ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
জলঢাকায় টীকা নিতে নারীদের দীর্ঘ লাইন ।

জলঢাকায় টীকা নিতে নারীদের দীর্ঘ লাইন ।

রনজিত রায়, জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
নীলফামারীর জলঢাকায় কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিনে বেড়েছে আগ্রহ। লাইনে দাড়িয়ে এখন টীকা গ্রহণ করছেন অনেকে। গত কয়েকদিনের চেয়ে বুধ ও বৃহস্পতিবার টীকা গ্রহণের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৮ গুণ। প্রথম দিনে মাত্র ৩০ জন টীকা গ্রহণ করলেও বর্তমানে প্রতিদিনের সংখ্যা এখন ২শ পেরিয়েছে। বৃহস্পতিবার টীকা গ্রহণ করেছেন ২৮০ জন। এরমধ্যে নারীই ৭৩ জন। শনিবার থেকে এ সংখ্যা আরও অনেক বেড়ে যাবে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংশ্লিষ্টরা। সরেজমিনে জলঢাকা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, নারী সদস্যদের দীর্ঘ লাইন। বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে এসেছেন করোনার টীকা গ্রহণ করতে। এসময় উপজেলার শালনগ্রাম এলাকার শাহিনা আক্তার বানু এবং তালুক গোলনা এলাকার অঞ্জলী রানীর সাথে কথা হলে তারা জানান, আমরা টীকা নিতে এসেছি। এ সুযোগ আমরা নষ্ট করতে চাইনা। তাছাড়া শুনেছি এবং দেখছি টীকা নিলে সমস্যা হচ্ছে না। এছাড়াও তাৎক্ষণিক রেজিস্ট্রেশন করে টীকা গ্রহণের সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। সেখানেও মানুষের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। এ সময় টীকা নিতে আসেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর, জেলা পরিষদ সদস্য জুলফিকার আলী জুয়েল, জেলা জাসদের সভাপতি অধ্যাপক আজিজুল ইসলামসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ। টীকা গ্রহণ শেষে উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর বলেন, আমি টীকা নিলাম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার এ উপহার যেন সবাই গ্রহণ করে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য অবশ্যই সকলকে টীকা নিতে হবে। স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এ.এইচ.এম রেজওয়ানুল কবির বলেন, জলঢাকা উপজেলার জন্য বরাদ্দ হয়েছে ১১ হাজার ১১৪ টীকার ডোজ যা প্রথম পর্যায়ে যা ৫ হাজার ৫৭০ জনের মাঝে প্রয়োগ করা সম্ভব হবে। বর্তমানে টীকা গ্রহণ কার্যক্রম সন্তোষজনক মনে করে তিনি আরও বলেন, আশা করি এ মাসেই আমাদের প্রথম ডোজ টীকা বরাদ্দকৃতদের মধ্যে দেয়া সম্ভব হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST