ঘোষনা:
শিরোনাম :
অনিরাপদ আশ্রয় শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার পেয়েছেন নীলফামারীর মেয়ে দিয়া নীলফামারীতে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে লাঞ্চনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান। নীলফামারীতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে চড়ম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ নীলফামারীর আর্চার দিয়া পাচ্ছেন,শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার জিএম কাদেরের নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি বললেন,সংসদ সদস্য আদেল নীলফামারীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জমি দখলের অভিযোগ ডিমলায় শিশু নির্যাতন বিরোধী র‌্যালী ও আলোচনা সভা নীলফামারীতে চাঁদা না দেওয়ায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ, তিন গ্রামের মানুষের দুর্ভোগে ডিমলায় ব্যবসায়িকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা
কিশোরগঞ্জে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়াকে কেন্দ্র করে আহত-২,আটক-২।

কিশোরগঞ্জে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়াকে কেন্দ্র করে আহত-২,আটক-২।

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী) প্রতিনিধি,
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়াকে কেন্দ্র করে দু,পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে গুরুতর আহত হয়-২ জন। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের বালাপাড়া গ্রামে কয়েক শ’ লোকের যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দেয় ওই এলাকার হাফিজুল ইসলাম (৫৫)। এতে তার চাচাতো ভাই মৃত বহির উদ্দিনের ছেলে সাবুল হোসেন (৫০) চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে বিষয় জানতে চাইলে তার সাথে হাফিজুল ইসলামের কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এক পর্যায়ে হাফিজুল ইসলামের বড় ছেলে সুজন হোসেন (২৫),স্ত্রী হেলালী বেগম (৪০) ছোট ছেলে বাঁধন কোন কিছু বুঝার আগে সাবুল হোসেনকে পিছন দিক থেকে লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে মাটিতে ফেলে দেয়। সাবুল হোসেনের স্ত্রী বিউটি বেগম (৩৭) তার স্বামীকে উদ্ধার করতে আসলে হাফিজুল ইসলামের বড় ছেলে তাকে ঘুষি মেরে মাটিতে ফেলে দিয়ে তাকে পা দিয়ে উপুর্যপরি ভাবে লাঠতি মারতে থাকে। এতে বিউটি বেগম জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে হাফিজুল ইসলামের স্ত্রী হেলালী বেগম ও তার ছেলে বাঁধন (১৮) বাড়ী থেকে দা নিয়ে এসে সুজনের হাতে তুলে দেয়। হাফিজুল ইসলাম ও তার ছেলে সুজন মিলে সাবুল হোসেনের মাথায় ও পেটে চোঁট দিলে ঘটনাস্থলে মাটিতে পরে যান সাবুল হোসেন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাধারণ মানুষ সাবুল হোসেনকে উদ্ধার করতে গেলেও এলাকাবাসীকে লাঠি ও দা দিয়ে মারতে উদ্যত হয় হাফিজুল ইসলামসহ তার ছেলেরা। এলাকাবাসী বিষয়টি সামাল দিতে না পারায় কিশোরগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সাবুল হোসেনকে উদ্ধার করে এবং হাফিজুল ইসলাম ও তার বড় ছেলেকে আটক করে থানায় নিয়ে। বর্তমানে সাবুল হোসেন (৫০) গুরুতর আহত অবস্থায় ও তার স্ত্রী বিউটি বেগম (৩৭) রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।এ মাগুড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাহমুদুল হোসেন শিহাব বলেন, হাফিজুল ইসলামের বড় ছেলে সুজন মাগুড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্রয়াত চেয়ারম্যান মোজাহার হোসেন দুলাল মিয়ার গায়েও হাত তুলেছিলেন। সে কারো সাথে ঝগড়া লাগলেই ছোড়া,দা কুড়াল নিয়ে মারার জন্য বের হয়। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান তিনি।
কিশোরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এম হারুন অর রশীদ বলেন,ঘটনাস্থল থেকে দু’জনকে আটক করা হয়েছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST