ঘোষনা:
শিরোনাম :
ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় মটর সাইকের আরোহী পুলিশের এস আই নিহত। ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিদায়, বরণ সংবর্ধনা । রিসোর্টে নারীকে নিয়ে, মামুনুলের ব্যক্তিগত বিষয়, এ নিয়ে হেফাজতের বক্তব্য নেই। নীলফামারী সৈয়দপুরে বৈশাখ আর ঈদের কেনাকাটায় ব্যাস্ত মানুষ। রাষ্ট্রপতির শোক বার্তা দিয়েছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীর মৃত্যুতে। সাতক্ষীরায় ঘাতক সাগর গ্রেপ্তার, ‘২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে খুন ’ ঘাতকের স্বীকারোক্তি। সীতাকুণ্ডে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।স্ত্রীকে আটক। চট্টগ্রামে করোনায় প্রাণ গেল এক চিকিৎসকের। কক্সবাজার সৈকতে আরও একটি মৃত তিমি ভেসে এসেছে । সাতক্ষীরায় করোনা মোকাবেলায় জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ।
কিশোরগঞ্জে ১১ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অবস্থান

কিশোরগঞ্জে ১১ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অবস্থান

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের সিঙ্গেরগাড়ী চৌধুরীপাড়া গ্রামের রিক্সা চালকের প্রাপ্তবয়স্ক কন্যা স্বামীর স্বীকৃতির জন্য ১১ দিন ধরে খেয়ে না খেয়ে প্রেমিকের বাড়িতে পড়ে আছে। মে মাসের ১ তারিখ থেকে আজ শবিার ( ১১ মে )পর্যন্ত প্রেমিকের মায়ের ও নিকট আত্মীয়ের নানা নির্যাতন ও কটু কথা নিরবে হজম করে স্বামীর স্বীকৃতি অর্জনের চেষ্ঠা করছে।
জানা গেছে, সিঙ্গেরগাড়ী চৌধুরী গ্রামের রিক্সাচালক এরশাদুল হকের প্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের সাথে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে প্রতিবেশি মোহাম্মদ আলীর সদ্য মাষ্টার্স পাশ করা ছেলে রবিউল ইসলাম। এরপর প্রেমিকার সাথে দিনের পর দিন দৈহিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে প্রতারক প্রেমিক। প্রেমিকা বিয়ের জন্য চাপ দিলে প্রেমিক রবিউল আজকাল করে দীর্ঘ এক বছর যাবৎ তালবাহানা করে আসছে। মেয়েটি প্রেমিক রবিউলের উদ্দ্যোশ্য বুঝতে পেরে গত ১ মে স্বামীর স্বীকৃতির দাবি নিয়ে রবিউলের বাড়িতে এসে অবস্থান করে।
মেয়ের বাবা এরশাদুল হক বলেন, আমি গরীব মানুষ রিক্সাচালক বলে আমার মেয়েকে তারা মেনে নিচ্ছেনা। প্রতিপক্ষ বিত্তশালী হওয়ায় দীর্ঘ ১১ দিন ধরে শালিস বিচারের নামে আমাকে হয়রানী করা হচ্ছে। আমি এ ব্যাপারে অভিযোগ নিয়ে থানায় গেলে পুলিশ আমার অভিযোগ গ্রহন না করে আমাকে কোর্টে যাওয়ার পরামর্শ দেন।
রবিউল ইসলামের সাথে যোগাযোগের জন্য তার বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। এসময় রবিউলের মা রওশনআরা জোড় দিয়ে বলেন, আমার ছেলে নির্দোশ, আমার ছেলেকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।
কিশোরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মফিজুল ইসলাম বলেন,মেয়েটির মায়ের লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর মেয়েটিকে উদ্ধার করার জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু মেয়েটি ওই ছেলেকে ছাড়া কিছুতেই স্থান ত্যাগ করবেনা । এ অবস্থায় পুলিশ চলে আসে।মেয়েটির বাবা মানবাধিকার সংঘঠনগুলোকে এগিয়ে আসার আহব্বান জানায়।যাতে গরীব কন্যা দায়গ্রস্ত পিতা সঠিক বিচার পায়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST