ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
ডোমারে রেলমন্ত্রীর চিলাহাটি-হলদিবাড়ী রেলপথ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন।

ডোমারে রেলমন্ত্রীর চিলাহাটি-হলদিবাড়ী রেলপথ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন।

রতন কুমার রায়,স্টাফ রিপোর্টার,

নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ীর মধ্যে সংযোগকারী রেলপথ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।
শনিবার (১৪ নভেম্বর) চিলাহাটি রেল স্টেশন থেকে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত ৬.৭০ কি.মি. রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প কাজের সমাপ্তি ও ভারতীয় হলদিবাড়ী থেকে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত ৩.৮০ কি.মি. নির্মাণ কাজ শেষ সংযোগ স্থান সরেজমিনে পরিদর্শন করেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। তিনি সকালে রেলের একটি ট্রায়াল ইঞ্জিনে চড়ে স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গকে নিয়ে সীমান্তের জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত গমন করেন।
পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের মন্ত্রী জানান, আগামী ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবসে আমরা মালগাড়ী চলাচল করার জন্য ভারতীয় কতৃপক্ষ ও আমি নিজে ব্যাক্তিগত ভাবে ভারতের রাষ্ট্রদুতকে অবহিত করেছি। ভারতের প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্মতি দিলে ১৬ ডিসেম্বর অথবা আগে পিছে যে কোন সম্ভাব্য তারিখে গাড়ী চলাচল উদ্বোধন করা হবে। শুরুতেই মালবাহী রেলগাড়ী চলাচল হইলে পরবর্তীতে ভারতের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে মৈত্রী ও বন্ধন এক্সপ্রেসের পর নতুন নামে ঢাকা থেকে শিলিগুড়ী পর্যন্ত একটি ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাস্টম এবং ইমিগ্রেশন ঢাকাতে অথবা চিলাহাটিতে হতে পারে। সব কিছু হবে তখনকার পরিস্থিতির উপর। এই ট্রেন চলাচল বহুদিন আগেই শুরু হতো কিন্তু অন্য একটি দল ক্ষমতায় থাকার কারনে চালু হয়নি। আজ এই সরকারের আমলে চালু হতে যাচ্ছে। উচ্ছেদ হওয়া রেল লাইনের ধারে বসবাসকারী ৭৮টি পরিবারের কয়েকশত সদস্য মন্ত্রীর কাছে আর্থিক সাহায্যর দাবী জানালে রেলমন্ত্রী তাদের সহযোগীতার আশ্বাস দেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন,নীলফামারীর জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধরী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিনা শবনম,সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (ডোমার-ডিমলা) সার্কেল জয়ব্রত পাল,ডোমার থানা ইন্সপেক্টর বিশ্বদেব রায়, ৫৬ বিজিবির অধিনায়ক মায়মুনুল রহমান। রেলের পশ্চিম জোনের বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা নাছির উদ্দিন, সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন,বিভাগীয় রেল কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, প্রকল্প পরিচালক আব্দুর রহিম, নির্মানকারী প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স ইনফ্রস্টোকচার লিমিটেড কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST