ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
কিশোরগঞ্জে কৃষকের মাঝে সোনালী স্বপ্নের হাতছানি নিয়ে আঁশের সুদিন ফিরছে।

কিশোরগঞ্জে কৃষকের মাঝে সোনালী স্বপ্নের হাতছানি নিয়ে আঁশের সুদিন ফিরছে।

 

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী)প্রতিনিধি,নীলফামা কিশোরগঞ্জ উপজেলায় পাট চাষীদের কপালের ভাজ কাটিয়ে সোনালী আঁশ পাটের অতীত ঐতিহ্য পূর্ণ জাগরণে আবারও ফিরে এসেছে কৃষকের মাঠে। এবারে অনুকুল আবহাওয়া, বাজারে পাটের দাম ভাল। ফলনও বেশি। তাই কৃষকরাও খুশি। ফলনও বাজার মূল্য ভালো হওয়ায় পাট চাষে ফিরতে শুরু করছে উপজেলার পুরনো চাষীরাও। সোনার বাংলায় একসময়ে পাটও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করত, আর প্রধান অর্থকরী ফসল হিসেবে সোনালী আঁশ পাটের খ্যাতি আর সমৃদ্ধি এনেছিল গ্রামীণ অর্থনীতিতে। বিগত কয়েক বছর নানা প্রতিবন্ধকতার বেড়াজালে পাট শিল্প নাজুক হওয়ার পাশাপাশি পাটের তেমন কোন কদর না থাকলেও পাট আবারও অর্থকরী পণ্য হয়ে উঠছে। কৃষক পাট চাষে লোকসান গুনতে গুনতে পাট চাষ যেন কৃষকের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। বর্তমান সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহন করায় পাট চাষিরা আবারও ফিরে এসেছে সোনালী আঁশ পাট চাষে। পাটের ন্যায্য দাম পাওয়ায় এ উপজেলায় চাষীদের পাট চাষে আগ্রহ বেড়ে গেছে। এ বছর অনেক চাষী পাট চাষ করে আগামীর স্বপ্ন বুনছেন । চলতি মৌসুমে পাটের ভালো দাম পাওয়ায় আগামী বছর পাট চাষ বাড়বে বলে কৃষকরা জানান। কৃষকদের দাবি পলিথিনের পরিবর্তে পাটজাত জাতীয় পণ্য নিত্যদিনের কাজকর্মে ব্যবহার সহ সব পাটকলগুলো চালু করতে সরকারকে আরো উদ্যোগী হতে হবে। সরেজমিনে দেখা যায়, গ্রামে-গঞ্জের মাঠে -ঘাটে, পাট কর্তন, ডোবায় কিংবা পুকুরের পাশে জাক দেওয়া, পঁচানো পাটের আঁশ ছাড়ানো, শুকানো, উভানোর কাজ চলছে সমান তালে। এ দৃশ্য দেখে বুঝা যায় সোনালী আঁশের সুদিন আর ঐতিহ্য আবার ফিরে এসেছে এ উপজেলায়। নদী-নালা, খাল-বিল ও ডোবায় পানি থাকায় পাট জাক দিতে কৃষকদের কোন সমসায় পড়তে হয়নি। পাট চাষ কৃষকের একের অধিক লাভ, পাটের আঁশ, পাট খড়ি আর পাট শাক। জ্বালানি হিসেবে বাজারে পাটখড়ির রয়েছে ব্যাপক কদর। পাট খড়ি বিক্রি করে বাড়তি আয়ও করছেন চাষীরা। কিশোরগঞ্জ উপজেলার পাট ব্যবসায়ী মোকছেদার,তফদ্দি তারা জানান, এ বছর পাটের ফলন ভাল হওয়ায় বাজারে দামও বেশি। পাট চাষীদের আবারও সু দিন ফিরতে শুরু করেছে। বর্তমান বাজারে প্রতিমণ শুকনা পাট ক্রয় করা হচ্ছে ১৪-১৫ শত টাকা দরে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে পাট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩ শত ৫হেক্টর জমিতে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ হাবিবুর রহমান জানান,আধুনিক পদ্ধতিতে পাট চাষ, উন্নত পাটবীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণের কলাকৌশল, পাট পচন,এবং পাট নিয়ে পাট চাষীদের প্রশিক্ষণ, পাট চাষে কৃষকগণকে উদ্বুদ্ধকরণ এবং কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছিল। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। চাষিরা বাজারে ভাল দাম পাওয়ায় আগামী দিনে পাট চাষির সংখ্যা আরো বাড়বে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST