ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
নীলফামারী শহরে হেলে যাওয়া সেই বৈদ্যুতিক পিলারটি এখনও সোজা করা হয়নি

নীলফামারী শহরে হেলে যাওয়া সেই বৈদ্যুতিক পিলারটি এখনও সোজা করা হয়নি

নীলফামারী প্রতিনিধি ,

১১ হাজার কেভি লাইনের একটি বৈদ্যুতিক পিলার দ্বিতলা একটি বাড়ীতে হেলে পড়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে একটি শিশু নিহত হলেও ৬ দিনেও সেই পিলারটি সোজা করা হয়নি। এনিয়ে এলাকাবাসির মধ্যে চরম উত্তেজনা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।
জানা যায় ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে নীলফামারী শহরের মুন্সিপাড়া আরডিআরএস অফিস সংলঘœ নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানী লিমিটেডের (নেসকো) ১১ হাজার কেভি লাইনের একটি পিলার সাপ্তাহিক নীলসমাচার পত্রিকার সম্পাদক আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবদুল্লাহ্র দ্বিতল ভবনে হেলে পড়ে। পিলারটি হেলে পড়ায় বৈদ্যুতিক তার গুলো ভবনটির ছাদের খুব কাছাকাছি ও দেয়াল লেগে যায়। এদিকে গত ৮ মে সাংবাদিক আবদুল্লাহ্’র বাড়ীতে আট বছরের ছেলেকে নিয়ে বেড়াতে আসে তার বড় শালিকা নুরবানু। ওই দিন বিকেলে সকলের অজান্তে মায়ের সাথে আসা আট বছরের আরমান হোসেন বাবু বাড়ীর ছাদে উঠে হেলে পড়া সেই বিদ্যুতের তার স্পর্শ করলে ছাদে ছিঁটকে পড়ে। বাড়ীর লোকজন তাকে উদ্ধার করে নীলফামারী আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করার কিছুক্ষণ পড়ে সে মারা যায়। আরমান হোসেন বাবু শহরের বড় মসজিদ এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা আবু হোসেনর পুত্র ও স্থানীয় একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র ছিল।
সাংবাদিক আবদুল্লাহ জানান দূঘটনার পরপরেই বিষয়টি স্থানীয় বিদ্যুৎ বিভাগকে অবগত করা হয়। কিন্তু আজ ৬দিন অতিবাহিত হলেও এখন পিলারটি সোজা করা হয়নি। এমনকি বিদ্যুৎ অফিসের কেউ এই ঘটনায় সমবেদনা জানাতেও আমার বাড়ীতে আসেনি।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান পিলারটি হেলে পড়ায় বর্তমানে এটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। চলাচল সড়কের পার্শ্বেই হওয়ায় যে কোন মূর্হুতে বড় কোন দুর্ঘটনার আশংকা করছেন তারা।
নীফফামারী বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী নওশাদ আলী জানান গত রবিবার রাতের ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ বিভিন্ন এলাকার বিদ্যুতের লাইন মেরামত করার কারণে পিলারটি সোজা করতে বিলম্ব হচ্ছে। আগামী দু’একদিনের মধ্যে পিলারটি ঠিক করা হবে বলে তিনি জানান।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST