ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে একদিনে করোনায় হাজার পেরিয়ে শনাক্ত নীলফামারীর সৈয়দপুরে কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ডিমলায় গাড়ী চালক শ্রমিকদের মাস্ক পড়তে সচেতনতামুলক মতবিনিময় নীলফামারীতে ট্রাকের চাকায় পিষ্টে,নারী পোশাক কর্মীর মৃত্যু চট্টগ্রামে গনধর্ষণের পর হত্যা, মামলায় ১ জনের মৃত্যুদন্ড চট্টগ্রামে দুদকের মামলায় দুই রাজস্ব কর্মকর্তা কারাগারে নীলফামারীতে শীতের তীব্রতায় দুর্ভোগ,সূর্যের দেখা মিলবেনা সারাদিন বাংলাদেশের অগ্রগতির অদম্য গতি কেউ থামাতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী গভীর রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত দুই নীলফামারীতে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় শিশু নিহত
ডোমার ইউনিয়ন পরিষদের গাছের আম নিয়ে,মা-ছেলেকে মারধরের অভিযোগ

ডোমার ইউনিয়ন পরিষদের গাছের আম নিয়ে,মা-ছেলেকে মারধরের অভিযোগ

গাছের আম নিয়ে,মা-ছেলেকে পিটানোয় হাসপাতালে ভর্ত্তি

রতন কুমার রায়,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদের গাছের আম পারানোর কারণে পাঙ্গা মটুকপুর ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম এন্দার লোকজন শাহিন কবির নামের এক দোকানদার ও তার মাকে রাস্তায় ফেলে বেধরক মারধরের অভিযোগ উঠেছে।আজ সোমবার সকাল ১১ টার দিকে পাঙ্গা চৌপথি মোড়ে এ ঘটনাটি ঘটে। তবে মারামারিটি তাদের পরিবারিক বলে ইউপি চেয়ারম্যান দাবী করেছে।
শাহিন কবির (৩০) ও তার মা শেরিনা বেগম(৪৮) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
শাহিন কবির অভিযোগ করে বলেন, পাঙ্গা মটুকপুর ইউনিয়ন পরিষদের পাশে আমার পানের দোকানের সাথে লাগোয়া একটি আম গাছ রয়েছে। সকালে ওই গাছ হতে আমার ছোট ভাই শাহজাদা তালেব শুভ কয়েকটি আম পারে। ছোট ভাই ইউনিয়ন পরিষদের আম কেন পারিয়েছে আমার কাছে জানতে চেয়ে চেয়ারম্যানের গাড়ি চালক আব্দুল মতিন আমাকে মারধর শুরু করে। আমি দৌঁড় দিয়ে আমার দোকানের ভিতরে ঢুকে ঝাপ লাগিয়ে দেই। দোকান থেকে বের না হলে আমাকে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয় মতিনসহ কয়েকজন। ভয়ে আমি ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেই। পুলিশ এসে আমাকে দোকানের ভিতর থেকে বের করে দেয় ও গন্ডোগোল করতে সবাইকে নিষেধ করে চলে যায়। কিছুক্ষন পর এমদাদুল চেয়ারম্যানের সামনে মতিনসহ কয়েকজন আমাকে বলে, তোর এতো বড় সাহস তুই চেয়ারম্যানকে বাদ দিয়ে ৯৯৯ এ খবর দিস। তারপর তারা আমাকে মারধর করতে শুরু করে। আমি রাস্তায় পড়ে গেলে আমার মা আমাকে জড়িয়ে ধরে। তারা আমার মাকেও লাথি মারতে থাকে। এসময় এলাকাবাসী আমাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।
আমার বাড়ী আমার খামারের মাঠ সহকারী সনাতন রায় বলেন, পাঙ্গা চৌপথি মোড়ে কয়েকজন এক নারী ও এক ছেলেকে বেধরক মারধর করতেছিল। আমি তাদের বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করি। এসময় মতিনের বাবা আব্দুর রশিদ আমার মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে আমাকেও মারধর শুরু করে।
অভিযুক্ত আব্দুল মতিন বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের কাঁচা আম পারাতে আমি নিষেধ করায় শাহিন কবির আমার নাখে ঘুষি মারে। আমি কাউকে মারধর করি নাই।
এ বিষয়ে পাঙ্গা মটুকপুর ইউপি চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম এন্দা বলেন, আসলে বিষয়টা ওদের পারিবারিক গন্ডোগোল। মারামারির সময় আমার বাড়ি আমার খামারের সনাতন রায় ছবি তুলতেছিল। তাই ওর মোবাইল একজন কেড়ে নেয়। ওই মারামারিতে আমার কোন হাত নেই।
ডোমার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজার রহমান জানান, অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST