ঘোষনা:
শিরোনাম :
আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী খাগড়াছড়িতে ৭ম টিআরসি ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী নীলফামারীর ডিমলায় মাদকদ্রব্যের রোধকল্পে কর্মশালা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে রায়পুরায় কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত,৩ আহত ৫ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৭০ জন  জলঢাকা পৌরসভার ৭৯ কোটি ৭৯ লক্ষ ১ হাজার ৭ শত ৩০টাকার বাজেট ঘোষনা কিশোরগঞ্জে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণে কর্মশালা
ঘুঘু পাখির অভয়ারণ্য,সৈয়দপুর রেলওয়ে পুলিশ সুপারের বাসভবন।

ঘুঘু পাখির অভয়ারণ্য,সৈয়দপুর রেলওয়ে পুলিশ সুপারের বাসভবন।

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
গোলঘরে বসতে পারছেন না। লিচু বাগানেও কীটনাশক স্প্রে করতে পারছেননা । প্রচন্ড গরমে এসি বন্ধ করে ঘুঘু পাখিদের নিরাপদ আবাস গড়েছেন,সৈয়দপুর রেলওয়ে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) সিদ্দিকী তাঞ্জিলুর রহমান। কারণ এ সব জায়গায় ৩০টি বাসা গড়েছে ঘুঘু পাখি। ওই পাখিরা যাতে স্বস্তিতে ডিম পাড়তে পারে এজন্য বাসভবন ও এর প্রাঙ্গণ জুড়ে কড়া সতর্ক নজর রেখেছেন তিনি।
নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের রেলওয়ে অফিসার্স কলোনিতে প্রায় ২ একর জমির ওপর বিশাল বাসভবন পুলিশ সুপারের। এর দক্ষিণে রেলওয়ে অফিসার্স ক্লাব। আর পূর্বপাশে দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্বাবধায়কের (ডিএস) বাসভবন। মাঝে বিমানবন্দর সড়ক। ওই বাসভবনে স্ত্রী সন্তানসহ পুলিশ সুপারের বসবাস। ভবনের পুরো প্রাঙ্গণ জুড়ে মনোরম বাগান। সেখানে রয়েছে বেশকিছু লিচু গাছ। ভবনের সামনে গোলঘর, গেট, লিচু বাগান, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের কুলার সবখানে বাসা বেধেছে ঘুঘু পাখি।
দেখা যায়, পুলিশ সুপার সিদ্দিকী তাঞ্জিলুর রহমান নিজ মনে বাগান পরিচর্যা করছেন। কথা হল তাঁর সাথে। তিনি জানান, ভবনের ৩০টি স্থানে ঘুঘু পাখি বাসা বেধেছে। এর কারনে প্রচন্ড গরম সত্বেও এসি ছাড়তে পাচ্ছি না। পাখিগুলো যাতে নিরাপদে ডিম পাড়তে পারে সেজন্য সব রকম ব্যবস্থা নিয়েছি। তিনি বলেন, আমার সাথে দেখা করতে আসা দর্শনার্থীদের সাথে গোলঘরে বসা হচ্ছে না। কেউ উচ্চস্বরে কথা বলছে না। লিচু বাগানে ফল এসেছে। এসময় কীটনাশক স্প্রে করতে হয় কিন্তু আমি আমার লোকদের তাও মানা করেছি।
পাখিপ্রেমী পুলিশ সুপার হেসে হেসে বললেন, ছেলেবেলায় এয়ারগান দিয়ে কত পাখি মেরেছি। অথচ এখন দেখুন পাখিদের জন্য মায়া হচ্ছে। ওদের নিরাপত্তর কথা ভেবে পরিবারসহ কষ্ট করছি।
সিদ্দিকি তাঞ্জিলুর রহমান বলেন, ঘুঘু পাখির চরম শক্র হচ্ছে তালুয়া পাখি। ওই পাখি যাতে ঘুঘুর ডিম খেয়ে না ফেলে এজন্য বাসভবনে পুলিশ পাহারা বসিয়েছি। পালাক্রমে বিরামহীন খোঁজ রাখছেন তারা। আমি নিজেও এনিয়ে তদারক করছি। প্রচন্ড গরমে কষ্ট পাচ্ছি তাতে কি! আমার বাসভবন এখন ঘুঘু পাখির অভায়রণ্য। এটা কি আনন্দের নয়?
এ নিয়ে কথা হয় পাখি ও পরিবেশবাদী সংগঠন সেতুবন্ধনের সভাপতি আলমগীরের সাথে। তিনি জানান, বিষয়টি আমরা জেনেছি। আমরা সার্বিকভাবে এসপি মহোদয়কে এ নিয়ে সহযোগিতা করতে চাই।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST