ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
কিশোরগঞ্জে আগাম আলুর ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক।

কিশোরগঞ্জে আগাম আলুর ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক।

স্টাফ রিপোর্টারঃ   ভোজন রসিক বাঙ্গালীর রসনাতৃপ্তির প্রধান সবজি আলু। আর এ আলু আগাম চাষাবাদে রোল মডেল ও দেশের অন্য জেলার চেয়ে এগিয়ে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা।

এক সময়ের অনাবাদি ধু-ধু বালুময় প্রান্তর এখন উর্বর ভূমিতে পরিণত হয়ে আগাম আলুর চাষ সহ চার ফসলি জমিতে রুপ নিয়েছে। সেই জমিতে আগাম আলু চাষ করে এক সময়ের পিছিয়ে পড়া জনপদ এখন স্বনির্ভর জনপদে পরিণত হয়েছে। উঁচু জমিতে আগাম জাতের আউশ-আমন ধান কাটা মাড়াই শেষ করে এক খন্ড জমি পতিত না রেখে দফায় দফায় বন্যা,আলুতে ভোজ বাজি সবকিছু উপেক্ষা করে আগাম আলুর বাজার ধরার মাতোয়ারায় মেতে উঠে রোপন করেছিলেন আগাম জাতের সেভেন আলু। এখন সেই আগাম আলুর ক্ষেত হাতে লাঙ্গল টেনে জমি তৈরী আগাছা পরিস্কার কীটনাশক প্রয়োগ নিড়ানি দেওয়া সহ আলুর ক্ষেত পরিচর্যায় মহা কর্মযজ্ঞে পেতে উঠেছেন ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষক। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আর ২০-২৫ দিনের মধ্যে আগাম আলু উত্তোলন করতে পারবেন এ অঞ্চলের কৃষক। মাঠের পর মাঠ এখন আগাম আলুর বেড়ে উঠা লকলকে গাছ সবুজের সমারোহে দোল খাচ্ছে বাতাসে। স্বল্প সময়ে উৎপাদন যোগ্য ও দ্বিগুন লাভ হওয়ায় এ এলাকার কৃষকদের আগাম আলু চাষের আগ্রহ দিনদিন বাড়ছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, এবারে ৪ হাজার ৩৬৫ হেক্টর জমিতে আগাম আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আগাম আলু তোলার পর একই জমিতে মৌসুমী আলু, ভূট্টা, মরিচ, মিষ্টিকুমড়া, রসুন, পেয়াজ চাষাবাদ করবেন। এতে বাড়তি কোন হালচাষ সারপ্রয়োগ করতে হবে না।

সরেজমিনে উপজেলার বাহাগিলী ইউনিয়নের উত্তর দুড়াকুটি গ্রামের কৃষক লতিবার, লালবাবু জানান স্মরণাতীত কালে এবার আগাম আলু চাষে সবচেয়ে বেশি খরচ হয়েছে। আশ্বিনা বৃষ্টিপাত তৈরী করা জমি একাধীক বার হয়েছে নষ্ট, বীজের দাম চড়া সবকিছু মিলিয়ে আলুর বাম্পার ফলন সঠিক দাম পেলে এক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার আশাবাদী। বিঘাপ্রতি উৎপাদন খরচ হবে ২৫-৩০ হাজার টাকা। আগাম বাজার ধরতে পারলে ৬০-৬৫ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি করা সম্ভব হবে। এতে খরচ বাদে বিধা প্রতি লাভ হবে ২৫-৩০ হাজার টাকা। এছাড়া মৌসুমে আগাম আলু বাজারে ব্যাপক চাহিদা থাকায় বিক্রি করতে কোন রকমের ঝামেলা হয় না। আশ্বিন কার্তিকের মঙ্গাকে বিতাড়িত করে এ এলাকায় এখন কাজ আর কাজ। কৃষক তথা কৃষি শ্রমিকের বসে থাকার কোন সুযোগ নেই। কৃষি শ্রমিকগণ প্রতিদিন কাজ করে ৩৫০-৪০০ টাকা আয় করে স্বাচ্ছন্দে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসতেছেন। পাশাপাশি নারী কৃষি শ্রমিকদের ব্যাপক কদর বেড়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার হাবিবুর রহমান জানান, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আগাম আলুর বাম্পার ফলন হবে। দেশের অন্যান্য জেলার আগেই নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার আগাম আলু উঠবে। আগাম বাজার ধরতে পারলে লাভবান হবে এই উপজেলার কৃষকরা।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST