ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই নীলফামারীর জলঢাকায় খাসজমি দখল করে পাকা ঘর ণির্মান নীলফামারীতে র‌্যাবের অভিযানে ফেন্সিডিলসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৮ জনের মৃত্যু
রাজশাহী বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় ১০ জন করোনায় আক্রান্ত।মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ২০৭ জন।

রাজশাহী বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় ১০ জন করোনায় আক্রান্ত।মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ২০৭ জন।

রাজশাহী প্রতিবেদক,
রাজশাহী বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।এ নিয়ে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ২০৭ জন।রাজশাহী বিভাগে জটিল হচ্ছে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি। বিভাগে বেড়েই চলছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ।আজ রোববার (১০ মে) দুপুরে স্বাস্থ্য দফতরের বিভাগীয় পরিচালক ডা. গোপেন্দ্র নাথ আচার্য্য গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ জনের ধরা পড়েছে করোনাভাইরাস। হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন এদের দুইজন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাজয় করে বাড়ি ফিরেছেন সাতজন। তবে বাড়েনি মৃতের সংখ্যা। বিভাগে করোনা প্রাণ কেড়েছে এ পর্যন্ত দুইজনের।
বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের হিসাবে, সবচেয়ে বেশি ৬২ জনের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে নওগাঁয়। বিভাগে করোনার হটস্পট হয়ে ওঠা এই জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে একজনের। প্রায় প্রতিদিনই এই জেলায় বাড়ছে করোনা রোগী। তবে এখনও জেলার কেউ করোনা সংক্রমণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হননি।
গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে সর্বোচ্চ তিনজনের সংক্রমণ ধরা পড়েছে জয়পুরহাটে। সব মিলিয়ে এই জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ জন। বিভাগের আট জেলার মধ্যে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেকর্ড এটি। আক্রান্তদের ৩৯ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এই জেলার চার রোগী সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন।
এ পর্যন্ত ৩৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে বগুড়ায়। এদের ১৪ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন আটজন করোনা রোগী। বিভাগে করোনাজয়ের সর্বোচ্চ রেকর্ড এটি।
এর বাইরে রাজশাহীতে দুইজন এবং পাবনায় একজন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। তবে এখনও হাসপাতালে রয়েছেন বগুড়ার ১৪ করোনা রোগী। এছাড়া রাজশাহীতে দুইজন এবং নাটোরের একজন ভর্তি রয়েছেন হাসপাতালে। এই দুই জেলায় একজন করে মারা গেছেন করোনায়।
স্বাস্থ্য দফতরের হিসাবে, এ পর্যন্ত রাজশাহীতে ১৭ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৫ জন, নাটোরে ১২ জন, পাবনায় ১৫ জন এবং সিরাজগঞ্জে ছয়জনের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে।
বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে ৫৫১ জনকে। এই সময়ে হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে বেরিয়েছেন ৯৬৮ জন। প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে গেছেন ২৪ জন। আর প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন শেষ হয়েছে ৫১ জনের। নতুন করে তিনজনকে আইসোলেশনে নেয়া হলেও ছাড়পত্র পেয়েছেন সাতজন।
গত ১০ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত বিভাগে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে ২৭ হাজার ৫৪৩ জনকে। এদের মধ্যে ১৯ হাজার ৮৩০ জন হোম কোয়ারেন্টাইন শেষ করেছেন। প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে ৪১৭ জনকে। এদের ২৪৩ জনপ্রতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়া পেয়েছেন। এ পর্যন্ত ২২২ জনকে আইসোলেশনে নেয়া হলেও ছাড়পত্র পেয়েছেন ১৬৪ জন।
রাজশাহী বিভাগে করোনা পরিস্থিতি জটিল হচ্ছে জানিয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের পরিচালক ডা. গোপেন্দ্র নাথ আচার্য্য।
তিনি বলেন, এখন করোনাভাইরাসের কমিউনিটি সংক্রমণ পর্যায় চলছে। এই সময় প্রত্যেককে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে। বিনাপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হওয়া যাবে না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। বাইরে বের হওয়ার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST