ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
নীলফামারীতে সুমন হত্যা মামলার প্রধান আসামীসহ গ্রেফতার -৪ ।

নীলফামারীতে সুমন হত্যা মামলার প্রধান আসামীসহ গ্রেফতার -৪ ।

রতন কুমার রায়, স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় সুমন হত্যা মামলার প্রধান আসামীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সকালে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলেন, সুলতান উদ্দিনের ছেলে রাকিব হোসেন (২২) ও খায়রুল ইসলাম (১৬), মৃত ফইমুদ্দিনের ছেলে সুলতান উদ্দিন (৫০) সুলতান উদ্দিনের স্ত্রী রুপিয়া বেগম (৪২)। তারা সম্পর্কে বাবা-মা ও দুই ছেলে। তাদের বাড়ী উপজেলা গোমনাতী ইউনিয়নের উত্তর গোমনাতী মিয়ার উদ্দিন মাস্টার পাড়া এলাকায়।
ডোমার থানা সুত্রে জানা গেছে, সুমন হত্যা মামলার ১৪ জন আসামীর মধ্যে ইতোপূর্বে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। বাকি আসামীরা পলাতক ছিল। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তার জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর থানার তিলকপুর ইউনিয়নে তাদের অবস্থান সনাক্ত করা যায়। গত ২২ জুলাই রাতে আক্কেলপুর থানা পুলিশের সহযোগীতায় মামলারতদন্তকারী কর্মকর্তা ও ডোমার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বিশ্বদেব রায় সঙ্গীয় এসআই রেজাউল ইসলাম,এএসআই মিজান, মহাদেব রায় ফোর্স নিয়ে সেখান হতে তাদের গ্রেফতার করে। ২৩ জুলাই বিকালে তাদের ডোমার থানায় নিয়ে আসে। ২৪ জুলাই সকালে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান জানান, সুমন হত্যার পর হতে গ্রেফতাকৃতরা পলাতক ছিল। তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করে। তারা বেশ কিছুদিন হতে তিলকপুর গ্রামে একটি ভাড়া বাড়ীতে অবস্থান করছিল। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তার তাদের অবস্থান সনাক্ত হলে দ্রæত তাদের গ্রেফতার করা হয়।
প্রসঙ্গত, চলতি বছরের গত ২৮ এপ্রিল উপজেলার গোমানাতী ইউনিয়নের ১ নং গোমনাতী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা নিয়ে দুই পক্ষের মারামারিতে সুমন নামের এক যুবক মারা যায়। এতে ১৪ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে সুমনের বাবা হারুন-অর রশীদ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST