ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন। খুলনায় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড প্রদান । জলঢাকায় হরিজন পল্লীতে তুরিন আফরোজ কিশোরগঞ্জে ভাতাভোগীদের টাকা হাতিয়েছে প্রতারক চক্রটি জলঢাকায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর বৃক্ষ রোপন ও চারাগাছ বিতরণ নীলফামারীতে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বৃক্ষরোপন করেছে আনসার ওভিডিপি। সৈয়দপুরে রেলের তদন্ত প্রতিবেদন,নিজেকে বাঁচাতে উপজেলা চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন । পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে করোনা আক্রান্ত মাদ্রাসা শিক্ষিকার মৃত্যু। বাংলাদেশ স্কাউটস এর স্ট্রাটেজিক প্ল্যান ও গ্রোথ মূল্যায়ন ওয়ার্কশপ বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ১, আহত ২
নীলফামারীতে গর্ভধারিনী মায়ের হাতে শিশু ছেলের পা কেটে লবন মরিচ দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

নীলফামারীতে গর্ভধারিনী মায়ের হাতে শিশু ছেলের পা কেটে লবন মরিচ দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

নীলফামারী প্রতিনিধি,
গর্ভধারিনী মা রানু বেগম। ২ সন্তানের মা তিনি। নিজের ১০ বছরের শিশু ছেলে রাজু (১০) কে হাত পা খাটের সাথে বেঁধে রেখে বেøড দিয়ে পায়ের হাটুর নিচে প্রায় ১০ ইঞ্চি গোস্ত গভীর করে কেটে দেন। কাটার পরও খান্ত হননী মা,সেই কাটা স্থানে লবন ও শুকনা মরিচের গুড়া দেন। শিশু ছেলে রাজু চিৎকার করে বলছেন মা তুমি আর লবন মরিচ দিওনা কাটা স্থানে রক্ত ঝড়ছে। তার ছটফট ও চিৎকারে পাশের ঘড়ে থাকা রাজুর চাচী মফেজা বেগম দৌড়ে এসে দেখেন ছেলেটির হাত পা বাঁধা চিৎকার করছে,আর পাষন্ড মা রানু বেগমের হাতে লবন ও মরিচের গুড়া। ঘটনাটি ঘটে ২৪শে জুলাই রাত ১০টা নীলফামারী সদরের লক্ষীচাপ ইউনিয়নের দুবাছুরী সরকার পাড়া গ্রামে। ওই গ্রামের কাঠমিস্ত্রি খলিলুর রহমানের শিশু ছেলে রাজু (১০)। সে ৫ম শ্রেণীর মেধাবী ছাএ।
সরেজমিনে গিয়ে মা রানু বেগমের সাথে কথা বলে জানা যায়,তিনি বলেন সন্ধ্যা হয়ে গেলেও ছেলে বাড়ীতে না আসায় দেরী হওয়ায় আমি মনের রাগে ছেলেকে ভয় দেখানোর জন্য হাত পা খাটের সাথে বাঁধি ও কাটা স্থানে লবন মরিচ দেই। আমার এটি ভুল হয়েছে আমি আর কোনদিন এমন করবনা।
শিশু ছেলের বাবা খলিলুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমি বাজারে ছিলাম খবর পেয়ে বাড়ীতে এসে দেখি আমার স্ত্রী রানু বেগম আমার ছেলের হাত পা বেঁধে নির্মম ভাবে পায়ের গোস্ত কেটে লবন মরিচ দেন। আমার শিশু ছেলের ছটফট আর চিৎকারে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাতে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। কাটা স্থানে ৭টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। আমার স্ত্রীর অমানবিক কান্ড আমি সয্য করতে না পেরে আমি রাতেই তাকে তালাক দেই।
এ বিষয়ে সদর থানার ওসি মোমিনুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত আমি অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিব।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST