ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
নীলফামারীতে ১৭ বছর শিক্ষকতা করেও এম,পি,ও তালিকায় নাম নেই শিক্ষক নুর আলমের।

নীলফামারীতে ১৭ বছর শিক্ষকতা করেও এম,পি,ও তালিকায় নাম নেই শিক্ষক নুর আলমের।

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার উত্তর দেশীবাই নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগপত্র পেয়েও ১৭ বছর ধরে সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা করে আসছিলেন নুর আলম। কিন্তু বিদ্যালয়ের এম,পি,ও ভুক্ত করণ তালিকায় নাম নেই এই সহকারী শিক্ষকের। মানবেতর জীবন যাপন করছে শিক্ষক নুর আলম ও তার পরিবার। তাই শিক্ষা নীতির আলোকে সকল কাগজপত্র যাচাই বাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে নীলফামারী জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করেন শিক্ষক নুর আলম।

লিখিত অভিযোগে বলেন, গত ৫ অক্টোবর ২০০৩ সালে নির্বাচনী বোর্ড এর সুপারিশ ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অনুমোদনক্রমে আমাকে সমাজ-বিজ্ঞান বিষয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগপত্র দেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে আসছি। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুচতুর ব্যক্তি হওয়ায় স্কুলের উন্নয়নের কথা বলে আমার কাছ থেকে ৩ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। কিন্তু চলতি অর্থ বছরে বিদ্যালয়টি এম.পি.ও ভুক্ত হইলেও বর্তমান প্রধান শিক্ষক শিক্ষানীতির তোয়াক্কা না করে একাধিক তৃতীয় বিভাগ প্রাপ্ত শিক্ষক/কর্মচারীর নামে এম,পি,ও ভুক্ত করার জন্য কাগজ পত্র দাখিল করেন। বিদ্যালয়ের সকল সর্ত পূরণ থাকা সত্তে¡ও আমার নাম প্রস্তাবিত কাগজ পত্র উপস্থাপন না করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তৃতীয় বিভাগ প্রাপ্ত নাজমুল হকের কাগজ যুক্ত করে এম,পি,ও ভুক্ত করে প্রধান শিক্ষক।

দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে বিনা বেতনে শিক্ষকতা করার পর এম,পি,ও তালিকায় নাম না থাকায় প্রতিষ্ঠান থেকে কোন বেতন পাচ্ছে না শিক্ষক নুর আলম। পরিবার পরিজন নিয়ে অভাবে দিন পাড় করছেন তিনি।তাই শিক্ষা নীতির আলোকে সকল কাগজপত্র যাচাই বাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে নীলফামারী জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করেন শিক্ষক নুর আলম।

এম,পি,ও ও টাকা নেওয়ার বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি কমিটির । ম্যানিজিং কমিটির সাথে পরামর্শ করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

অভিযোগের বিষয়ে জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST