ঘোষনা:
শিরোনাম :
অনিরাপদ আশ্রয় শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার পেয়েছেন নীলফামারীর মেয়ে দিয়া নীলফামারীতে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে লাঞ্চনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান। নীলফামারীতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে চড়ম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ নীলফামারীর আর্চার দিয়া পাচ্ছেন,শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার জিএম কাদেরের নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি বললেন,সংসদ সদস্য আদেল নীলফামারীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখলের অভিযোগ ডিমলায় শিশু নির্যাতন বিরোধী র‌্যালী ও আলোচনা সভা নীলফামারীতে চাঁদা না দেওয়ায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ, তিন গ্রামের মানুষের দুর্ভোগে ডিমলায় ব্যবসায়িকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা
নীলফামারীতে গর্ভধারিনী মায়ের হাতে শিশু ছেলের পা কেটে লবন মরিচ দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

নীলফামারীতে গর্ভধারিনী মায়ের হাতে শিশু ছেলের পা কেটে লবন মরিচ দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

নীলফামারী প্রতিনিধি,
গর্ভধারিনী মা রানু বেগম। ২ সন্তানের মা তিনি। নিজের ১০ বছরের শিশু ছেলে রাজু (১০) কে হাত পা খাটের সাথে বেঁধে রেখে বেøড দিয়ে পায়ের হাটুর নিচে প্রায় ১০ ইঞ্চি গোস্ত গভীর করে কেটে দেন। কাটার পরও খান্ত হননী মা,সেই কাটা স্থানে লবন ও শুকনা মরিচের গুড়া দেন। শিশু ছেলে রাজু চিৎকার করে বলছেন মা তুমি আর লবন মরিচ দিওনা কাটা স্থানে রক্ত ঝড়ছে। তার ছটফট ও চিৎকারে পাশের ঘড়ে থাকা রাজুর চাচী মফেজা বেগম দৌড়ে এসে দেখেন ছেলেটির হাত পা বাঁধা চিৎকার করছে,আর পাষন্ড মা রানু বেগমের হাতে লবন ও মরিচের গুড়া। ঘটনাটি ঘটে ২৪শে জুলাই রাত ১০টা নীলফামারী সদরের লক্ষীচাপ ইউনিয়নের দুবাছুরী সরকার পাড়া গ্রামে। ওই গ্রামের কাঠমিস্ত্রি খলিলুর রহমানের শিশু ছেলে রাজু (১০)। সে ৫ম শ্রেণীর মেধাবী ছাএ।
সরেজমিনে গিয়ে মা রানু বেগমের সাথে কথা বলে জানা যায়,তিনি বলেন সন্ধ্যা হয়ে গেলেও ছেলে বাড়ীতে না আসায় দেরী হওয়ায় আমি মনের রাগে ছেলেকে ভয় দেখানোর জন্য হাত পা খাটের সাথে বাঁধি ও কাটা স্থানে লবন মরিচ দেই। আমার এটি ভুল হয়েছে আমি আর কোনদিন এমন করবনা।
শিশু ছেলের বাবা খলিলুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমি বাজারে ছিলাম খবর পেয়ে বাড়ীতে এসে দেখি আমার স্ত্রী রানু বেগম আমার ছেলের হাত পা বেঁধে নির্মম ভাবে পায়ের গোস্ত কেটে লবন মরিচ দেন। আমার শিশু ছেলের ছটফট আর চিৎকারে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাতে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। কাটা স্থানে ৭টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। আমার স্ত্রীর অমানবিক কান্ড আমি সয্য করতে না পেরে আমি রাতেই তাকে তালাক দেই।
এ বিষয়ে সদর থানার ওসি মোমিনুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত আমি অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিব।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST