ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা।

কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা।

কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)প্রতিনিধি,
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায়  ভিজিএফ কর্মসূচীর আওতায় ভিজিএফ কার্ডের বিপরীতে আর্থিক সাহায্য বিতরণের তালিকা প্রস্তুত না হওয়ায় পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার আশংখা প্রকাশ করেছেন সুবিধাভোগীরা। এবারে সরকার চালের পরিবর্তে প্রতিটি পরিবারের মাঝে ৪শত ৫০ টাকা করে দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন উপজেলা প্রশাসন।’
এদিকে সরকারী পরিপত্র মোতাবেক জনসংখ্যার ভিত্তিতে প্রতিটি ওয়ার্ডে কার্ড বিতরণ করার নিয়ম থাকলেও তা না করায় নিতাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান ফারুকের বিরুদ্ধে উপজেলা নিবার্হী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন খোদ ওই ইউনিয়নের ৬,৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যগণ।
ফলে করোনাকালে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে টাকা বিতরণ না হলে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হবে ৫৬ হাজার ৫শ ৪৭ টি পরিবার।
উপজেলা নিবার্হী অফিসারের কাযার্লয় সুত্রে জানা গেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নে পবিত্র ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে ভিজিএফ কর্মসুচীর আওতায় ৫৬ হাজার ৫৪৭ টি পরিবারের বিপরীতে কার্ড প্রতি ৪৫০ টাকা হারে মোট  ২ কোটি ৫৪ লক্ষ ছয়চল্লিশ হাজার ১৫০ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।
সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী প্রতিটি ইউনিয়নের কার্ডধারীদের তালিকা প্রস্তুত করে উপজেলা নিবার্হী অফিসার বরাবর তালিকা  প্রেরণ করার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত কোন কোন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তালিকা জমা করতে পারেননি।
নিতাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুকুজ্জামান ফারুক বলেন, আমি আমার ইউনিয়নের সকল ইউপি সদস্যদের ডেকে রেজুলেশনের মাধ্যমে ওয়ার্ড ভিত্তিক  কার্ড বিভাজন করেছি কিন্তু তারা তা মানছেনা সেকারণে তালিকা দিতে বিলম্ব হচ্ছে।
বড়ভিটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সভাপতি ফজলার রহমান বলেন, বিদ্যুৎ না থাকা, কম্পিউটারের নেটের সমস্যা এবং ছবিসহ আইডি কার্ড প্রস্তুত করতে অনেক সময় প্রয়োজন তাই তালিকা দিতে দেড়ি হচ্ছে।
উপজেলা নিবার্হী অফিসার রোকসানা বেগম সুবিধাভোগীদের তালিকা না পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে খুব দ্রুত তালিকা নিয়ে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগেই আর্থিক সাহায্য প্রদান করা হবে।
ইউপি সদস্যদের লিখিত অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, জনসংখ্যার ভিত্তিতে বিভাজন করার জন্য প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদেরকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম বারী পাইলট বলেন, গত বছর পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের সময় তালিকা তৈরীতে দেড়ি হওয়ার কারণে ঈদের আগে অনেক ইউনিয়ন পরিষদ চাল বিতরণ শেষ করতে না পারায় অনেক অসহায় পরিবার ঠিকমতো ঈদ করতে পারেনী। এবার সে পুনরাবৃত্তি হতে দেয়া যাবেনা। ঈদের আগেই কিভাবে বিতরণ শেষ করা যায় সেজন্য জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST