ঘোষনা:
শিরোনাম :
শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী খাগড়াছড়িতে ৭ম টিআরসি ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী নীলফামারীর ডিমলায় মাদকদ্রব্যের রোধকল্পে কর্মশালা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে রায়পুরায় কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত,৩ আহত ৫ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৭০ জন  জলঢাকা পৌরসভার ৭৯ কোটি ৭৯ লক্ষ ১ হাজার ৭ শত ৩০টাকার বাজেট ঘোষনা
প্রতিবন্ধি হলেও প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নে কাজল রেখা

প্রতিবন্ধি হলেও প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নে কাজল রেখা

বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি,
প্রতিবন্ধি হলেও সকল প্রতিবন্ধকতাকে পিছনে ফেলে জীবনে সফলতার পথে এগিয়ে চলছে কাজল রেখা। অন্যের সাহায্য ছাড়া মাটিতে পা রেখে হাটতে না পারলেও দাঁড়াতে চান সংগীত অঙ্গনে উচু স্থানে। রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার ৭নং গোপিনাথপুর ইউনিয়নের মাঝাপাড়ার মৃত একরামুল হকের মেয়ে মোছা. কাজল রেখা।

জন্ম থেকেই শারীরিক প্রতিবন্ধি হলেও জীবনে বড় হওয়ার বাভালো কিছু করার স্বপ্ন দেখেন কাজল রেখা।গানে গলা যেমন সুমধুর, তেমনি কাজলের গানের প্রতি অনেক টান। গান গেয়েই গড়তে চান নিজের ভবিষৎ। পাশাপাশি লেখাপড়ায় ও এগিয়ে চলছেন সমানতালে সুন্দর চেহারার এই মেয়েটি।অন্যের সাহায্য ছাড়া শারীরিক ভাবে অচল হলেও লেখাপাড়া সচল রেখেছেন ৫ কিলো দুরের স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান লক্ষণপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজে। একই প্রতিষ্ঠান থেকে এবছর এসএসসিতে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উত্তীর্ণ হয়ে পড়ছেন একাদশের মানবিকে।

কাজলের কথায়, পরিবারে মায়ের সেলাই মেশিনে উপার্জিত অর্থে বিজ্ঞানে আর পড়া সম্ভব হয় না তার। তাই সামর্থ্যরে কাছে হেড়ে অনেকটা বাধ্য হয়েই একাদশে মানবিক বিভাগে পড়তে হচ্ছে তাকে।

অন্যদের মতো কাজলেরও সুস্থ দুটি পা আছে। কিন্তু কোমড়ের সাথে পায়ের সংযোগে অমিলের কারণেই কাজল আজ অচল। অন্যের সাহায্য ছাড়া একা হাটতে পারেন না।বাড়িতে মায়ের গায়ে ভর দিয়েএকে বেকে হাটেন। কলেজে কাজলের জন্য সার্জিক্যাল সরঞ্জামের ব্যবস্থা রেখেছেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ রেজাউল করিম রেজা। অধ্যক্ষের আদেশে প্রতিষ্ঠানের আয়া প্রতিদিন সকালে রাস্তায় দাঁড়ানো ভ্যান থেকে কাজলকে ক্লাসরুমে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেন। একইভাবে ছুটির পর বাসা পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

কাজল জানান, পরীক্ষার ফি কিংবা মাসিক বেতন এর কোনোটাই দিতে হয়না তাকে। এমনকি পড়ার বই, খাতা, কলম ইত্যাদি কিনে দেন অধ্যক্ষ রেজা স্যার।

গান ভালো লাগে, তাই ছোট বেলা থেকেই গুনগুনিয়ে গান গাইতেন। গান শুনে মুগ্ধ সবাই। তাই গানে গলা আরো পরিষ্কার করার জন্য কাজল গান শিখেন। এর জন্য মাকে সাথে নিয়ে প্রায় ৮ কিলো পাড়ি দিয়ে যেতে হয় চৌমহনিতে।গানের শিক্ষক বিনয় কুমার রাজবংশীও এই প্রতিভাবান মেয়েটির প্রতিযত্নের সাথে সংগীত শিক্ষা দেন।

কাজলের মা মমিছা বেগম জানান, জন্ম থেকেই কাজলের এমন শারীরিক সমস্যা। কাজলের বয়স যখন ছয় বছর, তখন তার বাবা মারা যায়। কাজলের বড় এক ভাই থাকলেও সে বউ বাচ্চা দিয়ে আলাদা। গ্রামে মানুষের কাপড় সেলাই করে যা পান তা দিয়েই সংসার চালানোও কাজলের লেখাপড়া চলাতে হয়। মেয়ের কলেজে যাওয়া-আসা ও প্রাইভেটের টাকা যোগানো মায়ের কাছে কখনও অনেক কঠিন হয়ে পরে।

কাজল জানান, ইদানিং বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার জন্য সে কিছু আমন্ত্রণও পেয়ে থাকেন। তাছাড়াও বিভিন্ন ইউটিউব চ্যালেনের লোকজন এসে তার গান রের্কড করে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST