ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে একদিনে করোনায় হাজার পেরিয়ে শনাক্ত নীলফামারীর সৈয়দপুরে কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ডিমলায় গাড়ী চালক শ্রমিকদের মাস্ক পড়তে সচেতনতামুলক মতবিনিময় নীলফামারীতে ট্রাকের চাকায় পিষ্টে,নারী পোশাক কর্মীর মৃত্যু চট্টগ্রামে গনধর্ষণের পর হত্যা, মামলায় ১ জনের মৃত্যুদন্ড চট্টগ্রামে দুদকের মামলায় দুই রাজস্ব কর্মকর্তা কারাগারে নীলফামারীতে শীতের তীব্রতায় দুর্ভোগ,সূর্যের দেখা মিলবেনা সারাদিন বাংলাদেশের অগ্রগতির অদম্য গতি কেউ থামাতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী গভীর রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত দুই নীলফামারীতে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় শিশু নিহত
নীলফামারীতে প্রশাসনের হুমকীতে গলায় দড়ি দিয়ে বৃদ্ধের আত্নহত্যার অভিযোগ উঠেছে।

নীলফামারীতে প্রশাসনের হুমকীতে গলায় দড়ি দিয়ে বৃদ্ধের আত্নহত্যার অভিযোগ উঠেছে।

ভূমীহীন কছর উদ্দিনের কবরের পাশে বসে আছে ছেলে শরিফুল।

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীতে কবুলিয়ত জমিতে বসত ঘর নির্মাণ করায় প্রশাসনের হুমকীতে ৬০ বছর বয়সের কছর উদ্দিন নামে এক ভূমিহীন অসহায় বৃদ্ধের গলায় দড়ি দিয়ে আত্নহত্যার করার অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে সদর উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া এলাকায়। কছর উদ্দিন ওই এলাকার মৃত নজমুদ্দীনের ছেলে।

এলাকাবাসী সূত্রে যানা যায়, বিগত ১৫/০৭/১৯৯০ সালে ১২১৭৭ নং কবুলিয়ত দলিল মূলে রামনগর ডাঙ্গাপাড়া এলাকায় বাজার সংলগ্ন ০১ খতিয়ানের ৩২১৭ দাগে ৪০ শতক খাস জমির লিজ পান মৃত কছর উদ্দিন। সেইথেকে ওই জমিতে ঘর বাড়ি নির্মাণ সহ ভোগদখলে ছিলেন তিনি। কিন্তু গুচ্ছগ্রাম করার জন্য পাশের খাস জমির সাথে তহসিলদার মোক্তার সহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এলিনা আকতার ও সদর সহকারী ভূমী কমিশনার তার জমিটিও অধিগ্রহণ করেন। এরপর বিভিন্ন সময় তহসিলদার, সহকারী ভূমী কমিশনার ও নিবার্হী অফিসার তার বাড়ি ভাঙ্গার হুমকী দিয়ে থাকে।

এলাকার নুর ইসলাম বলেন, মৃত কছর উদ্দিনের বসবাসের স্থান হিসেবে ওই জমিটি ছাড়া আর কোন জমিই নেই। তাই ওই জমিতে দুটি ঘর করে কোন রকমে পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন তিনি। কিন্তু প্রশাসনের বার বার চাপের কারণে আজ তার মৃত। আমরা এলাকাবাসী হিসেবে এর সঠিক বিচার চাই।

মৃত কছর উদ্দিনের ছেলে শরিফুল ইসলাম বলেন, আমরা অসহায় দরিদ্র মানুষ। মাথা গোঁজার জন্য তীল পরিমাণ জমিও নাই। কবুলিয়ত মূলে আমার বাবার লিজ পাওয়া ওই জমিতে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে কোনরকমে জীবন যাপন করছি। কিন্তু গুচ্ছগ্রাম করার জন্য পাশের খাস জমির সাথে তহসিলদার, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সদর সহকারী ভূমী কমিশনার আমার বাবার নামে কবুলিয়ত জমিটিও অধিগ্রহণ করেন। মাথা গোঁজার ঠাঁই না থাকায় তহসিলদারের সাথে পরামর্শ করলে তিনি আমার কাছে ১ লক্ষ টাকা দাবী করেন। ধার দেনা করে ৫০ হাজার টাকা তাকে দেই। টাকা নেওয়ার পরেও শুরু হয় এই তিন সরকারী কর্মকর্তার হুমকী। বার বার বাড়ি ভাঙ্গার হুমকী ও জেল জরিমাণার ভয়ে আমার বাবা আজ নেই। আমি আমার বাবার মৃত্যুর বিচার চাই।

৫০ হাজার টাকা গ্রহণ ও হুমকী দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে রামনগর ইউনিয়েনের সহকারী ভূমী কর্মকর্তা বিষয়টি অস্বিকার করেন বলেন, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কাজ করা হচ্ছে।

এবিষয়ে সদর উপজেলা নিবার্হী অফিসার এলিনা আকতারের সাথে কথা হলে তিনি হুমকী দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, তাকে অন্য দাগে জমি দেওয়ার কথা হয়েছিলো। এরমধ্যেই তিনি কি কারণে আত্নহত্যা করেছেন তা আমার জানা নাই এবং তহসিলদারকে টাকা দেওয়ার বিষয়য়ে আমাকে কোন অভিযোগ করেননি।

আত্নহত্যার বিষয়ে জানতে চাইলে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রউপ বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে একটি ইউডি মামলা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST