ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
নীলফামারী সৈয়দপুরে অনুমোদনহীন লাচ্ছা তৈরির মহোৎসব ।প্রশাসন নিরব।

নীলফামারী সৈয়দপুরে অনুমোদনহীন লাচ্ছা তৈরির মহোৎসব ।প্রশাসন নিরব।

সৈয়দপুরে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরী হচ্ছে।

হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
সৈয়দপুরে ঈদকে সামনে রেখে চলছে অনুমোদনহীন লাচ্ছা সেমাই তৈরির মহোৎসব। আবাসিক এলাকায় গড়ে ওঠা ওসব কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বানানো লাচ্ছা সেমাই জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি বলে আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্যসচেতন ব্যক্তিবর্গ। বিএসটিআই, ফায়ার সার্ভিস ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই এসব কারখানা ব্যাঙ্গের ছাতার মতো যত্রতত্র মৌসুমি কারখানা তৈরী করে প্রকাশ্য চললেও নজরদারী নেই প্রশাসনের।

তৈরী করা লাচ্ছা সেমাই খাবার অযোগ্য টেলু দিয়ে ভাজা হচ্ছে।

প্রতি বছর ঈদকে সামনে রেখে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যাবসায়ী অধিক মুনাফার লোভে সৈয়দপুরে রাতারাতি একাধিক লাচ্ছা সেমাই কারখানা তৈরী করে।নিম্ন মানের উপকরণ দিয়ে বানানো হয় স্বল্প দামী লাচ্ছা সেমাই।কম মূল্যে বাজারে ছেড়ে নিজেরা লাভবান হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন প্রকৃত ব্যবসায়ীরা এবং ঝুঁকির মুখে পড়ছেন সাধারণ জনগণ। নুর লাচ্ছাসহ নামে-বেনামে একাধিক লাচ্ছা সেমাই কারখানা গড়ে ওঠেছে শহর ও গ্রামাঞ্চলে। প্যাকেটের গায়ে থাকছে না উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ। দেখা গেছে, শহরের অদূরে কামারপুকুর ইউনিয়নের ধলাগাছ মতির মোড় এলাকার দু’শ গজ উত্তরে গড়ে তোলা হয়েছে নুর লাচ্ছা সেমাই কারখানা। ওই কারখানার ভিতরে দেখা যায়, এককোণে ফেলে রাখা হয়েছে আবর্জনা। ভনভন করছে মাছি। তার পাশেই স্তুত করে রাখা হয়েছে লাচ্ছার খামির। ওই খামিরের ওপর দিয়ে চলাচল করছে তেলাপোকা। শ্রমিকদের হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক ও পায়ে প্লাস্টিক গামবুট থাকার বিধান থাকলেও বর্তমান করোনাকালীণ সময়ে সামাজিক দুরত্বসহ কোন নিয়ম মানছেনা এসব কারকানার মালিক-শ্রমিক। এছাড়া উৎপাদন কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্ন মানের খোলা পাম নামের খাবারে অনুপযোগী টেলু ওয়েল, ময়দা, চিনি ও ডালডা।
বিএসটিআই এর অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে কারখানার ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম জানান, এখনো অনুমোদন দেয়নি। তারা স্যাম্পল নিয়ে গেছে। পরে ওই কারখানার মালিক এসে বলেন, আমাদের সম্পর্কে আপনাদের যা লেখার আছে, লেখেন। কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করেই আমরা লাচ্ছা সেমাই বানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, নীলফামারীর সহকারি উপ-পরিচালক বোরহান উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি অতিরিক্ত দায়িত্বে আছি। আপনারা স্থানীয় ইউএনও অথবা এসিল্যান্ডের এর সাথে যোগাযোগ করেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারি কমিশনার (ভূমি)’র মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করেও তাদের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST