ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
ডোমারে ফুল ছেঁড়ায় শিশুকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ

ডোমারে ফুল ছেঁড়ায় শিশুকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ

ফুল ছেঁড়ায় আহত ৩য় শ্রেণির ছাত্রী হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন

রতন কুমার রায়-স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর ডোমারে গাছের ফুল ছেঁড়ার কারণে আরফিন জাহান রিয়া (১০) নামের ৩য় শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে প্রভাষক হাসেম আলীর বিরুদ্ধে। শনিবার দুপুরে উপজেলার পাঙ্গামটুকপুর ইউনিয়নের দক্ষিন মটুকপুর কাজীপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। শিশুটি বর্তমানে গুরুতর অসুস্থ্য অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। রিয়া ওই এলাকার পশু চিকিৎসক আসাদুজ্জামান আসাদের কন্যা। হাসেম আলী ডিমলা জনতা কলেজের প্রভাষক ও একই এলাকার কাজী মকবুল হোসেনর ছেলে। শিশুটির বাবা রাতে ডোমার থানায় একটি অভিযোগ করেন।
অভিযোগে জানা যায়, আরফিন জাহান রিয়া (১০) শনিবার (৫জুন) দুপুরে ভাবি খাতিজা বেগমের সাথে প্রভাষক হাসেম আলীর বাড়ীর সামনে দিয়ে দক্ষিণ মটুকপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে যায়। এ সময় রিয়া হাতেম আলীর বাড়ির সামনে থাকা ফুলের গাছ থেকে একটি ফুল ছিঁড়ে। হাতেম আলী বাড়ি থেকে এসে শিশু রিয়াকে এলোপাথারী ভাবে কানে ও গালে চড়-থাপ্পর মারে। ভয়ে রিয়া দৌঁড়ে ক্লিনিকের ভিতরে পালিয়ে যায়। প্রভাষক হাসেম সেখানেও গিয়ে তাকে বেধরক মারপিট করে বলে অভিযোগে জানা গেছে। শিশু রিয়া অসুস্থ্য হয়ে পড়লে দ্রæত তাকে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে তার বাবা।
প্রভাষক হাসেম আলী মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, গাছের ফুল ছিড়ার কারণে আমি তাকে ধমক দিয়েছি মাত্র। মারধর করি নাই। পূর্বশত্রæতার জেরে আমাকে ফাঁসানোর জন্য থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।
রিয়ার বাবা আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, মারধরের সংবাদ পেয়ে বাড়িতে গিয়ে দেখি আমার মেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়ে আছে। মারধরের কারণে তার কান দিয়ে রক্ত পড়ছে। তাই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করি। আসাদ মেয়েকে মারধরের বিচার দাবী করেন।
এবিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডা. তপন কুমার রায় জানান, শিশুটিকে হয়তো চর-থাপ্পর মারার কারণে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে। বর্তমানে তার চিকিৎসা চলছে।
ডোমার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজার রহমান জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত চলছে। দ্রত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST