ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুড়ে ছাই পাঁচটি দোকান তিস্তার চরে গম চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের নীলফামারীতে উগ্রবাদ, জঙ্গি বাদ দমনে পাঁচ দিন ব্যাপী সচেতনতামূলক সেমিনার শুরু সক্ষম সকলকে কর প্রদানের আহবান প্রধানমন্ত্রীর রংপুর বিভাগীয় গন সমাবেশে নীলফামারী উপজেলা বিএনপি স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ  নীলফামারীর জলঢাকায় স্কুল বন্ধে নিমিসেই নিয়োগ শেষ, সভাপতির বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ দেশ পাকিস্তান হবে নাকি মালয়েশিয়া- সিঙ্গাপুর, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
সৈয়দপুরে করোনা প্রতিরোধে সেনা নিয়ন্ত্রিত পরীক্ষামূলক কোরবানির পশুরহাট ঢেলাপীরে শুরু।

সৈয়দপুরে করোনা প্রতিরোধে সেনা নিয়ন্ত্রিত পরীক্ষামূলক কোরবানির পশুরহাট ঢেলাপীরে শুরু।

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
আসন্ন ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে সেনা নিয়ন্ত্রিত পরীক্ষামূলক কোরবানির পশুর হাট শুরু হয়েছে গতকাল মঙ্গলবার সৈয়দপুরের ঢেলাপীরে। এ হাটটি শহরের উপকন্ঠে সংগলশী ইউনিয়নে। পরীক্ষামূলক এ হাটের তত্বাবধানে আছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৬৬ পদাতিক ডিভিশন ও রংপুর অঞ্চল।
হাটের ইজারাদার মোতালেব হোসেন হক বলেন, কোনভাবেই করোনা রোগ যাতে ছড়াতে না পারে সেনাবাহিনীর সেই নির্দেশনা মেনেই কোরবানির পশুর হাটের সকল প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। আগামী ২১ জুলাই থেকে কোরবানির পূর্ণ পশুর হাট ঢেলাপীরে শুরু হবে। সেনা নিয়ন্ত্রিত ঢেলাপীর হাটের তত্বাবধানে আছেন লে. কর্নেল আরিফ, মেজর এরফান করিম ও লেফটেনেন্ট তানজিম আহমেদ শাকিল। গ্রাম পুলিশ ১০ জন ও ৪০ জন সেনা সদস্য হাটের পরিবেশ রক্ষায় পরীক্ষামূলকভাবে দায়িত্ব পালন করছেন।
লেফটেনেন্ট তানজিম আহমেদ শাকিল জানান, ঢেলাপীর পশুর হাটের চারদিকে স্বেচ্ছাসেবক, পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। পশু ক্রেতা ও বিক্রেতারা একপথ দিয়ে প্রবেশ আর অন্যপথ দিয়ে বের হবেন। প্রায় ১১ বিঘা জমির ওপর গড়ে তোলা হয়েছে এই পশুর হাটটি। গরু হাটের চারদিক ঘেরা দেয়া হয়েছে বাঁশ দিয়ে। প্রবেশপথের চেকপোস্টে সেনা সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। প্রবেশপথে জীবাণুনাশক দিয়ে হাটে আসা ক্রেতা বিক্রেতাকে স্প্রে করা হচ্ছে। যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদের মাস্ক সরবরাহ করা হচ্ছে। তাপমাপক যন্ত্র দিয়ে শরীরের তাপ পরীক্ষা করেই তবে হাটে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে। ক্রেতা ও বিক্রেতাকে অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব মেনে কেনাবেচা করতে হবে। কেনাবেচার সুবিধার্থে একেক ধরনের পশুর জন্য এক একটি ব্লক করে দেয়া হয়েছে। গরুর মালিকরা মাস্ক ও গ্লোভস পড়ে ক্রেতার নিকট পশু বিক্র করবেন।
তিনি আরো জানান, উত্তরাঞ্চলে যতগুলো বড় পশুরহাট আছে তার মধ্যে এই ঢেলাপীর পশুর হাটটি অন্যতম বড় হাট। জেলা প্রশাসনের সহায়তায় হাটটিকে দুই ভাগে ভাগ করে দেয়া হয়েছে। বৃদ্ধি করা হয়েছে হাটের আয়তন। মঙ্গলবার এটি পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করা হয়েছে। আগামী দিনে পুরো হাটটি সিসি ক্যামেরার নিয়ন্ত্রণে আনা হবে। এসব কাজ করতে আমরা সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে গত দুই সপ্তাহ ধরে কাজ করছি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST