-থানয় অভিযোগ। রবিবার দুপুরে উপজেলার চেংমাড়ী বড়ঘাট এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)এর তিস্তা সেচ ক্যানেলের গাছ ৩টি কেটে নেয় নুর ও কামরুজ্জামানসহ আরো দশ/বারজন। গাছগুলো সর্বমোট ৯১ সিপ্টি,যার দাম নব্বই হাজার টাকা।
এলাকাবাসী বলেন, রবিরার দুপুরে ১নং ওয়ার্ড চেংমারী বড়ঘাট এলাকার ইউপি সদস্য মোঃ তবিবর রহমানের নেতৃত্বে ক্যানেলের ৭ কিলোমিটার এরিয়া সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান ও সদস্য নুরসহ আরও দশ/বারজন মিলে গাছগুলো কেটে ২২ টুকড়ো করে ট্রলিতে লেবু মিয়ার মিলে নিয়ে যায়।এলাকাবাসীর বাধারমুখে পড়ে গাছের টুকড়োগুলো ফারাই করা সম্ভব হয়নি। এলাকার ট্রলি টালক আলাল এ গাছগুলো বড়ঘাট বাজারে পাশে লেবুর স’মিলের সামনে রেখে পালিয়ে যায়।
এবিষয়ে স’মিল মালিক লেবু মিয়া জানায়, আনুমানিক তিনটার ঘটনা আমার মিল বন্ধ,আমি মিলেই আছি।এমন অবস্থায় ট্রলি চালক আলাল এই ইউক্যালিপটাস গাছগুলো নিয়ে এসে মিলের পাশে ফেডারেশন মাঠে রেখে আমাকে বলে গাছগুলো তারাতারি কাটতে। তার কিছুক্ষণ পর ইউপি সদস্য তবিরর রহমান এসে আমাকে এই গাছগুলো কাঁটতে বলে। আমি বলি সরকারের নির্দেশে দুপুর ১ টার পর ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান চালু রাখা নিষেধ, এখন মিল চালু করে জরিমানা দিবো।তখন তবিবর রহমান বলে থানা পুলিশ আমি দেখবো তুমি গাছ কাটো।
পরে লোকজনের কানাঘুষার একপর্যায়ে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের কানে পৌঁছায়।পরদিন সোমবার সকালে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফেরদৌস ও বনবিভাগের লোকজন এসে গাছগুলো জব্দ করে এবং ২২ টি খন্ডই মিল মালিকের দায়িত্বে রেখে যায়।
এলাকার ইউপি সদস্য মোঃ তবিবর রহমানের সাথে কথা বললে ,তিনি বিষয়টিকে অস্বীকার করে বলেন আমাকে ফাসানোর পায়তারা চলছে।
পরে বনের উপকারভোগী সমীতির সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান, সদস্য নুর, ট্রলি চালক আলালের সাথে কথা বলতে গেলে তাদের বাড়িতে পাওয়া যায়নি এবং মুঠোফোনে কথা বলতে চেষ্টা করলেও কোন তোলেনি।
জলঢাকা উপজেলা বনবিভাগের কর্মকর্তা মোঃ হিরুর কাছে বিষয়টি জানতে ফোনে কথা বললে তিনি সংবাদ কর্মীদের জলঢাকা বনবিভাগ অফিসে আসতে বলে। বনবিভাগ অফিসে গেলে দেখা যায় অফিসে তালা এবং ওই কর্মকতার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
বিষয়টি রংপুর বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোতলুবুর রহমানকে জানালে তিনি বলেন,আমি বিষয়টির যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবো এবং যারা এ ঘটনার প্রত্যক্ষদোষী তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসবো। এবিষয়ে জলঢাকা থানায় সরকারি গাছকাটা ও আত্নসাৎ সংক্রান্ত মামলা দায়ের করা হয়।
সরকারী গাছ কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে জলঢাকা থানার অফিসার ইসচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ সংক্রান্ত বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি,তদন্ত চলছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST