ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
কিশোরগঞ্জে ৩৮ পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পেল -যেন স্বপ্নের পাওয়া রঙ্গিন বাড়ি।

কিশোরগঞ্জে ৩৮ পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পেল -যেন স্বপ্নের পাওয়া রঙ্গিন বাড়ি।

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী)প্রতিনিধি, বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার থাকবে না কোনো গৃহহীন পরিবার। সেই অঙ্গীকার নিশ্চিতকরণে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায় ৩৮টি দুর্দশাগ্রস্ত, অসহায়, ভিক্ষুক পুনর্বাসন পরিবার পেয়েছে মাথাগোঁজার ঠাঁই। আর মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়ে আনন্দ আত্মহারায়, উচ্ছ্বসিত হয়ে দুঃস্থের মুখে ফুটে উঠেছে সুস্থের হাসি। প্রতন্ত অঞ্চলের ছিন্নমূল, অসহায়, সুফল ভোগী মানুষের কাছে মনে হয়েছে এ যেন আলাদিনের চেরাগ এর মত। মানবতার এমন অনন্য দৃষ্টান্ত স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে দুস্থ -অসহায় পরিবারগুলোর মাঝে। আর এটি বাস্তবায়ন করছে উপজেলা ত্রাণ ও দুর্যোগ অধিদপ্তর। ওই অধিদপ্তর সূত্র জানায়- ২০১৯-২০অর্থবছরের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) কর্মসূচির আওতায় কিশোরগঞ্জের ৯টি ইউনিয়নের ৩৮ টি দুর্দশাগ্রস্ত, অসহায়, গৃহহীন ভিক্ষুক পুনর্বাসন পরিবারের জন্য ১ কোটি ১৩ লক্ষ ৯৪ হাজার ৬৮০ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এ প্রকল্পে হতদরিদ্র,,অসহায় পরিবার, যাদের সামান্য জমি আছে, কিন্তু ঘর নেই, তাদের নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণে ২ লাখ ৯৯ হাজার ৮৬০ টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ টাকায় পরিবারগুলোকে নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে একটি দুর্যোগ সহনীয় পাকা ঘরের সঙ্গে দুইটি থাকার রুম সাথে বারান্দা একটি রান্না ঘর ও স্বাস্থ্য সম্মত শৌচাগার।
হাজারো স্বপ্নে আঁকা ধূসর রঙে রঙ্গিন পাকা নতুন ঘর। হাতে চাবি । দু-চোখের কোনায় অশ্রু চিকচিক করছে। সব কিছু সামলিয়ে, ফেলে আসা পুরনো দিনের স্মৃতিচারণ করে বাহাগিলী ইউনিয়নের জয়নোন কোট পাড়ার মৃত ছলি মামুদের স্ত্রী ওসনা বেগম বলেন, জেবনে প্রথোম পাকা ঘরত শুতি থাকিম। বহু বছর আগে স্বামী বাদ দেয়, তখন থেকে অন্যর বাড়িতে ঝির কাজ করে প্যাটের ভাত যোগাই লেও রাইত কাটছুন ছোয়াল পোয়ালক( সন্তান) নিয়া খোলা আকাশের নিচে তারা গনে(গুনে)। এতদিন খুব কষ্টে আচনু। বিনা পয়সায় শেখের বেটির( কন্যার) উপহার নয়া( রঙ্গিন) পাকা ঘর পেয়া শ্যাস (শেষ)বয়সে শান্তিত থাকিম। অনিয়ম ঠেকাতে প্রকল্পের সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবুল কালাম আজাদ এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ আবু হাসনাত সরকারের সার্বক্ষণিক তদারকি করে মেয়াদকালের মধ্যেই নির্মাণকাজ শেষ করেন। এরই মাঝে নির্মিত নতুন এসব বাসগৃহে বসবাস করতে শুরু করেছে পরিবারগুলো।

সরেজমিনে গাঁও গ্রামের মেঠো পথে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের দৃশ্য দেখতে গেলে উপজেলার বড় ভিটা ইউনিয়নের মেলাবর গ্রামের সুফলভোগী অনেকটাই বাক প্রতিবন্ধী আফলাল হোসেন বলেন, হামরা (আমরা) খুব গরীব মানষি (মানুষ), হামরা দিন মিলি দিন খাইছোনো। থাকিবার কোন ঘর ছিল না। ছোট একটা খ্যারের ঘরৎ খিবেই কষ্ট করি থাকছিনো। বৃষ্টির দিনোত ওই ঘরটাত থাকতে খিবে কষ্ট হইছিলো। এমন মানব দরদি সরকার যে আমাক এই রকম ঘর দিবে স্বপ্নেও বুঝিবার পাই নাই। আমরা এই ঘর সারা জীবনেও বানেবার পাইনো না হয়। কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পুষনা গ্রামের আনারুল ইসলাম, মাগুরা কাজীপাড়া গ্রামের আশেক আলী ও পেয়েছেন পাকা বাড়ি তারা একই কথা বলেন, বাইষা( বর্ষা) আসিলে ঘর দিয়া পানি পড়ত। রাইত(রাত্রি) কাটতো চোকির কোনায় বসিয়া। আর ঠান্ডা বেড়ার ফাঁক দিয়ে হু হু করে বাতাস ঢুকতো। এলা পাকা ঘরত ঘুমাও আর স্বপ্ন দেখো । এমন গরীব দরদি সরকার আগের জনমে দেখ নাই।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, তালিকা পাওয়ার পর প্রতিটি পরিবার গিয়ে যাচাই-বাছাই করে যাদের অবস্থা একেবারেই খারাপ তাদের বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।
দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্পের বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার (পিআইও) আবু হাসনাত সরকার বলেন, বাসগৃহগুলো নির্মাণের সময় উপকরণের গুণগত মান বজায় রেখে কাজ করা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST