ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন। খুলনায় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড প্রদান । জলঢাকায় হরিজন পল্লীতে তুরিন আফরোজ কিশোরগঞ্জে ভাতাভোগীদের টাকা হাতিয়েছে প্রতারক চক্রটি জলঢাকায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর বৃক্ষ রোপন ও চারাগাছ বিতরণ নীলফামারীতে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বৃক্ষরোপন করেছে আনসার ওভিডিপি। সৈয়দপুরে রেলের তদন্ত প্রতিবেদন,নিজেকে বাঁচাতে উপজেলা চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন । পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে করোনা আক্রান্ত মাদ্রাসা শিক্ষিকার মৃত্যু। বাংলাদেশ স্কাউটস এর স্ট্রাটেজিক প্ল্যান ও গ্রোথ মূল্যায়ন ওয়ার্কশপ বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ১, আহত ২
জলঢাকায় মহিলা বিএম কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ।

জলঢাকায় মহিলা বিএম কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ।

জলঢাকা (নীলফমারী) প্রতিনিধি,
নীলফামারীর জলঢাকায় বালারপুকুর মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড বিজনেন্স ম্যানেজমেন্ট কলেজের (বিএমআই) অধ্যক্ষ আবুল কাসেমের বিরুদ্ধে জাল কাগজপত্রের মাধ্যমে কলেজ এমপিভুক্তিকরনের চেষ্টা, শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যসহ ব্যাপক অনিমের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই কলেজের ভুক্তভোগী শিক্ষক কর্মচারীসহ স্থানীয়রা।

জানা যায়, গত ৩০ এপ্রিল/২০১৯ ইং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এমপিও ভুক্তির তালিকায় নাম আসে ওই প্রতিষ্ঠানটির।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গেলে কলেজ সংলগ্ন স্থানীয়রা জানান, এমপিও তালিকায় নাম আসার পর থেকে তড়িঘরি করে কলেজের অবকাঠামো নির্মাণ,চেয়ার ব্রেঞ্চ তৈরী,যাতায়তের রাস্তা তৈরীসহ যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করেন অধ্যক্ষ।

তারা আরো জানান, এমপিও তালিকায় নাম আসার আগে একজন শিক্ষক কর্মচারীও ওই প্রতিষ্ঠানে দেখা যায়নি।

অভিযোগকারী ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী হাবিব মোস্তফা আনিছুজামান জানান, আমরা নিয়োগপ্রাপ্ত হলেও অধ্যক্ষ আমাদেরকে নিয়োগ সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র দেননি। এমনকি কলেজ এমপিওভুক্তির পর এক, দুইজন শিক্ষক কর্মচারী রেখে বাকী সকল শিক্ষক কর্মচারীদেরকে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে নতুন করে নিয়োগ দেন অধ্যক্ষ আবুল কাসেম।

তিনি আরো জানান, অধ্যক্ষ আবুল কাসেম সীমাহীন দূর্নীতি ও জালিয়াতির মাধ্যমে অন্য মাদ্রাসার এমপিওভূক্ত শিক্ষিকা নিজের স্ত্রীকে নিয়োগ দেখিয়ে জাল ও ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করে কলেজটি এমপিও ভুক্তির চেষ্টা করছেন।

অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে আমি অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করেছি। সেখানে বেশ কিছু সমস্যা আছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে লিখিত আকারে জানানো হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুব হাসান বলেন, তদন্ত প্রতিবেদনের আলোকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অভিযোগের বিষয় জানতে ওই কলেজের অধ্যক্ষ আবুল কাসেমের সাথে বিভিন্ন ভাবে যোগাযোগের চেষ্টা এমনকি তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন (০১৭৫৭৮৮৪৮৬৬) নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও তিনি ফোন রিসিফ করেনি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST