ঘোষনা:
শিরোনাম :
শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার পেয়েছেন নীলফামারীর মেয়ে দিয়া নীলফামারীতে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে লাঞ্চনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান। নীলফামারীতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে চড়ম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ নীলফামারীর আর্চার দিয়া পাচ্ছেন,শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার জিএম কাদেরের নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি বললেন,সংসদ সদস্য আদেল নীলফামারীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখলের অভিযোগ ডিমলায় শিশু নির্যাতন বিরোধী র‌্যালী ও আলোচনা সভা নীলফামারীতে চাঁদা না দেওয়ায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ, তিন গ্রামের মানুষের দুর্ভোগে ডিমলায় ব্যবসায়িকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা চট্টগ্রামে শশার বস্তাতেই চোলাই মদ ও আফিমসহ গ্রেপ্তার ১ 
প্রকৃতির কোল থেকে হারিয়ে যাচ্ছে স্বর্ণালী পরজীবী উদ্ভিদ আলোক লতা।

প্রকৃতির কোল থেকে হারিয়ে যাচ্ছে স্বর্ণালী পরজীবী উদ্ভিদ আলোক লতা।

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি, নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার কিশোরগঞ্জ-তারাগঞ্জ অভিমুখী সড়কে অবস্থিত বাহাগিলি ঘাট পেরুলেই খানিকটা দূরে, ঘাট পাড়া ওই গ্রামের পথে চা বাগানের পাশে দেখা মিললো বড়ই গাছে আলোক লতার। যেন গোধূলীর সন্ধ্যায় স্বর্ণালী রঙে বিস্তর জালের মত ছেয়েঁ গেছে পুরো গাছ। বাহাগিলি ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান শাহ্ দুলু এর সাথে কথার বলার এক পর্যায়ে আলোক লতার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “বাংলাদেশের প্রকৃতিতে সৌর্ন্দয্য বাড়িয়ে তোলেন যে, কয়েকটি লতা, তাদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আলোক লতা। এই লতা নিজের আলপনায় মনের মাধুরী মিশিয়ে সবুজ শ্যামল পথে প্রান্তরে আপন রূপের মহিমা ছড়ায়। দেশের সব জায়গায় দেখা যায় আলোক লতা। গ্রামে বসবাসকারী সব মানুষ এই লতাকে চেনেন।” কিন্তু গ্রামগঞ্জে আগের মত তেমন আর চোখে পড়ে না আলোক লতা। দিনদিন উজাড় হচ্ছে আলোক লতার বাসযোগ্য বাবলার আর বড়ই গাছ। এখন আর মানুষ আগের মত বাবলা আর বড়ই গাছ রোপন করে না, নেয় না কোন যত্ন। অযত্ন আর অবহেলায় যেমনটি হারাচ্ছে বড়ই গাছ, সেই সাথে হারিয়ে যাচ্ছে প্রকৃতির কোলজুড়ে পরজীবী উদ্ভিদ আলোক লতা।
তিনি আরো বলেন, “আলোক লতা একটি পরজীবী উদ্ভিদ। জীবন্ত গাছে জন্ম নিয়ে অলৌকিকভাবে গাছকে অবলম্বন করেই টিকে থাকে। যে গাছে জন্মায় সেই গাছের ডাল ও কান্ড থেকে খাদ্য সংগ্রহ করে বেঁচে থাকে এই উদ্ভিদ। এ যেন কাকঁ কোকিলের গল্পের মত। কোকিল যেমন বংশবিস্তারের জন্য নিজের বাসা তৈরি করে না,কাকের বাসায় বংশবিস্তার করে, তেমনি আলোক লতা,মাটির অবলম্বন ছাড়াই পরের উপর নির্ভর করে বেঁচে থাকে। এজন্যই আলোক লতা কে বলা হয় পরজীবী উদ্ভিদ। বেশির ভাগ বড়ই, বাবলা ইত্যাদি কাটাবহুল গাছে জন্মাতে দেখা যায়।” এই উদ্ভিদটির পাতাবিহীন রসালো কান্ড, সোনার মত রঙ, আর্কষণীয় চেহারা। এই উদ্ভিদের কোন পাতা নেই, লতাই এর দেহ, লতাই এর কান্ড, শাখা-প্রশাখা। এই উদ্ভিদ প্রাকৃতিকভাবে বংশ বিস্তার করে থাকে। এই উদ্ভিদ সোনালি রঙ এর রঙ্গিন ছটা মিশিয়ে নিখুঁত কারিগর এর শৈল্পিক চিত্র আঁকা জালের মত বহুদুর থেকে মানুষের নজর কেড়ে নেয় খুব সহজেই। পৌষ ও চৈত্র মাসে এই লতার বেড়ে উঠা ও ফুল ফোটার সময়। বাংলাদেশের আবহাওয়া স্বর্ণলতার জন্য অত্যন্ত উপযোগি । ফলে গ্রাম এলাকায় উপযুক্ত নির্ভরশীল গাছে আপন মনে জন্ম নেয় আলোকলতা। এখন আলোক লতার ভরা মৌসুম। অনেক গ্রামে এই লতার পূর্ণ বিকাশ ঘটেছে, আবার কোন কোন গ্রামে কেবল জন্ম নিয়ে বেড়ে উঠার জন্য এর ডগা উকি ঝুকি দিচ্ছে।
আলোক লতার অনেক গুণ। এই উদ্ভিদের রস ক্ষত স্থান, ঘুম, বাতব্যথা উপশমে কার্যকরী। আমাদের দেশে একে ওষুধি লতা হিসেবেও গণ্য করা হয় ।
আলোক লতার বর্তমান অবস্থা খুব ভালো না । দুই তিন যুগ আগেও দেশের যে কোন স্থানে পথে প্রান্তরে ব্যাপকভাবে চোখে পড়তো আলোক লতা। বড়ই গাছই মুলত এর প্রধান আশ্রয় কেন্দ্র। কিন্তু বর্তমানে পাড়া গাঁয়ে, পথের ধারে বড়ই গাছ আর চোখে পড়েনা। ফলে আশ্রয় হারিয়ে ফেলে আলোক লতা। তাই প্রকৃতির সৌন্দর্য আর পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে আমাদের সবার উচিত বেশি বেশি বড়ই গাছ রোপন করে স্বর্ণালী আলোক লতা বংশ বিস্তারের আবাসস্থল হিসেবে গড়ে তোলা। এতে প্রকৃতি ফিরে পাবে তার আপন রুপ, অন্যদিকে বড়ই-গাছ মিটাবে অর্থ আর পুষ্টি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST