ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
নগরকান্দায় ভিজিএফর চাল বিতরণে অনিয়ম, অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

নগরকান্দায় ভিজিএফর চাল বিতরণে অনিয়ম, অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধি, ফরিদপুরের নগরকান্দায় পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে হত-দরিদ্রদের মধ্যে বিতরণের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি চাল ওজনে কম দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার (২৫ জুলাই) উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সোবহানের উপস্থিতিতে চাল বিতরণ করা হয়।
এ সময় ওজনে কম দেওয়া ও পছন্দের লোকের মধ্যে চাল বিতরণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করে ভুক্তভোগীরা।

অভিযোগকারীরা জানান, প্রতি পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল দেওয়ার সরকারি ঘোষণা রয়েছে। পুরাপাড়া ইউনিয়নে ৯৪৮টি পরিবারের মধ্যে ১০ কেজি করে মোট ৯ হাজার ৪৮০ কেজি চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ১০ কেজি চালের স্থলে সাড়ে আট থেকে নয় কেজি করে চাল দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও চেয়ারম্যানের পছন্দের লোকজনকে বাছাই করে জনপ্রতি তিন/চারটি স্লিপের মাধ্যমে এসব চাল বিতরণ করা হচ্ছে।

‘চারটি স্লিপের চাল একা কেন নিচ্ছেন’ চাল নিতে আসা জনৈক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি অকপটে জানান আমি চেয়ারম্যানের লোক। তাই একাই চারটি স্লিপ পেয়েছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিযোগ করেন, চেয়ারম্যান আব্দুস সোবহান মিয়া তার পক্ষের ও পছন্দের লোকদের চার/পাঁচটি করে স্লিপ দিয়েছেন। অথচ পাওয়ার উপযুক্ত অনেক হত-দরিদ্র মানুষ এ তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন।

এছাড়াও করোনা উপলক্ষে ওই ইউনিয়নে শিশু খাদ্য সরবরাহ করতে ৭ হাজার ৬৫০ টাকা সরকারি বরাদ্দ দেওয়া হলেও শিশু খাদ্য সরবরাহ করা হয়নি বলেও স্থানীয়দের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে পুরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান মিয়ার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, আমার অনুপস্থিতিতে ও অজান্তে কোনো অনিয়ম হয়ে থাকতে পারে, তবে অভিযোগ পাওয়ার সব কিছু ঠিকঠাক মতই হয়েছে।

চাল বিতরণে উপস্থিত ইউনিয়ন তদারকি কর্মকর্তা ও উপজেলা পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা আসদুস সালাম মিয়া জানান, নির্ধারিত একটি বালতি দিয়ে চাল মাপার কারণে কম বেশি হয়ে থাকতে পারে। তবে সামনে বিষয়টিতে আরো বেশি সতর্ক থাকার আশ্বাস দেন তিনি।

নগরকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেতী প্রু জানান, অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অনিয়মের অভিযোগের সত্যতা পেলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST