ঘোষনা:
শিরোনাম :
দীর্ঘ এক বছর পর ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরু,শিক্ষামন্ত্রী। চট্টগ্রামে সমন্বয়ের অভাবে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হচ্ছে না, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, তাজুল ইসলাম । খুলনার মহাসমাবেশে শ্লোগান,এক সংগ্রাম, এক ডাক, আওয়ামী লীগ সরকার নিপাত যাক। বদরগঞ্জে একঝাঁক তরুন তরুনীদের প্রচেষ্টায় বদরগঞ্জে বি-বাজারের যাত্রা শুরু। বদরগঞ্জে শয়নকক্ষে শিক্ষার্থীর গলাকাটা মরদেহ : হত্যা নাকি আত্মহত্যা। জলঢাকায় গাঁজা কেনাবেচা কালে মা-ছেলেসহ আটক-৩। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় প্রথমবার ইভিএমে ভোট।সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে প্রশাসন। কিশোরগঞ্জে জাপা কর্মীর জানাজা সম্পন্ন । নীলফামারীতে অটোরিকশা ও নৈশ কোচের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১১। নীলফামারীতে সড়ক র্দূঘটনায় ১জন নিহত ও ১২জন ইপিজেড কর্মী আহত
খিলগাঁওয়ে বাশারকে কুপিয়ে হত্যা-আটক ১।

খিলগাঁওয়ে বাশারকে কুপিয়ে হত্যা-আটক ১।

স্টাফ রিপোর্টার,
খিলগাঁওয়ে বাশারকে কুপিয়ে হত্যা-আটক ১। রাজধানীর খিলগাঁওয়ের গোড়ান এলাকায় আবুল বাশার তালুকদার (৩২) নামে একজনকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত অন্যতম হোতাকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৩)।
শফিকুল ইসলাম শফিক (২৫) নামে আটক হওয়া ওই ব্যক্তি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।
বৃহস্পতিবার (১৪ মে) রাতে খিলগাঁও রেলগেট এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। এ সময় চাঞ্চল্যকর বাশার হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা রামদা জব্দ করা হয়েছে।
র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক এএসপি সুজয় সরকার জানান, বুধবার (১৩ মে) রাতে আবুল বাশার তালুকদারকে কুপিয়ে খুন করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় নিহতের ভাই উজ্জ্বল তালুকদার বাদি হয়ে খিলগাঁও থানায় হত্যা মামলা করেন।
চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় গোয়েন্দা নজরদারির ভিত্তিতে এজাহার নামীয় আসামি শফিকুল ইসলাম শফিককে আটক করা হয়।
প্রাথমিক জিজ্ঞরাসাবাদে শফিক হত্যাকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততা স্বীকার করেছেন। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা একটি রামদা উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
আটক শফিককে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব জানায়, খিলগাঁও এবং রামপুরা এলাকায় অবৈধ ইট, বালুর ব্যবসা এবং মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ওই এলাকার বিভিন্ন সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। নিহত আবুল বাশার তালুকদার খিলগাঁও ও রামপুরা থানা এলাকায় ইট ও বালু সরবরাহের ঠিকাদারি করতেন।
ইট, বালুর ব্যবসার নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্র করে সাইফুল গ্রুপের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন আবুল বাশার গ্রুপ। এরই প্রেক্ষিত এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।
ঘটনায় সম্পৃক্ত অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান এএসপি সুজয় সরকার।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST