ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
বদরগঞ্জ হাসপাতালে জনবল সংকট থেমে নেই চিকিৎসা সেবা ।

বদরগঞ্জ হাসপাতালে জনবল সংকট থেমে নেই চিকিৎসা সেবা ।

ময়দুল ইসলাম, বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি ,
জনবল সংকটে অনেকটা দূর্বল হয়ে পড়েছে উত্তরাঞ্চলের বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। তবু থেমে নেই চিকিৎসা সেবা। প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা অসংখ্য রোগীর চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছে এই হাসপাতালটি। প্রত্যেক চিকিৎসক ও কর্মচারীকে সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে রোগীর সেবায় ছুটতে হয় বেট টু বেট, এক কক্ষ থেকে অন্য কক্ষ। এতে চিকিৎসকদের শারীরিক ক্লান্তির পাশাপাশি মানসিক চাপেও বাড়তে থাকে। জনবল সংকটে অনেক সময় রোগীর পরিচর্যায় যতেষ্ট ঘাটতি পরে যায়।
হাসপাতালটিতে মেডিকেল কর্মকর্তা ১২ জন থাকার কথা থাকলে আছে ৮ জন। এদের ৪ জনই ইউনিয়ন সাব-সেন্টর থেকে এসে চিকিৎসা দিয়ে যায়। জুনিয়ার কনসালটেন্ট ০৫ জন থাকার কথা, অথচ একজনকেও নিয়োগ দেওয়া হয়নি এই হাসপাতালে। কোনো ফার্মাসিস্ট কর্মচারি নাই এই হাসপাতালে। অফিস সহায়কের পদে ১জন নাই। পরিচ্ছন্নতা কর্মী ৬জন থাকার কথা থাকলেও আছে মাত্র ২জন, ৪জনেই নাই। উপ-সহকারি কমিউনিটি মেডিকেল কর্মকর্তা (স্যাকমো) আছেন ৮ জন, এরমধ্যে ৬জনই সব-সেন্টার থেকে আসা। আউট সোর্সিং-এ বেতন ছাড়াই কাজ করছেন ৫ জন।
রংপুর-২ আসনের মাননীয় সাংসদ আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী (ডিউক) এর হাত ধরে ২০১৮ সালের ফেব্রæয়ারিতে হাসপাতালটিকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নিত করা হয়। দুঃখের বিষয়, হাসপাতালের সেবার পরিধি বাড়ালেও বাড়েনি সেবক ও সরঞ্জাম। যে জনবল দিয়ে ৩১ শয্যা পরিচলনা করা কঠিন সেই সংখ্যক জনবল দিয়েই চলছে ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটির চিকিৎসা কার্যক্রম।
জনবল সংকটে চিকিৎসা সেবায় নানা রকম সমস্যা তৈরি হচ্ছে। অনেক সময় রোগী সঠিক সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। চিকিৎসক স্বল্পতার কারণে রোগী সময় মতো চিকিৎসা পাচ্ছেন না। চিকিৎসকদের অধিক সংখ্যক রোগীর চিকিৎসা দিতে অনেক ছুটাছুটি করতে হচ্ছে। অনেক কাজের চাপ নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে চিকিৎসক সহ কর্মকর্তা-কর্মচারিদের।
জুনিয়ার মেকানিক আনোয়ারুল হক বলেন, আমার নিজ দায়িত্ব পালন করতে হয়। তাছাড়া ভারপ্রাপ্ত ষ্টোর কিপার হিসেবে আমাকে বাড়তি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। মাঝেমাঝে ফার্মাসিস্ট হয়েও ওষুধ প্রদানের দায়িত্ব পালন করতে হয়।
ভারপ্রাপ্ত এমটি ল্যাব আলী হাসান (রুপম) বলেন, এখানে অফিস কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ পাই। পরে আমার এমটি ল্যাবে ডিপ্লোমা কমপ্লিট জানার পরে কর্তৃপক্ষ আমাকে ভারপ্রাপ্ত ল্যাব হিসাবে দায়িত্ব দেন। অনেক সময় ল্যাবে পরীক্ষণের প্রয়োজনীয় উপকরণ সংকট দেখা দেয়, তখন নিজের পকেটের টাকা দিয়ে উপকরণ কিনে রোগীদের চাহিদা পূরণ করি।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) ডাঃ আরশাদ হোসেন বলেন, চিকিৎসক ও কর্মচারি সংকটে ভোগছি আমরা। যে ক’জন আছেন তাদের নিয়ে চেষ্টা করি ভালোভাবে রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে। সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল নিয়োগ দেওয়া হলে বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবার মান অনেক উন্নত হতো। কয়েকজন চিকিৎসক ও কর্মচারির প্রশংসা করে তিনি আরো বলেন, আল্লাহর রহমতে আমার বর্তমান চিকিৎসক ও কর্মচারি অনেক পরিশ্রমী ও ত্যাগী। তানাহলে চিকিৎসা সেবার মানে অনেক ঘাটতি আসতো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST