ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
সাতক্ষীরা প্রাইভেটকার নদীতে পড়ে নিহত-২, আহত-৩ ।

সাতক্ষীরা প্রাইভেটকার নদীতে পড়ে নিহত-২, আহত-৩ ।

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি,

সাতক্ষীরার শ্যামনগরে প্রশিক্ষণের প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চূনা নদীতে পড়ে চালকসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন। বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) রাত সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার ঈশ্বরীপুর ইউনিয়নের শওকতনগর এলাকায় এ দূর্ঘটনা ঘটে।

নিহত প্রাইভেটকার চালক আরাফাত মোল্লা (২০) ঈশ্বরীপুর ইউনিয়নের গুমানতলী গ্রামের নুরুল হক মোল্লার ছেলে ও আরাফাত হোসেনের ভগ্নিপতি ইব্রাহিম হোসেন (২২)। তিনি শহরের কামালনগর এলাকার বাবু খানের ছেলে।

আহতরা হলেন, একই গ্রামের নুরুল হুদার ছেলে হাসান (২৩), আবুল বাশারের ছেলে সাইফুল্লাহ (২৪), নূর হোসেনের ছেলে রবিউল ইসলাম।

আহতদের পরিবারের সদস্যরা জানায়, বিকেলে খেলাধূলা শেষে আরাফাত মোল্লা নিজেদের প্রাইভেটকারে ভগ্নিপতি ও বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে বের হন। পথিমধ্যে শওকতনগরে প্রাইভেটকারটি গুমানতলী প্রাইমারি স্কুলের সামনে ঘুরাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশের চুনা নদীতে পড়ে যায়। এসময় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে। ঘটনাস্থলে চালক আরাফাত মোল্লার মৃত্যু হয়।

শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক ডা. আব্দুর রাজ্জাক জানান, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই আরাফাত মোল্লার মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আহত চারজনের মধ্যে হাসান ও ইব্রাহিমের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডা. সুব্রত রায় জানান, হাসান নামের একজনকে ভর্তি করা হয়েছে। বাকি অপরজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসার আগে মারা গেছেন। উত্তেজিত পরিবারের সদস্যরা তাকে ফিরিয়ে নিয়ে যায়। আমরা দেখার সুযোগ পাইনি।

শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাজমুল হুদা বলেন, ঘটনাস্থলে চালক আরাফাত হোসেন মারা গেছেন। এরপর সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথিমধ্যে ইব্রাহিম হোসেন মারা গেছেন বলে জেনেছি। এছাড়া শ্যামনগর হাসপাতালে দুইজন ও একজন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST