ঘোষনা:
শিরোনাম :
জলঢাকায় অসুস্থ ব্যক্তিদের হাতে চিকিৎসা সহায়তা চেক চট্টগ্রামে সড়কের দু’পাশে ঝুঁকিপূর্ণ ৩ শতাধিক ঘর উচ্ছেদ করেছে প্রশাসন । ডোমারে ট্রাক্টরের চাপায় বৃদ্ধার মৃত্যু ভোলায় ৩ সন্তানের জননীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ ঢালিউডের জনপ্রিয় নায়িকাকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার প্রধান আসামিসহ ৫ জন গ্রেফতার মানিকগঞ্জে বিদেশগামী প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরন। টেকনাফের নাফ নদীর তীর থেকে আরো দুই রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ডোমার গোমনাতী সঃ প্রাঃ বিদ্যাঃ প্রধান শিক্ষক দুলু আর নেই নীলফামারীর ডোমারে পুকুর খননকালে পাওয়া গেল কৃষ্ণ মূর্তি। পঞ্চগড় পৌর মার্কেট নির্মাণ কাজের উদ্বোধন
নীলফামারীতে শোক দিবস উপলক্ষে দ্বীপ্তমান যুব উন্নয়ন সংস্থা এবং রংপুর বিভাগ কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের যৌথ উদ্যোগে চারা বিতরন।

নীলফামারীতে শোক দিবস উপলক্ষে দ্বীপ্তমান যুব উন্নয়ন সংস্থা এবং রংপুর বিভাগ কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের যৌথ উদ্যোগে চারা বিতরন।

মোঃ হারুন উর রশিদ, স্টাফ রিপোর্টার,
১৫ই আগষ্ট ইতিহাসের বেদনাবিধুর ও বিভীষিকাময় একটি দিন। ১৯৭৫ সালের এ দিনে সংঘটিত হয়েছিল ইতিহাসের এক কলঙ্কিত অধ্যায়। স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল সেনাবাহিনীর কিছু উচ্ছৃঙ্খল ও বিপথগামী সদস্য।
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দ্বীপ্তমান মানবউন্নয়ন ও সমাজকল্যাণ সংস্থা এবং দ্বীপ্তমান যুব উন্নয়ন সংস্থা ও রংপুর বিভাগ কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পের যৌথ উদ্যোগে নীলফামারী সদর উপজেলার চওড়া বড়গাছা ইউনিয়নের কাঞ্চনপাড়া ফল-ফসল কৃষক গ্রুপের ৩০ জন কৃষকদের মাঝে চারা বিতরন করা হয়। প্রত্যেককে ১টি করে ফলজ, ভেষজ, ঔষধি চারা বিতরণ করা হয়।
গতকাল সোমবার (৩১শে আগস্ট) দুপুরে দ্বীপ্তমান মানবউন্নয়ন ও সমাজকল্যাণ সংস্থা এবং দ্বীপ্তমান যুব উন্নয়ন সংস্থা’র সভাপতি আব্দুল মোমিনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নীলফামারী সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা, মোঃ মিজানুর রহমান।
এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নীলফামারী সদর উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আবুল কালাম আজাদ, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল হাকাম, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কৃষ্ণ রায় প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, ১৫ই আগষ্ট নৃশংস হামলায় প্রাণ হারিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেল, পুত্রবধূ সুলতানা কামাল, রোজী জামাল, ভাই শেখ নাসের, কর্নেল জামিল, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে মুক্তিযোদ্ধা শেখ ফজলুল হক মনি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনি, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, শহীদ সেরনিয়াবাত, শিশু বাবু, আরিফ রিন্টু খানসহ আরো অনেকে। আমাদের এই শোককে শক্তিতে পরিনত করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর অাদর্শের সোনার বাংলাদেশ গড়তে হবে। এছাড়াও তিনি বৃক্ষরোপণের জন্য প্রত্যেককে উৎসাহিত করেন।
বক্তব্যে দ্বীপ্তমান যুব উন্নয়ন সংস্থা’ র সভাপতি আব্দুল মোমিন বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়, একটি ইতিহাস। কখনো ব্যক্ত করে শেষ করা যাবে না বঙ্গবন্ধুর অবদান। ’৫২-এর ভাষা আন্দোলনে তিনি ছিলেন সংগ্রামী নেতা। বাঙালি জাতির মুক্তি সনদ ছয় দফার প্রণেতাও ছিলেন তিনি। ’৭০-এর নির্বাচনে অংশ নিয়ে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগকে এ দেশের গণমানুষের আশা-আকাক্সক্ষার প্রতীকে পরিণত করেন। ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে লাখো জনতার উত্তাল সমুদ্রে বজ্র দৃপ্ত কণ্ঠে বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ এ ঘোষণায় উদ্দীপ্ত উজ্জীবিত বাঙালি জাতি পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। ছিনিয়ে আনেন দেশের স্বাধীনতা। জাতির ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ পুরুষ বঙ্গবন্ধুর অমর কীর্তি এ স্বাধীন বাংলাদেশ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST