ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে একদিনে করোনায় হাজার পেরিয়ে শনাক্ত নীলফামারীর সৈয়দপুরে কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ডিমলায় গাড়ী চালক শ্রমিকদের মাস্ক পড়তে সচেতনতামুলক মতবিনিময় নীলফামারীতে ট্রাকের চাকায় পিষ্টে,নারী পোশাক কর্মীর মৃত্যু চট্টগ্রামে গনধর্ষণের পর হত্যা, মামলায় ১ জনের মৃত্যুদন্ড চট্টগ্রামে দুদকের মামলায় দুই রাজস্ব কর্মকর্তা কারাগারে নীলফামারীতে শীতের তীব্রতায় দুর্ভোগ,সূর্যের দেখা মিলবেনা সারাদিন বাংলাদেশের অগ্রগতির অদম্য গতি কেউ থামাতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী গভীর রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত দুই নীলফামারীতে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় শিশু নিহত
সৈয়দপুরে মামলা তুলে নিতে প্রাণনাশের হুমকির, সংবাদ সম্মেলন

সৈয়দপুরে মামলা তুলে নিতে প্রাণনাশের হুমকির, সংবাদ সম্মেলন

প্রাণনাশের হুমকির, সংবাদ সম্মেলন

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
আমেরিকা প্রবাসী প্রকৌশলী ও পরিবারের বিরদ্ধে যৌতুকের মামলা করায় গৃহবধূকে মামলাটি তুলে নিতে চাপ ও হত্যার হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ক হয়েছে। শুক্রবার রাতে (২৮ মে) শহরের বাঁশবাড়ি বাবার বাড়িতে ওই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে গৃহবধূর পরিবার।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নির্যাতিত গৃহবধূ নাভানা শারমিনের (অনন্যা) বাবা ব্যবসায়ী এজাজুল ইসলাম বাচ্চু। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আমেরিকা প্রবাসী প্রকৌশলী নাশীঈদ আরেফুল হক (৩০) বিগত ২০১৭ সালের ৬ সেপ্টেম্বর বিয়ে করেন সৈয়দপুর শহরের বাঁশবাড়ি মহল্লার ব্যবসায়ী এজাজুল ইসলাম বাচ্চুর ছোট্ট মেয়ে নাভানা শারিমন (অনন্যা) কে। এর আগে ওই প্রকৌশলী দুটি বিয়ে করলেও তা গোপন করেন। বিয়ের পর কিছুদিন সম্পর্ক স্বাভাবিক ছিল। এরপর যৌতুকের দাবিতে কারণে-অকারণে শারিরীক ও মানষিক নির্যাতন চালিয়ে যান ওই প্রকৌশলী। এক পর্যায়ে তিনি স্ত্রীকে রেখে আমেরিকা পাড়ি জমান।
নাভানা ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে শ্বশুর বাড়িতে সংসার করতে থাকেন। পরে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে দেশে আসেন এবং স্ত্রীকে জানান, আমেরিকায় ফ্ল্যাট বাড়ি তৈরির জন্য ৭৫ লাখ টাকা প্রয়োজন তার। ওই টাকা দেওয়া না হলে স্ত্রীকে আমেরিকা নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দেন। ওই টাকা নাভানা বাবার বাড়ি থেকে আনতে পারবেন না বলে জানিয়ে দেন। স্ত্রীকে রেখে আমেরিকা গেলে ছেলের উস্কানিতে শ্বশুর-শাশুড়ি নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেন।
নাশীঈদ আমেরিকা থেকে মুঠোফোনে জানান, ঈদ করতে দেশে আসছেন তিনি। গত ৫ মে তাঁর শ্বশ্বুর ও শাশুড়ি নিজে এসে বাবার বাড়ি থেকে নাভানাকে শ্বশুরবাড়ি মুন্সিপাড়ায় নিয়ে যান। কিন্তু নাশীঈদ আর দেশে ফিরেনি। নাশীঈদের বাবা-মা যৌতুকের দাবি জোরালো করে। গত ১০ মে ছিল ২৭ রমজান। সারাদিন রোজা ছিলেন নাভানা। ইফতারের পর শ্বশুর আমিনুল হক, শাশুড়ি নার্জিজ বানু ও আত্বীয় নূরুন্নবী ওরফে দুখু মিয়া মিলে বেধড়ক লাঠিপেটা করেন নাভানাকে। এতে মুমূর্ষ হয়ে পড়েন তিনি। তাঁর আত্মচিৎকারে প্রতিবেশি সামিউল ইসলাম উদ্ধারে এগিয়ে আসেন। কিন্তু তাঁকে অপমান করে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। নাভানার বাবা-মাকে মুঠোফোনে খবর দেওয়া হলে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় গত ১৬ মে নাভানা বাদী হয়ে বিজ্ঞ নারী ও শিশু ভার্চুয়াল আদালতে স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়িসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। ওঈ মামলা প্রত্যাহার জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে এমনকি প্রাণনাশের হুমকিও দেওয়া হচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নাভানা কেঁদে কেঁদে বলেন, আমি নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি। বাধ্য হয়ে শ্বশরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছি। আমি প্রতারণাকারীদের মুখোচ উম্মোচন করতে চাই, চাই সুষ্ঠু বিচার।
এ প্রসঙ্গে আমিনুল হক বলেন, যে অভিযোগ করা হয়েছে তা অদৌ সত্য নয়। আদালতে মামলা মোকাবেলা করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST