ঘোষনা:
শিরোনাম :
খুলনার ভৈরব নদ থেকে কিশোরের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। নীলফামারীর ডোমারে করোনা প্রতিরোধে ভ্রাম্যমান প্রচারণার উদ্বোধন । বাগেরহাট সদরের তালশাস কাটাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নিহত -১ চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকায় ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫। চট্টগ্রামে মিতু হত্যা মামলায় আরও দুই আসামিকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে ১৪ দিন পর ঢাকায় ফেরার অনুরোধ ২৩ মে পর্যন্ত লকডাউনে নতুন দুটি প্রজ্ঞাপন জারি। নীলফামারীতে ধান কাটতে গিয়ে গুরুতর জখম দিনমজুর। নীলফামারী কিশোরগঞ্জে প্রকৃতিতে হলদে হাসির সৌরভে রঙ ছড়াচ্ছে সোনাইল ফুল
পুরোনো অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে অপরাধ দমনে সার্থক নীলফামারী পুলিশ সুপার।

পুরোনো অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে অপরাধ দমনে সার্থক নীলফামারী পুলিশ সুপার।

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
পুরোনো অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে অপরাধ দমনে সার্থক নীলফামারী পুলিশ সুপার। সাড়ে ৫ মাস হলো পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান।যোগদানের মাত্র সাড়ে ৫ মাসের মাথায় বিশেষ কর্মদক্ষতার মাধ্যমে জেলা পুলিশকে ‘মানবিক পুলিশ’ এ পরিণত করেছে মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান শুধু মানবিক হিসেবেই নয়, ইন্টেলিজেন্স লেড পুলিশিং এও সফলতা পেয়েছেন তিনি। তার হাত ধরেই দু’দিকে সমান তালে এগুচ্ছে জেলা পুলিশ। ইতোপুর্বে তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের(ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগে কর্মরত ছিলেন। ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ পেয়েছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি পদক(পিপিএম) ও বাংলাদেশ পুলিশ পদক(বিপিএম)। গেল ১০ জানুয়ারী পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন এই জেলায়।
পুরোনো কর্মস্থলের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে নীলফামারীতে অপরাধ প্রবণতা কমিয়ে আনা এবং মানবিক কার্যক্রমে মানুষের পাশে থাকার প্রত্যয়ে কাজ করছেন তিনি। যা দৃশ্যমান হয়েছে ইতোমধ্যে।

এসপি মোখলেছুর রহমান নীলফামারীতে যোগদানের কিছুদিনের মধ্যে গ্রেফতার হয় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আল্লাহ’র দলের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারীসহ দু’জন এছাড়া ভারত থেকে অবৈধ ভাবে আসা শতাধিক গরু আটক করা হয়।

দেখা গেছে দাফতরিক কার্যক্রম এর পাশাপাশি পরিচয়হীন উদ্ধার হওয়া এক নবজাতকের দায়িত্ব গ্রহণ, করোনাকালীন সময়ে সংকটে পড়া মানুষদের মধ্যরাতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিয়ে আসা, জাতীয় সেবা নম্বর ৯৯৯ থেকে খাদ্য সহায়তা চেয়ে ফোন করা ব্যক্তিদের পরিচয় গোপন রেখে খাদ্য পৌঁছে দেয়া, হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা এবং পর্যবেক্ষণে রাখা, প্রয়োজন অনুসারে কোয়ারেন্টিনে থাকা পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়ানো, করোনা আক্রান্ত রোগীদের খোঁজখবর রাখা ও তাদের পুষ্টিকর খাদ্য সরবরাহ, করোনায় এবং উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ কারী ব্যক্তিদের দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয় পুলিশ সুপারের নির্দেশনা এবং সরাসরি তত্বাবধানে।

এমনকি তিন মাস আটকে থাকা কুষ্টিয়া জেলার ১১জন বেত সম্প্রদায়ের মানুষকে নিজ জেলায় প্রেরণ করে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন জেলা পুলিশ কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান।

করোনা সচেতনতায় প্রচারণা মুলক লিফলেট, স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানেটাইজার বিতরণ, সড়ক জীবানু নাশক, অবরুদ্ধকালীন সময়ে জেলায় প্রবেশ ও বর্হিগমন বন্ধে বিশেষ চেক পোষ্টের মাধ্যমে তা নিশ্চিত করা, সৈয়দপুর বিমান বন্দর ও উত্তরা ইপিজেডে স্বাস্থ্য বিধি পর্যবেক্ষণ এবং প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ, সংকটকালীন সময়ে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত রাখতে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে কৃষি শ্রমিক প্রেরণ করা হয় এই পুলিশ কর্মকর্তার সার্বিক তদারকিতেই।

চরম ঝুঁকির মধ্যেও পুলিশের প্রত্যেক সদস্যদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করে এমনকি সকল প্রকার ছুটি বাতিল করে তাদের মানবিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত রাখেন তিনি।

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে বিভিন্ন তথ্য আদান প্রদানের জন্য জেলা পুলিশের সমন্বয়ে কমিউনিটি পুলিশিং এবং বিট পুলিশিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

আক্রান্ত সদস্যদের জন্য পুলিশ লাইন্সে আট শয্যার আইসোলেসন সেন্টার স্থাপন, সদস্যদের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং কুইক রেসপন্স টিম গঠন করা হয়েছে মানব সেবায়।

জেলা পুলিশে একজন মানুষ হিসেবে সবাই সমান এটিও প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। উদাহরণ হিসেবে একই টেবিলে খাদ্য গ্রহণ, একই খাবার গ্রহণ এবং অনুষ্ঠানে বিশেষ ভাবে সম্মানিত না করার ইতিহাস তৈরি করেছেন তিনি।

তবে প্রত্যেক সদস্যের ক্ষেত্রে ভালো কাজের মুল্যায়ন এবং অপরাধে জড়ালে শাস্তির বিষয়ে কড়া সতর্ক বার্তা দিয়েছেন তিনি। এক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের সাথে খারাপ আচরণ এমনকি হয়রানী করলে শাস্তি ভোগ নিশ্চিত করতে কঠোর অবস্থান তার।

নীলফামারী ট্রাফিক বিভাগের সার্জেন্ট বরকতুল্লাহ সরকার জানান, গেল তিন মাসে একদিনও ছুটি কাটাই নি। অথচ ছুটি খুব প্রয়োজন ছিলো। ক্রান্তিকালে মানুষের সেবায় ব্রত নিয়ে কাজ করছি।

বিশেষ করে পুলিশ সুপার স্যারের সরাসরি নির্দেশনায় করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে পিকআপ বা ট্রাকে যাত্রী পরিবহণ করা হচ্ছে কিনা সেটি যাচাই করা হয়। পাশাপাশি যাত্রীবাহী বাসগুলোতে স্বাস্থ্য বিধি মানা হচ্ছে কিনা কিংবা অতিরিক্ত যাত্রী নেয়া হয়েছে কিনা সেটি যাচাই করা হয়।

তিনি বলেন, ভবানীগঞ্জ চেকপোষ্টে দায়িত্ব পালন করি আমি। ক্লাস্টার অনুযায়ী তিনটি টিম সার্বক্ষনিত দায়িত্বে থাকে এখানে। অনুরুপ ভাবে পুলিশ অভ্যন্তরীণ এবং আন্তঃজেলা রুটের ২২টি চেকপোস্টে ক্লাস্টার অনুসারে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন করোনা থেকে মানুষকে সুরক্ষায়।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমানকে অত্যন্ত মানবিক একজন মানুষ হিসেবে উল্লেখ করে নীলফামারী সদর উপজেলার পলাশবাড়ি ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা পার্থ প্রতিম রায় বলেন, কুষ্টিয়া জেলার ১১জন বেত সম্প্রদায়ের মানুষ তিন মাস থেকে এখানে আটকা পড়ে ছিলেন। খাদ্য সংকটের পাশাপাশি লকডাউনের কারণে বাহিরে যেতে না পারায় আয় উপার্জন বন্ধ হয়ে পড়ে তাদের। চরম এই মুহুর্ত্বে তরা নিজ জেলায় ফিরতে আকুতি জানাচ্ছিলো সেটি আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেই।বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষনিক এগিয়ে আসেন এসপি মহোদয়। তাদের খাওয়া নিশ্চিত করণের পাশাপাশি নিজ খরচে কুষ্টিয়ায় প্রেরণ করেন তিনি।

কৃষি কর্মকর্তা বলেন, এরচেয়ে বড় উদারতা আর কি হতে পারে।

জেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সদস্য সচিব প্রকৌশলী সফিকুল আলম ডাবলু বলেন, করোনায় অমানবিক হয়ে গেছে যেন মানুষরা। নিকটাত্মীয়রাও কাছে ভীড়ছেন না করোনায় আক্রান্ত বা উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তিদের পাশে।

এমনকি লাশ গ্রহণে অস্বীকৃতি জানাচ্ছেন, দাফনেও বাঁধা দেয়া হচ্ছে। সেখানে পুলিশকেই লাশ গ্রহণ, জানাযা এবং দাফন করতে হচ্ছে।

তিনি জানান, করোনাকালীন সময়ে পুলিশকে মানুষের পাশে থাকার বিষয়টি দেখেছি। মানবিক নানা কার্যক্রমে অংশ নিয়েছে তারা, এটি নিশ্চয় মানবিক মুল্যবোধ থেকে তৈরি করতে পেরেছেন পুলিশ সুপার মহোদয়। আশা করি তার হাত ধরেই নীলফামারী অপরাধ মুক্ত হবে এবং মানবিক পুলিশিংও স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

জেলা পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে পুলিশ সুপারের ইন্টেলিজেন্স লেড পুলিশিং এর কারণে দ্রুত অপরাধের রহস্য উদঘাটন, অপরাধী গ্রেফতার, অপরাধ প্রশমণ করা সম্ভব হয়েছে। বিশেষ কৌশলের ফলে কমেছে অপরাধ মুলক কর্মকান্ড এবং এড়ানো গেছে সংঘাত।

সুত্র জানায়, গেল একমাসে চারটি হত্যা কান্ডের রহস্য উদঘাটন, অপরাধী শনাক্ত এবং জড়িত নয়জনকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। গ্রেফতার ব্যক্তিরা আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দিও দিয়েছেন।
এছাড়াও চিহিৃত মাদক ব্যবসায়ী, অপহরণকারী, ভুয়া পুলিশ কর্মকর্তাকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

জেলা পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বিপিএম, পিপিএম বলেন, আইন শৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি মানুষের পাশে দাঁড়াতেও সদা প্রস্তুত আমরা।

করোনা সংকটে পরিচয় গোপন রাখার শর্তে অনেকে খাদ্য চেয়েছেন আমাদের কাছে, আমরা পরিচয় গোপন রেখেই ওই পরিবারগুলোর কাছে খাবার পৌঁছে দিয়ে এসেছি।

হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা দেশি বিদেশি ১২৯০ জন নাগরিকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সচেতনতা ও পরামর্শ এবং বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ১২হাজার ৮’শ জনকে কোয়ারেন্টিনে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এগুলো করা হয়েছে মানুষ যেন ভালো থাকে। ভাইরাসে সংক্রমিত না হতে পারে।

তিনি আরও বলেন, সবচেয়ে বড় অর্জন আমি মনে করি উত্তরা ইপিজেডে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার বিষয়টি নিশ্চিত করা, কারণ সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখা হয়েছে সেখানে এবং কেউ অসুস্থ্য হলে তাৎক্ষনিক ভাবে আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। একই ভাবে বিমান বন্দরও আমরা পর্যবেক্ষণ করেছি। করোনার মাঝে সর্বোচ্চ ঝুঁকি নিয়ে আমার পুলিশ সদস্যরা সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করেছেন যার কারণে চুরির কোন ঘটনা ঘটেনি। এটি জেলাবাসীর জন্য ভালো একটি উদাহরণ। তারপরও অপরাধ মুলক কর্মকান্ডে যারা জড়িত ছিলেন তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ।

তিনি অপরাধ ঘটার পরে নয়, আগে তথ্য দিয়ে সহযোগীতার আহবান জানান সকলের প্রতি, কারণ আগে তথ্য থাকলে সেটি নিস্তেজ করে দেয়া যায়।

তিনি বলেন, করোনা কালীন ২০ হাজার কৃষি শ্রমিকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে পাঠানো হয়েছে বিভিন্ন জেলায় তারা আবার ফিরেও এসেছেন এবং ভালো রয়েছেন এটা আমাদের সফলতা। এত সংখ্যক শ্রমিক আর অন্য কোন জেলা থেকে প্রেরণ করা হয়নি। প্রতিটি ভালো কাজে জেলা পুলিশ রয়েছে এবং থাকবে বলে প্রত্যাশা পুলিশ সুপার মোখলেছুর রহমানের।

পুলিশ সুপার কার্যালয় সুত্র জানায়, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা পর্যায়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে(সদর) প্রধান করে চার সদস্যের এবং থানা পর্যায়ে ওসিকে প্রধান করে নয় সদস্যের ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করণে বাজার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে চর্তুভুজ আকৃতি চিহৃ দেয়া হয়েছে যাতে করে ক্রেতারা এটিতে অবস্থান করে প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনতে পারেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST