ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
সিলেটের ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যার  সাময়িক বরখাস্ত কনস্টেবল ৫ দিনের রিমান্ডে

সিলেটের ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যার  সাময়িক বরখাস্ত কনস্টেবল ৫ দিনের রিমান্ডে

সিলেট প্রতিবেদক,

সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যার  সাময়িক বরখাস্ত কনস্টেবল ৫ দিনের রিমান্ডে।আজ সকালে সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত সাময়িক বরখাস্ত কনস্টেবল হারুনুর রশিদের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তৃতীয় আদালতের বিচারক শারমিন খানম নীলা। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মহিদুল ইসলাম আদালতে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানালে  ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

বেলা সাড়ে ৪টায় শুনানি শেষে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে বেলা ৩টার দিকে আদালতে নেওয়া হয় সাময়িক বরখাস্ত কনস্টেবল হারুনুর রশীদকে। সাময়িক বরখাস্ত পুলিশ কনস্টেবল হারুনুর রশীদকে গতকাল শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করে জানিয়েছে সিলেট পিবিআই ইন্সপেক্টর সহিদুল ইসলাম।

হারুনসহ এ মামলায় এ পর্যন্ত দুজনকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পিবিআই। এ ঘটনায় এর আগে সাময়িক বরখাস্ত কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাসকে গ্রেফতার দেখিয়ে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয় পিবিআই।

প্রসঙ্গত, গত ১১ অক্টোবর ভোর রাতে নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার যুবক রায়হানকে পুলিশ ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। এরপর ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদি হয়ে ১২ অক্টোবর রাতে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এরপর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূইয়া, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, তৌহিদ মিয়া ও টিটুচন্দ্র দাসকে সাময়িক বরখাস্ত এবং এএসআই আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেনকে প্রত্যাহার করা হয়।

১৩ অক্টোবর বিকেল থেকে আকবর পলাতক রয়েছেন। ওই মামলার তদন্ত পিবিআইয়ে হস্তান্তর করা হয়। পরদিন থেকে তদন্ত কাজ শুরু করে পিবিআই। ১৫ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রায়হানের মরদেহ কবর থেকে তুলে দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত করে পিবিআই। ওইদিনই শেষে বিকেলে আবার আখালিয়া নবাবী মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে রায়হানের মরদেহ ফের দাফন করা হয়। দুদফা ময়নাতদন্তের রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১১টি আঘাতের চিহ্ন ও হাতের দু আঙুলের নখ উপড়ানোসহ নির্যাতনে মৃত্যু ঘটেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST