ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরা প্রাইভেটকার নদীতে পড়ে নিহত-২, আহত-৩ । চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা । নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন।
নীলফামারী জলঢাকায় কাতার চ্যারিটির দুঃস্থ এতিমের শুকনো খাবার ধনীদের বিতরণ।অভিযোগ জনপ্রতিনিধিদের।

নীলফামারী জলঢাকায় কাতার চ্যারিটির দুঃস্থ এতিমের শুকনো খাবার ধনীদের বিতরণ।অভিযোগ জনপ্রতিনিধিদের।

 

জলঢাকা,নীলফামারী,প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় কাতার চ্যারিটির এনজিও বিষয়ক বুরো অফিস কার্যালয় ঢাকা থেকে দুঃস্থ এতিমের শুকনো খাবার প্যাকেজ প্যাকেট বরাদ্দা দেয়া হয় স্থানীয় দুজন প্রতিনিধিকে।যার প্রতিটি প্যাকেজ প্যাকেটের আনুমানিক মুল্য ৩হাজার ৪শত ২০টাকা ।এতে কিছু এতিম ও দুস্তদের বিতরণ করলেও অধিকাংশই ধনীদের  বিতরণ করেছে স্থানীয়ভাবে বরাদ্দ নেয়া প্রতিনিধিরা ।প্রকৃত দুস্থদের বিতরণ হয়নি বলে অভিযোগ করেছে কৈইমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ এলাকার হতদরিদ্র ও এতিমরা।আর বরাদ্দ নেয়া প্রতিনিধি স্বীকার করে বলেন,মালগুলো ঢাকা থেকে আসার ভাড়া বাবদ কিছু প্যাকেট বিক্রি করে ভাড়া পরিষোধ করেছেন এতিমখানার পরিচালক হায়দার আলী। গত (১২ই মে) মঙ্গলবার কৈমারী স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে দুঃস্থ ও এতিমদের শুকনো খাবারের প্যাকেট বিতরন করেন স্থানীয় প্রতিনিধি লোহালী কচুয়া এতিমখানার পরিচালক হায়দার আলী ও মোকলেছুর রহমান,লেলিন। জানাযায়,কাতার চ্যারিটি দাতা সংস্হা ইফতার এন্ড যাকাত প্রোগামের ২০২০র্শীষ কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য জলঢাকা উপজেলার দুঃস্থ ও এতিমদের জন্য এককালীন অনুদান ৯০০শত শুকনো খাবার প্যাকেট ৯০০শত পরিবারের জন্য বরাদ্দ দেয়।প্যাকেজ প্যাকেটে চাল ২০ কেজি,সোয়াবিন তেল ৫কেজি,চিনি ২কেজি, ডাল ২ কেজি,লবন ১কেজি,ছোলা ২কেজি,পেয়াজ ২ কেজি,খেজুর ২কেজি। যাহা প্রতিটি প্যাকেজ প্যাকেটের মুল্য ৩হাজার ৪শত ২০টাকা যাতে দুঃস্থ ও এতিমরা নির্বিঘ্নে যেন মাসব্যাপি রোজা রাখতে পারে তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে যাহা এনজিও বিষয়ক বুরো অফিস কার্যালয় ঢাকা থেকে বরাদ্দ দেয়।তবে বিতরনের পরের দিন (১৩/৫/২০ইং) বুধবার জনপ্রতিনিধিদের অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গিয়ে অভিযোগের সাথে বাস্তবে মিল খুজে পাওয়া যায়।এলাকায় দুঃস্থ ও এতিমদের জন্য বরাদ্দ পাওয়ার কথা থাকলেও দুঃস্থরা না পেয়ে বরং পেয়েছে ধনীরা যাহা পরিপত্রের পরিপন্থী।জলঢাকা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক মোকলেছুর রহমান,লেলিন বলেন,বরাদ্দ পেয়ে যাদের দিয়েছি তারা হলেন,উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ১০০শত প্যাকেট,উপজেলা সরকারী অফিসে যারা মাষ্টার রোলে আছেন তারা পেয়েছেন ১০প্যাকেট,জলঢাকা থানা ১০প্যাকেট, থানা এস আইদের আবেদনে ১২প্যাকেট,উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নলনী বিশ্বাস ২৫ প্যাকেট,উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সারোয়ার হোসেন সাদের ১৫প্যাকেট,উপজেলা মহিলা যুবলীগ ৫প্যাকেট,এন,জি,ও(নুরে জান্নাত) ১০০প্যাকেট,এনজিও আমজাদ হোসেন ৫০প্যাকেট,জলঢাকায় ব্যক্তিগত লোক ২০প্যাকেট,বিন্নাকুড়ি রোজগার ১০প্যাকেট,লোহালী কচুয়া ( গংঙ্গাচড়া) এতিমখানার পরিচালক হায়দার আলী ১৫০প্যাকেট, মানিক লাল দত্ত ১০প্যাকেট,মাহবুবার রহমান মনি ২প্যাকেট,জলঢাকা ইউ,এন,ও অফিস ৭প্যাকেট,কৈমারী ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান লিটন ১০প্যাকেট,কৈমারী ইউপি ছাত্রলীগ ৪০প্যাকেট,কৈমারী ইউপি যুবলীগ ১৫০প্যাকেট,আমিনুর রহমান প্রাঃশিঃ মাষ্টার ৫প্যাকেট,বালাগ্রাম ইউনিয়নের বাহাদুর চৌধুরি ৫ প্যাকেট,মালেকুজ্জামান দুদুল ১০প্যাকেট,লোহালী ইউনিয়ন(গংঙ্গাচড়া)আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ১০প্যাকেট,কৈমারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ৫০প্যাকেট,কৈমারী বাজার পাহারাদার ৫প্যাকেট। সর্বমোট ৯০০শত প্যাকেট বরাদ্দ হলেও হিসাবে পাওয়া গেল ৮১১প্যাকেটের। বাকি ৮৯ প্যাকেটের হদিস এখনো পাওয়া যায়নি।বরাদ্দ নেয়া প্রতিনিধি গংঙ্গাচড়া উপজেলার লোহালী কচুয়া এতিমখানার পরিচালক হায়দার আলী বলেন,আপনারা লেলিনের সাথে কথা বলেন,আমার ১৫০ প্যাকেটের মধ্যে কয়েক প্যাকেট এতিমখানায় দিয়েছি বাকি প্যাকেট গাড়ি ভাড়া দিয়েছি।এবিষয়ে লোহালী কচুয়া ইউপি চেয়ারম্যান টিটু এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন,এতিম খানার ত্রান বিষয়ে আমি কোন কিছু জানিনা।কৈমারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল হক বাবুর সাথে কথা হলে তিনি জানান ত্রান বিতরণ বিষয়ে আমাকে কেউ কোন কিছু জানান নাই।তবে প্রকৃত পক্ষে দুঃস্থ ও এতিমদের না দিয়ে নিজস্ব মনগড়া ধনী লোকদের দিয়েছেন তারা। এবিষয়ে জলঢাকা থানা অফিসার্স ইনচার্স মোস্তাফিজুর রহমান এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান আমি ত্রান বিতরণ স্হানে যাইনি। উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি)গোলাম ফেরদৌস মুঠো ফোনে বলেন,বর্তমান সরকারের ত্রান বিতরনের একটি নিয়ম আছে,যা ইউপি চেয়ারম্যান এর মাধ্যমে তালিকা করে ত্রান বিতরণ করা।এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুব হাসান এর সাথে কথা হলে তিনি জানান ত্রান বিতরণ বিষয়ে আমাকে অবগত করেছিল, কিন্তু অফিসিয়াল ব্যস্ততার কারনে যেতে পারি নাই।

 





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST