ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন। ডিমলায় ৭ই মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা। কিশোরগঞ্জে জলাশয় সংস্কার পুনঃ খনন কাজের উদ্ধোধন
বোরো ধানে দাম ভালো পাওয়ায় এবার আউশ চাষে ঝুঁকছেন কৃষকেরা।

বোরো ধানে দাম ভালো পাওয়ায় এবার আউশ চাষে ঝুঁকছেন কৃষকেরা।

গ্রাম পোষ্ট ডেস্ক,
সরকারের পক্ষ থেকে সার, বীজ ও সেচ সুবিধা পাওয়ার কারণে বোরো ধানের ভালো দাম পাওয়ায় এবার কৃষকরা আউশ চাষের দিকে ঝুঁকছেন। বোরো কাটার পরপরই অনেক কৃষক আউশ ধান রোপণ করেছেন।আউশ ধান আবাদে উৎপাদন খরচ কম। পানি সেচ দেয়ার দরকার হয় না। সেই সাথে কিটনাশক ও স্যার প্রয়োগ করতে হয় সীমিত। তাছাড়া এবার বোরো ধানের ভালো দাম পেয়ে আউশ ধান উৎপাদনের উৎসাহ উদ্দীপনা আরও বেড়ে গেছে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে ও বৈশ্বিক খাদ্য সংকটের কথা বিবেচনা করে খাদ্য উৎপাদনে সরকারের পক্ষ থেকে জোর দেয়া হয়েছে। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১০ লাখ হেক্টর জমিতে আউশ চাষ হলেও ২০২০-২১ অর্থবছরে ১৩ লাখ ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে চাষ হচ্ছে। যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টন। গত অর্থবছরের চেয়ে এবার আউশ উৎপাদন সাড়ে ৭ লাখ টন বাড়বে বলে সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন। ফলে এবার লক্ষ্যমাত্রাও ছাড়িয়ে যাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগ ইউএসডিএ’র প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯-২০ সালে ১১ লাখ ৭০ হাজার হেক্টর জমিতে আউশ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করলেও ১০ লাখ হেক্টর জমিতে আউশ আবাদ করেন কৃষকেরা। আগের অর্থবছর (২০১৮-১৯) আউশ আবাদের পরিমাণ ছিল ১১ লাখ ৪৫ হাজার হেক্টর জমিতে। ফলে দেড়লাখ হেক্টর জমিতে আউশের আবাদ কমেছে।এ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছিল, ‘২০১৯-২০ মৌসুমে আউশ ধানের উৎপাদন ৩ লাখ টন কমে যাচ্ছে।’করোনাসহ যে কোনো মহামারি হলে খাদ্য সংকট দেখা দেয়। আমাদের দেশে যেন কোনো খাদ্য সংকট না হয়, সেজন্য ধানের উৎপাদন আরও কীভাবে বাড়ানো যায়, আমরা সে চেষ্টা করছি। কৃষককেও নানাভাবে সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছি। গত অর্থবছরের চেয়ে এবার আউশ ধানের উৎপাদন অনেক গুণ বাড়বে।

প্রকৃতপক্ষেই এই অর্থবছরে অনেক কৃষক আউশ ধান উৎপাদন না করায় সরকারের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়নি বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।
ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক কৃষিবিদ ড. মো. শাহজাহান কবীর গ্রাম পোষ্টকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন, ‘এক ইঞ্চি জমি ফেলে রাখা যাবে না। প্রতি ইঞ্চি জমিকে কাজে লাগাতে হবে।’ তার এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে আমরা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মাঠপর্যায়ে কাজ করছি। সরকারের পক্ষ থেকে বীজ, সার ফ্রি দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া যেখানে সরকারি সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থা আছে সেখানে সেচও ফ্রি করে দেয়া হয়েছে। তাছাড়া এবার বোরো ধানের দাম ভালো পাওয়ায় কৃষক আউশ ধান চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘২০২০-২১ অর্থবছরে ১৩ লাখ ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে আউশ চাষ হচ্ছে। যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টন। কৃষকের যে আগ্রহ তাতে জমি ও উৎপাদন আরও বাড়তে পারে। বরিশালে যেসব জমি পতিত থাকত, কোনো আবাদ হত না, এবার সেসব জমি আবাদের আওতায় এসেছে। করোনাসহ যে কোনো মহামারি হলে খাদ্য সংকট দেখা দেয়। আমাদের দেশে যেন কোনো খাদ্য সংকট না হয়, সেজন্য ধানের উৎপাদন আরও কীভাবে বাড়ানো যায়, আমরা সে চেষ্টা করছি। কৃষককেও নানাভাবে সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছি। গত অর্থবছরের চেয়ে এবার আউশ ধানের উৎপাদন অনেক গুণ বাড়বে।’

বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের পরিচালক (সরেজমিন উইং) কৃষিবিদ ড. মো. আলহাজ উদ্দিন গ্রাম পোষ্টকে বলেন, প্রথম দফায় ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৪৩৪ জন ও দ্বিতীয় দফায় ৮২ হাজার ৪০০ জন কৃষকসহ মোট ৪ লাখ ৬৫ হাজার ৮৩৪ জন কৃষককে আউশ চাষে প্রণোদনা ও সহায়তা দেয়া হচ্ছে। এসব কৃষককে বীজ ও সার ফ্রি দেয়ার কারণে আউশ চাষে তাদের আগ্রহ বেড়েছে।

তিনি বলেন, আমরা কৃষককে ভালো জাতের বীজ, যার অধিক ফলন হয়, সেসব বীজ দিচ্ছি। এসব বীজে অধিক উৎপাদন হবে। আর অধিক উৎপাদনের মাধ্যমে কৃষক লাভবান হলে পরবর্তীতে অউশ ধান চাষে কৃষককে আর বলতে হবে না। নিজের প্রয়োজনেই কৃষক আউশ ধান চাষ করবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST