ঘোষনা:
শিরোনাম :
শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার পেয়েছেন নীলফামারীর মেয়ে দিয়া নীলফামারীতে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে লাঞ্চনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান। নীলফামারীতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে চড়ম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ নীলফামারীর আর্চার দিয়া পাচ্ছেন,শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার জিএম কাদেরের নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি বললেন,সংসদ সদস্য আদেল নীলফামারীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখলের অভিযোগ ডিমলায় শিশু নির্যাতন বিরোধী র‌্যালী ও আলোচনা সভা নীলফামারীতে চাঁদা না দেওয়ায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ, তিন গ্রামের মানুষের দুর্ভোগে ডিমলায় ব্যবসায়িকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা চট্টগ্রামে শশার বস্তাতেই চোলাই মদ ও আফিমসহ গ্রেপ্তার ১ 
নীলফামারীতে জৈনিক মহিলা দ্বারা হয়রানি: ইউএনও বরাবর অভিযোগ।

নীলফামারীতে জৈনিক মহিলা দ্বারা হয়রানি: ইউএনও বরাবর অভিযোগ।

স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারী ডোমার উপজেলার পাঙ্গা মুটুকপুর ইউনিয়নের তিন বট গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রিনুকা আক্তার রিয়া ও তার পরিবার মিলে সদর উপজেলার সবুজ পাড়ার এনামুল কবির চৌধুরীর ছেলে নাজমুল কবির চৌধুরী ও তার পরিবারকে হয়রানী করছে বলে দাবি করে সদর উপজেলা নিবার্হী অফিসার বরাবর অভিযোগ করেছে নাজমুল কবির চৌধুরী।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, তাই গত ৩ আগস্ট ২০১৯ ইং তারিখে নাজমুল কবীর চৌধুরীকে ঘটক মেয়ে দেখার কথা বলে ডোমারে বসুনিয়া হাটে মেয়ের ভাই রশিদের কাছে নিয়ে যায়। এরপর মেয়ের ভাই তার বোনকে দেখানোর কথা বলে তার বাড়ী ডামার উপজেলার পাঙ্গা মুটুকপুর ইউনিয়নের তিন বট গ্রামে নিয়ে যায় । এরপর বাড়ীতে গিয়ে তার বোনকে দেখার পর নাজমুল চৌধুরী তার বাড়ী ফিরতে চাইলে মেয়ের পরিবারের লোকজন তার মোটর সাইকেলের চাবি কেরে নিয়ে একটি ঘরে তালা বন্দি করে রাখে। এবং তার মেয়েকে ঐদিনই বিয়ে করার জন্য শারীরিকভাবে নির্যাতন করে। বিয়ে করতে রাজী না হলে এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্রের মুখে ভয়ভীতি দেখিয়ে কাবিন নামায় জোরপূর্বক স্বাক্ষর নেয় ও তাদের ইচ্ছেমতে মোহরানা বসায়। পরের দিন মায়ের অসুস্থতার কথা বলে বাড়ী ফিরে নাজমুল কবীর।

অভিযোগ সূত্রে আরো জানা যায়, এভাবে বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হওয়ার পর গত ০৯ই অক্টোবর ২০১৯ইং তারিখে নাজমুল কবীর ব্যবসার কাজে ডোমারে যায়। এরপর মেয়ের পরিবারের লোকজন নাজমুল কবীর চৌধুরীকে ফিলমি স্টাইলে রশিদ, তোফায়েল ও তাদের দলবল সহ তুলে নিয়ে যায় এবং তার কাছে ১০ লক্ষ টাকা দাবি করে। এরপর মোবাইলের মাধ্যমে তার মা-বাবা কে খবর দিলে ডোমার থানা পুলিশ ও স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে তাকে উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে নাজমুল কবীর চৌধুরী বলেন, আমার স্ত্রী গত বছর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যবরণ করে। তাই আমি আমার সন্তানদের দেখাশোনার জন্য বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেই। তাই মেয়ে দেখতে গিয়ে তারা আমাকে ফাসিয়ে দেয়। রিনুকা আক্তার রিয়া ও তার পরিবারের লোকজনেরা এভাবে ধনী পরিবারের ছেলেদের ফাসিয়ে টাকা আদায় করে। এর আগেও এই মেয়ের দুইজনের সাথে বিয়ে হয়েছে। এমনকি এখনো একাধিক ছেলের সাথে তার সম্পর্ক রয়েছে। আমাকে এই মেয়ে ও তার পরিবার ফাসিয়ে ১০ লক্ষ টাকা দাবি করছে এবং টাকা না দিলে আমার নামে মামলা করবে হুমকি দেয়।

এ বিষয়ে রিনুকা আক্তার রিয়ার সাথে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করলে তার পরিবার তার সাথে যোগাযোগ করতে দেয় নি।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এলিনা আকতার বলেন, এ ঘটনার সত্যতা যাচাই করে আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST