ঘোষনা:
শিরোনাম :
আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী খাগড়াছড়িতে ৭ম টিআরসি ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী নীলফামারীর ডিমলায় মাদকদ্রব্যের রোধকল্পে কর্মশালা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে রায়পুরায় কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত,৩ আহত ৫ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৭০ জন  জলঢাকা পৌরসভার ৭৯ কোটি ৭৯ লক্ষ ১ হাজার ৭ শত ৩০টাকার বাজেট ঘোষনা কিশোরগঞ্জে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণে কর্মশালা
রায়হান হত্যায় পুলিশ জরিত, আমি লজ্জিত,কমিশনার. নিশারুল আরিফ

রায়হান হত্যায় পুলিশ জরিত, আমি লজ্জিত,কমিশনার. নিশারুল আরিফ

সিলেট প্রতিবেদক,
সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান আহমদ হত্যার ঘটনায় পুলিশের কর্মকর্তা জড়িত, এ ঘটনায় আমি লজ্জিত উল্লেখ করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের নবাগত কমিশনার মো. নিশারুল আরিফ বলেছেন, এ ঘটনায় পুলিশসহ যারাই জড়িত তাদের বিচার হবে। পলাতক আসামীদের আমরা যেভাবেই হোক গ্রেফতার করবো।

মঙ্গলবার রাত পৌনে ৯টায় সিলেটের আখালিয়া নেহারিপাড়ায় রায়হানের বাড়িতে তার মাসহ স্বজনদের সাথে কথা বলে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এসএমপি বারবার বিতর্কে জড়াচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি নিজস্ব একটি পরিকল্পনা নিয়ে এসেছি। এছাড়াও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কিছু নির্দেশনা রয়েছে। আমি বিশ্বাস করি সকল কিছু গুছানো সম্ভব।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এসআই আকবরকে কেউ যদি মদদ দিয়ে থাকে সবাইকে শনাক্ত করা হবে। সম্পৃক্ততা পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। তারাও মামলার আসামি হবেন।.

আকবরকে গ্রেপ্তারের কমিশনার, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ নিশারুল আরিফ  বলেন, পলাতক এসআই আকবরকে গ্রেপ্তার করতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সকল ইউনিট কাজ করছে।

এরআগে রায়হানের মা সালমা বেগম, স্ত্রী তানিয়া আক্তার তান্নিসহ স্বজনদের সাথে কথা বলেন। তিনি অপরাধীদের দ্রুত গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনা হবে বলে আশ্বস্ত করেন।

প্রসঙ্গত, গত ১১ অক্টোবর ভোর রাতে নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার যুবক রায়হানকে পুলিশ ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। এরপর ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদি হয়ে ১২ অক্টোবর রাতে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এরপর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূইয়া, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, তৌহিদ মিয়া ও টিটুচন্দ্র দাসকে সাময়িক বরখাস্ত এবং এএসআই আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেনকে প্রত্যাহার করা হয়। এ ঘটনায় কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস ৩ দিনের ও কনস্টেবল হারুনুর রশীদ ৫ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন।

১৩ অক্টোবর বিকেল থেকে আকবর পলাতক রয়েছেন। ওই মামলার তদন্ত পিবিআইয়ে হস্তান্তর করা হয়। পরদিন থেকে তদন্ত কাজ শুরু করে পিবিআই। ১৫ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রায়হানের মরদেহ কবর থেকে তুলে দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত করে পিবিআই। ওইদিনই শেষে বিকেলে আবার আখালিয়া নবাবী মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে রায়হানের মরদেহ ফের দাফন করা হয়। দুদফা ময়নাতদন্তের রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১১টি আঘাতের চিহ্ন ও হাতের দু আঙুলের নখ উপড়ানোসহ নির্যাতনে মৃত্যু ঘটেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST