ঘোষনা:
শিরোনাম :
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি উদভ্রান্তের মত কথা বলছে,চট্টগ্রামে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বানভাসি মানুষের পাসে লিয়ন চৌধুরী নীলফামারীতে মধ্য রাতে মাতলামি; প্রতিবাদ করায় গুরুতর রগকাটা জখম, থানায় এজাহার। নীলফামারীতে এক মাস ব্যাপি পুনাক তাঁত শিল্প ও পণ্য মেলার শুভ উদ্বোধন পাহাড়ে সন্ত্রাস দমনে এপিবিএন’র টহল শুরু শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী
নীলফামারীতে স্থাপনা ভেঙ্গে দেয়ায় অসহায় পরিবারের প্রধানমন্ত্রী বরাবর অভিযোগ।

নীলফামারীতে স্থাপনা ভেঙ্গে দেয়ায় অসহায় পরিবারের প্রধানমন্ত্রী বরাবর অভিযোগ।

মোঃ হারুন উর রশিদ, স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীতে দীর্ঘ ১ শত বছর ধরে ভোগদখলীয় পৈত্রিক জমির উপর ঘর-বাড়ি, বাঁশঝাড়, গাছপালা ভেঙ্গে ঘর নির্মাণ কাজ শুরু করার অভিযোগ উঠেছে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এলিনা আকতারের উপর।

অবৈধভাবে ঘর নির্মাণ করায় এলাকার অসহায় দরিদ্র ১৩ টি পরিবারের শিশু সহ প্রায় দেড় শতাধিক মানুষ এখন ভূমিহীন। কাজে বাঁধা দিলে জমির মালিকদের বিভিন্ন মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে কাজ চালিয়ে যান তিনি।

এমনটাই অভিযোগ সদর উপজেলার চড়াইখোলা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড পশ্চিম কুচিয়ামোড় (শাহ্পাড়া) এলাকার অসহায় দরিদ্র ভূমিহীন ১৩ টি পরিবারের। কুল-কিনারা হারিয়ে নিরুপায় হয়ে জমি ফেরতের আশায় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর অনলাইনে অভিযোগ করেছেন তারা।

এছাড়াও মাটি ও মানুষের নেতা নীলফামারী ০২ আসনের সাংসদ ও সাবেক সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুরকে একটি অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী অসহায় দরিদ্র পরিবারগুলি।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পশ্চিম কুচিয়ামোড় (শাহ্পাড়া) এলাকার জে, এল নং-৯৬, খতিয়ান নং- সি. এস ৯৩২/১, এস. এ দাগ নং- ২৬০১, বি. এস দাগ নং-৩৮৬৭ এর ৮২ শতক জমিতে অবৈধ ভাবে ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। অথচ উক্ত খতিয়ানে ওই ১৩ টি পরিবারের পূর্ব পুরুষ কেবারতুল্লাহ, পিতা- আমানতুল্লার নামে চূরান্ত প্রচারিত আছে। তাই তপশীল বর্ণিত সম্পত্তিতে বংশানুক্রমে দীর্ঘ ১ শত বছর ধরে বসবাস করে আসছেন পরিবারগুলি। জমি হারিয়ে নীলফামারী সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মমলা করার পরে মহামান্য আদালতের পাঠানো কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়ার পরও অনায়াশে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে নির্বাহী অফিসার সহ তার সহকারী কমিশনার (ভূমি)।

অবৈধভাবে ঘর নির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এলিনা আকতারের সাথে মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি মুঠোফোন তুলেন নাই।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST