ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে মিতু হত্যায় সাবেক এসপিকে জিঙ্গাসাবাদ শেষে গ্রেফতার করেছে পিবিআই। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দুই মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-৩। খেটে খাওয়া এবং কর্মহীন মানুষের কল্যানে সহায়তা করে যাচ্ছে সরকার রেলপথ মন্ত্রী । নীলফামারীর ডোমারে মাইক্রোবাস ও মটরসাইকেলের সংঘর্ষে,নিহত ১। নীলফামারীতে সমাজের প্রবীণ ও অসচ্ছল প্রবীণ ব্যাক্তিদের মাঝে ঈদ উপহার নীলফামারীতে ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ সকাল সাড়ে সাতটায় কেন্দ্রীয় বড় মসজিদে নীলফামারীতে বোরো ধানের বাম্পার ফলন,কৃষকের মুখে হাসির ঝলক। আগামীকাল চাঁদ দেখা গেলে বৃহস্পতিবার ঈদ নীলফামারীতে ভিজিএফ’র নগদ অর্থ বিতরণে অনিয়ম। স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় হাল্ট প্রাইজের নেতৃত্বে নাজির-নুসরাত।
প্রধান আকর্ষণ পুরী,।

প্রধান আকর্ষণ পুরী,।

প্রধান আকর্ষণ পুরী,।

লিয়াকত হোসেন খোকন,কোলকাতা থেকে,

কলকাতার এসপ্লানেড বাসগুমটি থেকে সরাসরি বাস যায় পুরীতে প্রতিদিনই।
হিজলি কোঅপারেটিভের বাসে গেলে ভালো হয়। এটি ১৩ ঘণ্টায় পৌঁছতে পারে পুরীতে। বাবুঘাট থেকে ওয়ারটি বাস ছাড়ে। ইচ্ছে করলে ট্রেনে পুরীতে যেতে পারেন।
প্রতিদিন জগন্নাথ এক্সপ্রেস পুরীর উদ্দেশে ছেড়ে যায়। জগন্নাথ এক্সপ্রেস ছাড়ে সন্ধ্যা ৭টায়। এটি সকাল ৫ টা ২০ মিনিটে পৌঁছবে পুরীতে। পুরী এক্সপ্রেস ছাড়ে রাত ১০ টায়। এটি সকাল ৮ টায় পুরীতে পৌঁছে। ভুবনেশ্বর হয়েও পুরী যেতে পারেন। ভুবেনশ্বর থেকে পুরী বাসে যাতায়াতে সময় লাগে ৩ ঘণ্টা।
কোথায় থাকবেন : পুরীতে রাত্রি যাপন করার জন্য অসংখ্য হোটেল রয়েছে। রেলস্টেশন থেকে নীল সাগরের পাড় ৩ কিমি দূরে। এখানে রয়েছে ‘পুরী হোটেল’।
এছাড়া ভিক্টোরিয়া ক্লাব হোটেল, সিদ্ধার্থ গেস্ট হাউস, সাগরিকা, ওমেন ভিউ, গ্রান্ড হোটেল, রেনুকা হোটেল, সনি হোটেল প্রভৃতির যেকোনো একটিতে উঠতে পারেন। কলকাতা থেকে আগেভাগে হোটেল বুক করে নেবেন।
কী কী দেখবেন :
পুরীর অন্যতম আকর্ষণ সমুদ্রসৈকত। সারাক্ষণ এখানে বেড়াতে ইচ্ছে হবে। এখানে স্নানও করে নিতে পারেন। সাগরে বেড়াবার জন্য ছোট ছোট নৌকা পাবেন। মনে যদি সাহস বেশি থাকে তাহলে নৌকাতে উঠবেন, নচেৎ নয়। খুব ভোরে উঠে সমুদ্রসৈকতে যাবেন। সূর্য যখন ডুবে যায় তখনো পুরীর সমুদ্রসৈকত অপূর্ব দেখায়। সমুদ্র সৈকতে গিয়ে তন্ময় হয়ে তাকিয়ে থাকবেন। তৃষ্ণার্ত হলে ঠান্ডা কিছু খেয়ে নিন।
বেলাভূমি জুড়ে রয়েছে অনেকগুলো খাওয়ার হোটেল। চা কিংবা কফি পান করারও সুযোগ রয়েছে।
পুরীতে বেড়াতে গিয়ে জানবেন,
একদা পুরীর সমুদ্র সৈকতে শ্রী চৈতন্য দেব এসেছিলেন। তিনি সমুদ্রে স্নানও করেছিলেন। স্বর্গদ্বারটিও দেখবার মতো। একে একে দেখে নিন কানপাতা হনুমান, পাতাল গঙ্গা, গুপ্ততীর্থ, গোবর্ধন মঠ, নীলাচল গোড়ীয় মঠ, রামকৃষ্ণ মিশন, আনন্দময়ী মার আশ্রম, সৎসঙ্গ আশ্রম, জগন্নাথ মন্দির।
জগন্নাথ মন্দির আসলেই দেখবার মতো। এর আয়তন বিশাল। মন্দিরের চারপাশে দেখবেন উঁচু পাঁচিল। সিংহদ্বারও আছে এখানে।
এই সিংহদ্বার দিয়েই মন্দিরে প্রবেশ করা যায়।
সকাল ৬ টা থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত জগন্নাথ মন্দির খোলা থাকে।ঘুরে ফিরে জানবেন, আষাঢ় মাসে পুরীতে সবচেয়ে প্রসিদ্ধ উৎসব রথযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। তখন লাখো লাখো পুণ্যার্থীর আগমন ঘটে এখানে।
রিকশা ভাড়া করে নিয়ে ২ ঘণ্টার মধ্যে শ্বেতগঙ্গা, মনেশ্বর, বাসুদেব আশ্রম, সিদ্ধ বকুল, গাম্ভীরা মার্কডয়েশ্বর মন্দির, সরোবর, লোকনাথ শিবমন্দির, আঠারোনালা সেতু প্রভৃতি দেখে নিন। পুরীর গামছা খুবই প্রসিদ্ধ। ফিরবার পথে গামছা পথে গামছা কিনে নিন।

উড়িষ্যার জেলার সংখ্যা ৩০ টি।
১. অনুগুল। ২. কটক। ৩. কন্ধমাল – ফুলবাণী।
৪. কেন্দ্রাপড়া। ৫. কালাহান্ডি – ভবানী পাটনা।
৬. কেন্দুঝর। ৭. কোরাপুট। ৮. খোর্দ্ধা।
৯. গজপতি – পারলাখেমুন্দি।
১০. গঞ্জাম – ছত্রপুর। ১১. জগৎসিংহপুর।
১২. ঝারসুগুড়া। ১৩. ঢেঙ্কানাল। ১৪. দেবগড়।
১৫. নবরঙ্গপুর। ১৬. নয়াগড়। ১৭. নয়াপাড়া।
১৮. পুরী। ১৯. বলাঙ্গির। ২০. বারগড়।
২১. বালেশ্বর। ২২. বৌধ – বৌধগড়।
২৩. ভদ্রক। ২৪. ময়ূরভঞ্জ – বারিপদা।
২৫. মালকানগিরি। ২৬. যাজপুর। ২৭. রায়গড়া।
২৮. সম্বলপুর। ২৯. সুন্দরগড়।
৩০. সুবর্ণপুর সোনপুর – সুবর্ণপুর।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST