ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গৃহহীনদের মাঝে জমিসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর ডোমারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়মের তদন্ত নীলফামারীতে গৃহহীনদের মাঝে জমির দলিল সহ ঘরের চাবি হস্তান্তর। নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই
ডোমারে হাটগুলোতে সরকারি নির্দেশনাকে উপেক্ষা ইজারাদারদের ইচ্ছাতে অতিরিক্ত টোল আদায়

ডোমারে হাটগুলোতে সরকারি নির্দেশনাকে উপেক্ষা ইজারাদারদের ইচ্ছাতে অতিরিক্ত টোল আদায়

ডোমারে হাটগুলোতে ইজারাদারদের ইচ্ছাতে অতিরিক্ত টোল আদায়

রতন কুমার রায়,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারী ডোমার উপজেলার গৃহপালিত পশু বিক্রয়ের হাটগুলোতে চলছে ইজারাদারদের রাজত্ব। মানছে না কোন হাট ইজারার শর্ত। নিজের খেয়াল খুশিমতো পশু ক্রেতা বিক্রেতাদের কাছে টোল আদায়ের নামে নানা অজুহাতে আদায় করা হচ্ছে দ্বিগুন অর্থ।

ক্রেতা বিক্রেতাদের জানানোর জন্যে দেওয়া হয়নি কোন সরকার নির্ধারীত টোল আদায়ের তালিকা। এত করে হাটের ইজারাদারসহ সংশ্লিষ্টদের পকেট ভারি হলেও পকেট খালি হচ্ছে ক্রেতা-বিক্রেতাসহ ব্যবসায়ীদের। উপজেলার পশু বিক্রয়ের বড় হাটগুলো সপ্তাহে দ’ুদিন বসে। এসব হাট হচ্ছে বসুনিয়া হাট (সোমবার-শুক্রবার) আমবাড়ী হাট(শুক্রবার-মঙ্গলবার) বোড়াগাড়ী হাট ( শনিবার-মঙ্গলবার)।

সরেজমিনে বসুনিয়া,আমবাড়ী, বোড়াগাড়ী হাট ঘুরে দেখাযায়, ক্রেতা-বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীর কাছ থেকে সরকারের নির্ধারিত ফি’র চেয়ে দ্বিগুন টোল আদায় করা হচ্ছে। প্রতিটি গরু ৫শত টাকা,মহিষ ৫শত টাকা, ছাগল ২শত থেকে আড়াই শত টাকা, বাই সাইকেল ২শত টাকা।

উল্লেখিত টাকা পশুর শ্রেণিভেদে আদায় করা হলেও সরকার নির্ধারিত টোল ফি গরু ২১০টাকা,মহিষ ২১০টাকা,ছাগল ৯০টাকা,বাই সাইকেল ৪৫টাকা বলে উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানাযায়।

সোনাহার থেকে বসুনিয়া হাটে আসা গরু বিক্রেতা নিপেন রায় বলেন আমি একটি গরু বিক্রি করলাম। এখানে রশিদ(টোল) দিতে হল ১শত টাকা আর যে কিনলো তাকে দিতে হলো ৪শত টাকা। ডিমলা উপজেলা থেকে আসা গরু ব্যবসায়ী সোনা মিয়া বলেন টোল বেশী হওয়ায় কয়েকটি গরু কিনেছি।

বোড়াগাড়ী হাটে টোল আদায়ের চিত্র একটু ভিন্নরুপ। এখানে বিক্রেতা ২শত টাকা ও ক্রেতা ৩শত টাকা টোল দিতে হয়। কিস্তু প্রদেয় রশিদে টোলের পরিমান উল্লেখ করা হচ্ছে না।

কথা হয় বোড়াগাড়ী হাটে আসা ধর্মপাল ও বড় রাউতা এলাকার ক্রেতা-বিক্রেতা আলম এবং সফিকুলের সাথে। ক্রেতা আলম বলেন আমি একটি গরু কিনলাম আমাকে দিতে হয়েছে ৩শত টাকা আর যার কাছ থেকে কিনেছি বিক্রেতাকে(সফিকুল)দিতে হয়েছে ২শত টাকা। মোট ৫ শত টাকা রশিদ(টোল) দিতে হলো।

উপজেলার সবচেয়ে পশু বিক্রির বড়হাট আমবাড়ী। এখানে নিজ জেলার বাইরেও বিভিন্ন জেলা থেকে ব্যবসায়ীরা আসেন। গরু,মহিষ, ছাগল, সাইকেলসহ বিভিন্ন পণ্য কিনে দেশের বিভিন্ন জেলায় নিয়ে যায়। গত মঙ্গলবার হাটে গিয়ে দেখাযায় অনেক মানুষের সমাগমে ভরপুর চলছে বেঁচাকেনা। কেউ এসেছে গবাদিপশুসহ বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করতে আবার কেউ এসেছে ক্রয় করতে। টোল দ্বিগুন হওয়ায় গরু ব্যবসায়ীরা চাহিদার চেয়ে কম কিনছেন। গরু বিক্রয় স্থানে প্রবেশ করতেই কথা হয় দেবীগঞ্জ-কালীগঞ্জ হতে আসা ব্যবসায়ী মকবুল ও ঈসমাইল হোসেনের সাথে। তারা জানান এই হাটে অন্যান্য হাটের চেয়ে দ্বিগুন টোল দিতে হয়।

অনেক ক্রেতা-বিক্রেতা ও ব্যসায়ীরা বলেন যদি সরকার নির্ধারীত টোল আদায়ের তালিকা উপজেলার প্রতিটি হাটে টাঙানো থাকতো তাহলে হয়তো সাধারণ মানুষরা দ্বিগুন টোল দেয়া থেকে রক্ষা পেত।

অতিরিক্ত টোল আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে আমবাড়ী হাট ইজারাদার খাইরুল ইসলাম বলেন বাংলা ১৪২৮ সনের জন্য ৬৩লাখ ৫৩ হাজার টাকায় হাটটি ইজারা নিই। আশে পাশের হাটগুলোতে যে হারে টোল নেয় আমরাও সে হারে নিচ্ছি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST