ঘোষনা:
শিরোনাম :
শিক্ষক হত্যা ও কলেজ অধ্যক্ষকে নির্যাতনের প্রতিবাদে নীলফামারীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান। আওয়ামীলীগ হিন্দুদের দল, ভারতের চর এসব ট্যাবলেটে এখন আর কাজ হয়না,তথ্যমন্ত্রী হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ৬ বছর পূর্তিতে,কূটনীতিকরা নিহতদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা বিকেএসপিতে ব্লু খেতাব অর্জন,দেশসেরা নারী আরচার নীলফামারীর দিয়া সিদ্দিকী জাতি হিসেবে আমাদের সক্ষমতাকে সবসময় অবমূল্যায়ন করে সমালোচকরা বললেন,প্রধানমন্ত্রী খাগড়াছড়িতে ৭ম টিআরসি ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী নীলফামারীর ডিমলায় মাদকদ্রব্যের রোধকল্পে কর্মশালা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে রায়পুরায় কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত,৩ আহত ৫ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৭০ জন  জলঢাকা পৌরসভার ৭৯ কোটি ৭৯ লক্ষ ১ হাজার ৭ শত ৩০টাকার বাজেট ঘোষনা
২০১৯ সাল থেকেই বনানীর বাসায় আনভীর রেখেছিল মুনিয়াকে।

২০১৯ সাল থেকেই বনানীর বাসায় আনভীর রেখেছিল মুনিয়াকে।

সুভ কামাল,

অনেকেই বলছেন আনভীর সোবহানের শিকার মেয়েটার বাবা মা কেন তার খোঁজ খবর রাখলো না, কেউ কেউ তার বাবা মা’র শাস্তিও চেয়েছেন। তাদের অবগতির জন্য জানাচ্ছি মেয়েটার বাবা মা কেউ বেঁচে নেই। খুব সুন্দর একটা পরিবার ছিল তাদের যখন তার বাবা মা বেঁচে ছিলেন, এলাকাবাসীই বলেছেন সে কথা।
মেয়েটার ভাই তার পরিবার নিয়ে আলাদা, বোনেরও বিয়ে হয়ে গেছে। একা একটা মেয়ে, তার বয়স যখন ষোল বা সতের তখনই সে আনভীরের পাল্লায় পরে। ২০১৯ সাল থেকেই বনানীর একটা বাসায় আনভীর রেখেছিল মেয়েটাকে।
ভেবে দেখুন, আপনার বয়েস ষোল বা সতের, মাথার উপর কোন ছায়া নেই, যাওয়ার কোন জায়গা নেই, তখন যদি মিষ্টি হেসে কেউ স্বপ্ন দেখাতো তবে আপনি কি করতেন।
আনভীর লোভ দেখিয়েছিল তাকে বিয়ে করবে। সে কোন সাধারণ পতিতার মত দেহ বিক্রি করতে যায়নি, সে চেয়েছিলো স্বীকৃতি পেতে। আনভীর বলেছিল সে তাকে বিদেশে রাখবে বিয়ে করে। প্রেম ওই বয়েসী সবাই করে। তার পরিস্থিতি বিবেচনায় হয়তো সে ওই বয়েসী কারো সাথেই প্রেম করেছিল ভবিষ্যতের নিশ্চয়তার আশায়।
ফোন রেকর্ডিংটা শুনেছেন? মেয়েটা অঝোরে কাঁদছিল। আনভীরের মুখের ভাষা শুনেছেন? মেয়েটি আনভীরের কাছে ছিল কেবলই একটা সংখ্যা, যেকোন একটি কম বয়েসী শিকার। কিন্তু আনভীর ছিল মেয়েটার একমাত্র নির্ভরতার জায়গা।
প্রয়োজন যখন ফুরিয়েছে তখন আনভীর তাকে মা*ী বলে ডাকছে। মেয়েটি যদি অন্য একটা লোভী দেহ বিক্রয়কারী হতো সে রূপের ঝলক দেখিয়ে অন্য এক খদ্দের খুঁজতো। রক্ষিতাদের ছুঁড়ে ফেলার সময় সব রক্ষকই এমন চুরির অপবাদ দেয়। মেয়েটি দুই নম্বর লাইনের হলে সিগন্যাল বুঝে তখনই অন্য খদ্দেরের কাছে যেত, এই মিষ্টি মেয়েটা বুঝেছিল তার আসলে আর যাওয়ার কোন জায়গা নেই। সে তার বোনকে ফোনে বলেছিল আনভীর তাকে ব্যবহার করেছে, সে আসলে তাকে বিয়ে করবে না!
মেয়েটার জায়গায় একবার নিজেকে কল্পনা করুন, আপনার বয়েস বিশ বা একুশ, আপনার যাওয়ার কোন জায়গা নেই, নেই কোন আশ্রয় দেয়ার মত আপনজন, তার উপর একজন আপনাকে পঞ্চাশ লক্ষ টাকা চুরির অপবাদ দিচ্ছে, ক্ষমতাশালী লোকটা আপনাকে পুলিশে দেয়ার হুমকি দিচ্ছে। তার উপর আছে বিশ্বাসভঙ্গের বেদনা। আপনি আত্মহত্যা না করে কি করতেন আসেন আলোচনা করি!
আনভীরের মুখের ভাষা শুনেছেন? যতই সে রাজপ্রাসাদে থাকুক, যতই এমডি হোক, যতই সে দামী সাংবাদিক পুষুক, রাষ্ট্রদূতদের তার বাসায় দাওয়াত দিয়ে খাওয়াক, তার পরিচয় তার ভাষা’ই। তার উত্থান আসলে সে রকম পরিবার থেকেই হয়েছে। বসুন্ধরা গ্রুপটা এত বড় কিভাবে হয়েছে কখনো নিজেকে প্রশ্ন করেছেন?
ঢাকা শহরে আর আশেপাশে বসুন্ধরার যত প্রজেক্ট সব হয়েছে সাধারণ মানুষের জায়গা দখল করে। তারা সেসব জায়গার আসল মালিককে লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে তাড়িয়ে দিয়ে জায়গা দখল করেছে। জমির মূল্য দশ লাখ টাকা হলে বিশ হাজার টাকা দিয়ে বলেছে বেঁচে থাকতে চাইলে পালা, ঘাউড়া কেউ হলে তাকে মামলা দিয়ে বছরের পর বছর ঘুরিয়েছে নইলে প্রাণেই মেরে ফেলেছে। জায়গার মালিক খুব ক্ষমতাশালী কেউ হলে সে তাদের বলেছে আমরা জায়গাটার উন্নয়ন করেছি, এখন জমির দামের ৬০% আপনি রাখেন, বাকিটা আমাদের দিয়ে দেন, যদিও এমন জমি খুবই কম যা তারা ন্যায্য দাম দিয়ে কিনেছে। এভাবে জোর করে দখল করেই বসুন্ধরার প্রত্যেকটা প্রজেক্ট হয়েছে। হ্যাঁ, আনভীরের মুখে যে ভাষা শুনেছেন, জায়গা দখলে সেসব ভাষা প্রায় সবক্ষেত্রে ব্যবহার করেছে তাদের বাবাও।
বসুন্ধরা আর বারিধারার মাঝের জায়গাটার নাম শ্যাওড়া। সেখানে অনেক আড্ডা দিয়েছি, বসুন্ধরার জায়গার আদি মালিকদের অনেকেই এখনো সেখানে থাকেন। তাদের সাথে বসুন্ধরায় গিয়েছি, তারা দেখিয়েছিলেন কোথায় তারা আলু চাষ করতেন, কোথায় টমেটো চাষ করতেন। বসুন্ধরার যে মেইন গেইট যমুনা ফিউচার পার্কের পাশ দিয়ে, সেই রাস্তাটার দখল নিতে লাঠিয়াল বাহিনীর সংঘর্ষে এক দিনে সেই এলাকার ২২ জন মানুষ নিহত হয়েছিলেন। একটু কান পাতলে শুনতে পাবেন সেসব প্রজেক্টের কত হাজার হাজার আদি মালিক আজো তাদের অভিশাপ দেয়।
মিষ্টি বালিকা মুশরাতের হাহাকার হয়তো সেইসব জমির মালিকদের হাহাকারের মতোই শূন্যে মিলিয়ে যাবে। কারন সোবহানদের লাঠিয়াল বাহিনী আছে, আইন-সরকার-বিচার ব্যবস্থা-সাংবাদিক তাদের পকেটেই থাকে। কোনকিছুই তাদের স্পর্শ করতে পারেনি, পারবেও না, গায়েই লাগবে না তাদের, দিনে দিনে তারা সভ্য সমাজে বড় জায়গা করে নিয়েছে। দেখতে তাদের এখন ভদ্রলোকের মতই লাগে। শুধুমাত্র তাদের ভাষা আর ব্যবহার কখনো তাদের ছেড়ে যাবেনা, সেগুলো তাদের রক্তে মিশে থাকবে…
কি মিষ্টি মেয়েটা ছিল, বাংলাদেশের অন্যতম খারাপতম একটা লোকের কুৎসিৎ ব্যবহার দেখে দেখে তার মরে যেতে হলো, তার জন্য থাকলো একরাশ সমবেদনা। অন্য জীবনে সে সুখী হোক, তার স্বজন প্রিয়জন তার পাশে থাকুক…”
ফেসবুক থেকে নেয়া,লিখেছেন: Shuvo Kamal,





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST