ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
কিশোরগঞ্জে আশ্রয়নের ১৬০ গ্রামের বাসিন্দারা ভাল নেই-জরাজীর্ণ ঘরেই বসবাস

কিশোরগঞ্জে আশ্রয়নের ১৬০ গ্রামের বাসিন্দারা ভাল নেই-জরাজীর্ণ ঘরেই বসবাস

মিজানুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলায় নানা বিপর্যয়ে ভাগ্যবিড়ম্বিত, সহায়, সম্বল ভিটেহীন কিছু মানুষের জন্য আবাসন নিশ্চিত করতে বড়ভিটা ইউপি‘র মেলাবর মৌজার টটুয়ার বারনী নামক স্থানে ৮০ গ্রাম,নিতাই বাড়ি মধুপুরে ৮০টি পরিবারের জন্য আশ্রায়ন প্রকল্প নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু ওই আশ্রায়ন প্রকল্প গুলো নির্মাণের প্রায় দুই যুগ অতিবাহিত হলেও আবাসনের অবকাঠামোগুলো সংস্কার ও মেরামত না করায় অব্যবস্থাপনায়, জরাজীর্ণ, ভাঙ্গা ফুটা ঘরেই গাদাগাদি করে অনেকটাই মানবেতর জীবনযাপন করছেন বসবাসরতরা। এ অবস্থায় তারা সরকারের কাছে আবাসনের ঘর গুলো মেরামতের দাবি জানান। সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৭ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে সরকারি অর্থায়নে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে খাস জমির উপরে এ আশ্রয়ন প্রকল্পগুলো নির্মাণ করা হয়। সরেজমিনে বড়ভিটা মেলাবর আশ্রায়ন প্রকল্প ঘুরে দেখা যায়, ৩ টি ব্যারাকে ৮০টি পরিবারের জন্য নির্মিত আবাসনের ইউনিটগুলোর অধিকাংশ ঘর জরাজীর্ণ, বেড়া, দরজা-জানালা নষ্ট হয়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ঘরের টিনে মরিচা পড়ে ছিদ্র হয়ে গেছে। ছিদ্রগুলো বন্ধ করতে পলিথিন বিছিয়ে তার উপরে ইট চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ইউনিট বেড়া শূন্য অবস্থায় ঘরের উপরে লোহার এঙ্গেলের ফ্রেম ছাড়া আর অবশিষ্ঠ কিছুই নেই। এ অবস্থায় ওই ইউনিট গুলো ছেড়ে চলে গেছেন আশ্রিত বাসিন্দারা। প্রতি ১০টি পরিবারের জন্য ৮টি টিউবওয়েল, ৮টি শৌচাগার স্থাপন করা হলেও সংস্কারের অভাবে সে গুলো সম্পূর্ণ পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। ওই প্রকল্পের বাসিন্দা শহিদুল, জোবেদ বলেন, তৎকালিন সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভূমিহীনদের পূর্ণবাসনের জন্য আশ্রয়ন প্রকল্প নির্মাণ করে দেন। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় ঘরগুলোর টিনের চালা ফুটো হয়ে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ঘরের মধ্যে থাকতে পারিনা। বৃষ্টি এলে টিনের চালা দিয়ে হু হু করে পানি পড়ে। পানি ঠেকাতে হাড়ি, পাতিল দিয়েও কোন লাভ হয় না। বর্ষাকালে স্ত্রী, সন্তানসহ গরু, ছাগল নিয়ে দুর্দশার অন্ত থাকে না এবং শীতেও হাড় কাপনি ঠান্ডা লাগে। আমরা নানা সমস্যার মধ্যে থাকলেও সমাধানের কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। আবাসন প্রকল্পের সভাপতি আনোয়ার হোসেন জানান, আশ্রয়ন প্রকল্প নিমার্ণের পর থেকে এ অবধি কোন সংস্কার করা হয়নি। ইতোঃমধ্যে আশ্রয়ন প্রকল্পের অনেক পরিবার অতি কষ্টে জরাজীর্ণ ঘর ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন। বর্তমানে অধিকাংশ পরিবার ভাঙ্গাচোরা ঘরে রোদ, ঝড়-বৃষ্টি, শীতকে উপেক্ষা করে কোন রকমে বেঁচে আছেন।নিতাই বাড়ীমধুপুর ৮০ গ্রামের সভাপতি ফেরেজুল জানান, আশ্রয়ণ প্রকল্পের আবাসনের ইউনিটগুলোর জরাজীর্ণ হয়ে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতে ঘরের মেঝে পানিতে একাকার হয়ে যায়। অপরদিকে আবাসনের স্থাপনকৃত মসজিদ,টিউবওয়েল,শৌচাগারগুলো পরিত্যক্ত হয়ে পড়েছে।এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রোকসানা বেগম জানান,ওই আশ্রয়ন প্রকল্প ২টি পরিদর্শন করা হয়েছে। আশ্রয়ন প্রকল্পগুলো নির্মাণের প্রস্তাবনা ২/৩ দিনের মধ্যে মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হবে।পরবর্তীতে যে সিদ্ধান্ত আসবে সে মোতাবেক কাজ করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST