ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
বদরগঞ্জে বালিকা মাদ্রাসার বাথরুমে মিলল ছাত্রীর মরদেহ।

বদরগঞ্জে বালিকা মাদ্রাসার বাথরুমে মিলল ছাত্রীর মরদেহ।

ময়দুল ইসলাম, বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি,
রংপুরের বদরগঞ্জে রহস্যজনকভাবে সুমাইয়া সুলতানা খুশি (১৪) নামে এক বালিকা মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বাথরুমের দরজা ভেঙে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। গত মঙ্গলবার(৯ জানুয়ারি) রাতে ঘটনাটি ঘটে পৌরশহরের জামুবাড়ী পকিহানা খাদিজাতুল কোবরা বালিকা মাদ্রাসায়। আজ বুধবার(১০ জানুয়ারি) পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।
স্বজন ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, পৌরশহরের পকিহানা এলাকার আদুরী বেগম ও মফিজুল ইসলাম দম্পত্তির মেয়ে সুমাইয়া সুলতানা খুশি। গত চার বছর আগে বাড়ির পাশে আবাসিক বালিকা ওই মাদ্রাসায় তাকে ভর্তি করা হয়। ঘটনার দিন মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে খুশি কার সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলে কান্নাকাটি করে। পরে ওই মাদ্রাসার ভেতরে বাথরুমে যায় খুশি। সেখানেই সে বেশ কিছু সময় অবস্থান করে। পরে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা ডাকাডাকি করলেও সে বের না হওয়ায় সন্দেহ সৃষ্টি হয়। পরে অন্য মেয়েরা বাইরে গিয়ে জানালা দিয়ে দেখেন গলায় ওড়না পেচানো হাটুগাড়া অবস্থায় সে বসে অচেতন পড়ে আছে। পরে দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যৃ ঘোষণা করেন। সরেজমিন দেখা যায়, বাথরুমের কাপড় রাখার যে স্টিলের সঙ্গে তার ওড়না পেচানো ছিল। শরীরের ভারে সেটি ভেঙে পড়ার কথা। কিন্তু সেটি ছিল অক্ষত।
খুশির স্বজনরা জানায়, ছোট বেলায় বাবা মফিজুল ইসলাম তার মাকে তালাক দিয়ে ঢাকায় চলে যান। গত চার বছর আগে একই এলাকার অন্তু মিয়া নামে এক ছেলের সঙ্গে খুশির বিয়ে হয়। কিন্তু খুশি মাদ্রাসায় আবাসিক হিসেবে থেকে ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ করছিল। খুশির মা আদুরী বেগম কান্নায়জড়িত অবস্থায় বলেন, ‘আমার মেয়ে খুব সিদেসাদা ছিল। কারো সঙ্গে ও জগড়া করতো না। বাথরুমের ভেতর আমার মেয়ে বসা অবস্থায় পড়ে ছিল। এভাবে সে কি করে গলায় ফাঁস দিল এটা বিশ্বাস করতে আমার কষ্ট হচ্ছে।’
মাদ্রাসার শিক্ষক ফরিদুল ইসলাম বলেন, চার বছর আগে খুশির বাল্যবিয়ে হয়। আমাদের ধারণ ওই ছেলের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা কাটাকাটি নিয়ে সে ক্ষুদ্ধ হয়। ওই ক্ষোভে হয়তো বাথরুমে ঢুকে সে আতœহত্যা করে। নুসরাত ও উম্মে সায়েবা নামে দুই শিশু শিক্ষার্থী বলেন, ‘বাথরুমের দরজা ভেঙে খুশি আপুকে বের করা হয়। ভেতরে কাপড় রাখার একটি স্টিলের ডাসার সঙ্গে গলায় ওড়না পেচানো ছিল। মুখ দিয়ে ফেনার মত বের হয়।
বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) নাজমুল হোসাইন বলেন, মৃত্যৃ অবস্থায় মেয়েটিকে হাসপাতালের নিয়ে আসা হয়। গলায় সামান্য দাগ ছিল। মৃত্যৃর সঠিক কারণ নির্নয় করতে পুলিশকে রাতেই খবর দেওয়া হয়।
কর্তব্যরত উপ-পরিদর্শক(এসআই) রুহুল আমীন বলেন, ঘটনাটি অনেকটাই রহস্যজনক। মৃতের সঠিক কারণ জানতে লাশ উদ্ধার করে আজ দুপুরে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তবে এঘটনায় নিহতের কোন স্বজন এখন পর্যন্ত থানায় অভিযোগ দেয়নি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST