ঘোষনা:
শিরোনাম :
বিএনপি দন্ডপ্রাপ্ত দল, ভিডিও কনফারেন্সিং বিআরটিসি বাস উদ্বোধনে, ওবায়দুল কাদের। চট্টগ্রাম মেডিকেল ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ,কক্ষ ভাঙচুর। নীলফামারীতে মসলা বীজ উৎপাদন প্রকল্পের মাঠ দিবস ও রিভিউ ডিসকাশন। বরিশালের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, হানিফ রাজধানীর ইবনেসিনা হাসপাতালে মৃত্যু বরন করেন। ডোমারে রাস্তার গাছ কাটার অভিযোগ। চট্টগ্রাম কারাগারে বন্দিকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে জেল সুপারসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা। রংপুরে নর্দাণ মেডিকেল কলেজ পরিচালকদের অবরুদ্ধ করেছে শিক্ষার্থীরা। কিশোরগঞ্জে নদীর বুক জুড়ে সবুজের সমারোহ। ডোমারে নববধূঁকে অপহরণের পর ধর্ষণ, গ্রেফতার-২ চট্টগ্রামে উচ্ছেদের মুখে লালদিয়ার চর ছাড়ছেন হাজারো পরিবার।
দ্বিতীয় পর্বের অভিযান শুরু বুড়িগঙ্গা-তুরাগ তীরের ৮৮ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

দ্বিতীয় পর্বের অভিযান শুরু বুড়িগঙ্গা-তুরাগ তীরের ৮৮ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

জিপি ডেস্ক ঃ

বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ নদীতীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে দ্বিতীয় পর্বের অভিযান শুরু হয়েছে। অভিযানের প্রথম দিন গতকাল মঙ্গলবার এই দুটি নদীর তীর থেকে ৮৮টি ছোট-বড় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)।

গতকাল সকাল ৯টায় রাজধানীর পশ্চিম হাজারীবাগের বুড়িগঙ্গা তীরবর্তী বছিলা ব্রিজের নিচে থেকে এ উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু হয়। বিআইডব্লিউটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে বিকেল ৪টা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে বছিলা ও কেরানীগঞ্জের মধ্যেরচর এলাকা থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ কিংবা অপসারণ করা হয়।

প্রথম দিনের অভিযানে এসব এলাকা থেকে ২৮টি পাকা ভবন, ২২টি আধাপাকা ভবন, ৩১টি সীমানা প্রাচীর (সাড়ে ১০ একর) এবং ৭টি টিন ও টঙঘর মিলিয়ে ৮৮টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদ হওয়া পাকা ভবনের মধ্যে রয়েছে ৫টি তিনতলা, ৪টি দুইতলা এবং ১৯টি একতলা ভবন। অভিযানের দ্বিতীয় দিন আজ বুধবার সকাল ৯টায় বছিলা এলাকা থেকেই আবারও উচ্ছেদ অভিযান শুরু হবে।

প্রথম দিনের উচ্ছেদ অভিযান পরিদর্শনে আসেন বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমডোর এম মাহবুব-উল ইসলাম, পরিচালক (বন্দর) শফিকুল হক, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মনিরুজ্জামান এবং বিআইডব্লিউটিএর অতিরিক্ত পরিচালক (বন্দর) মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম।

দ্বিতীয় পর্বের এই উচ্ছেদ অভিযান চলবে চারটি পর্যায়ে ২৮ মার্চ পর্যন্ত। এর মধ্যে প্রথম পর্যায়ের অভিযান চলবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। এ ছাড়া দ্বিতীয় পর্যায়ে ১২ থেকে ১৪ মার্চ, তৃতীয় পর্যায়ে ১৯ থেকে ২১ মার্চ এবং চতুর্থ ও শেষ পর্যায়ে ২৫, ২৭ ও ২৮ মার্চ অভিযান চালাবে বিআইডব্লিউটিএ।

উচ্ছেদ অভিযানের তত্ত্বাবধানে থাকা বিআইডব্লিউটিএর ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন গতকাল সমকালকে বলেছেন, সদরঘাট থেকে গাবতলী পর্যন্ত বুড়িগঙ্গা ও তুরাগের দুই তীরে যেসব অবৈধ স্থাপনা চিহ্নিত করা হয়েছে, সেগুলোই পর্যায়ক্রমে উচ্ছেদ করা হচ্ছে। যতদিন পর্যন্ত নদীগর্ভ ও নদীতীরের সব ধরনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ না হবে, ততদিন এই অভিযান চলবে।

এর আগে গত ২৯ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চার পর্যায়ে বুড়িগঙ্গা-তুরাগ নদীগর্ভ ও নদীতীরে প্রথম পর্বের উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST