ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
উত্তরবঙ্গের এক উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালাম আমরা-সৈয়দপুরে মির্জা ফখরুল

উত্তরবঙ্গের এক উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালাম আমরা-সৈয়দপুরে মির্জা ফখরুল

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
শুধু সৈয়দপুর বা নীলফামারী নয় বরং উত্তরবঙ্গের এক উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালাম আমরা। তিনি শুধু বিএনপি’র নেতা ছিলেন না। তিনি ছিলেন সকল দল ও মতের উর্ধে উঠে আপামর জনতার নেতা। যার প্রমাণ আজকের এই জনসমুদ্র। যেখানে সমবেত হয়েছেন অত্রাঞ্চলের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেত্রীস্থানীয় ব্যক্তিবর্গসহ সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ। তাঁকে হারিয়ে আমরা আজ খুবই ব্যাথাতুর। এসময় তাঁর খুব প্রয়োজন ছিল আমাদের। কিন্তু আবেগ ভারাক্রান্ত হয়ে অশ্রæসিক্ত নয়নে তাঁকে আজ বিদায় দিতে হচ্ছে। চির বিদায়ের সময়ই তার জানাজা সৃস্টি করলো আরেক ইতিহাস। পরিসমাপ্তি ঘটলো সৈয়দপুরের ইতিহাসের অনবদ্য এক কিংবদন্তির। শুক্রবার (১৫ জানুয়ারী) বাদ জুমআ সৈয়দপুর পশ্চিম পাটোয়ারীপাড়ার নীলফামারী-৪ আসনের সাবেক এমপি, সৈয়দপুর পৌরসভার ৪ বারের নির্বাচিত মেয়র অধ্যক্ষ মোঃ আমজাদ হোসেন সরকারের জানাজা পূর্বের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি আরও বলেন, আমজাদ ছিল অত্যন্ত সাহসী ও সত্যবাদী। যে কারণে তাঁকে কেউ দমিয়ে রাখতে পারেনি। সবসময় সে সৈয়দপুরবাসীর উন্নয়ন নিয়ে ভাবতো। সারাটি জীবন সৈয়দপুরের মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করে গেলেন। তিনি আপনাদেরকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন। একারণে আপনারাও তাঁকে প্রিয় নেতা হিসেবে ভালোবাসেন। তাইতো বার বার তাঁকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। আপনাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। আপনাদের ভজে ভাই আজ আপনাদেরকে অভিভাবকহীন করে না ফেরার দেশে চলে গেছেন। তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। আপনারা তাকে মাফ করে দিবেন এবং দোয়া করবেন যেন আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি’র রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক মন্ত্রী আসাদুল হাবিব দুলু, নির্বাহী কমিটির সদস্য ও দিনাজপুর জেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক ও চিরিরবন্দর-খানসামা আসনের সাবেক এমপি আখতারুজ্জামান মিয়া, নীলফামারী-৪ আসনের এমপি আহসান আদেলুর রহমান আদেল, নীলফামারী-৪ আসনের সাবেক এমপি আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী, নীলফামারী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন, নীলফামারী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ, নীলফামারী জেলা বিএনপি’র সভাপতি আলমগীর সরকার, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সৈয়দপুর উপজেলা আমীর হাফেজ আব্দুল মুনতাকিম, সৈয়দপুর রাজনৈতিক জেলা বিএনপি’র আহবায়ক অধ্যক্ষ আব্দুল গফুর সরকার, উপজেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক ও ইকু গ্রæপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব সিদ্দিকুল আলম সিদ্দিক, পাবর্তীপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মিনহাজুল হক, হাজারীহাট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও বিএনপি নেতা লুৎফর রহমান চৌধুরী, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক, আমজাদ হোসেন সরকারের ছোট ভাই ও জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব রশিদুল হক সরকার এবং জেলা বিএনপি’র সাবেক কোষাধ্যক্ষ ও বিশিষ্ট চাল ব্যবসায়ী আলহাজ্ব ইকবাল হোসেন ভোলা।

আরও উপস্থিত ছিলেন, সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোখছেদুল মোমিন, ভাইস চেয়ারম্যান আজমল হোসেন সরকার, উপজেলা যুবলীগের আহাবায়ক দিলনেওয়াজ খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিনুল হক মহসিন, পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, বসুন্ধরা কিংস’র সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ ও সুশিল সমাজের ব্যক্তিবর্গ এবং সৈয়দপুরের প্রায় ৩ লক্ষাধিক মানুষ। জানাযা শেষে মরহুমকে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁর পিতা মরহুম মকবুল হোসেন সরকারের পাশেই দাফন করা হয়। এর আগে বিভিন্ন সংগঠন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার পক্ষ থেকে মরহুমের কফিনে শ্রদ্ধাঞ্জলী পুষ্পার্ঘ অর্পন করা হয় এবং বিএনপি’র দলীয় পতাকা দিয়ে ঢেকে সম্মাননা জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত ১৪ জানুয়ারী ভোর সাড়ে ৬ টায় ঢাকায় বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পৌর মেয়র অধ্যক্ষ মোঃ আমজাদ হোসেন সরকার ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি স্ত্রী, একমাত্র ছেলে, তিন ভাই ও চার বোন সহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে সৈয়দপুর যেন শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST