ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্বেচ্ছাচারিতায় ১২১৭ একর জমির ফসল নষ্ট, এলাকাবাসীর মানববন্ধন। গাজীপুরের কোনাবাড়ীর পোশাক কারখানা শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সৈয়দপুরে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবায় ‘ইটস হিউম্যানিটি’ গৌরবোজ্জল সংগ্রাম ও সাফল্যের ২৭ বছর পূর্তি, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কিশোরগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জয় এর ৫০তম জন্মবার্ষিকীতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ডাক টিকেট, উদ্বোধন। কক্সবাজারের উখিয়ায় ভারী বর্ষনে পাহাড় ধসে ৫ ও পানিতে ১ শিশু নিহত সময় ও নম্বর কমিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া হবে,এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা ডোমারে করোনা সংক্রমণরোধে মাস্ক বিতরণ চট্টগ্রামে লকডাউনের চতুর্থদিনে মহানগরীতে গাড়ি চলাচল বেড়েছে
ডোমারে হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখি ও তাদের বাসা

ডোমারে হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখি ও তাদের বাসা

রতন কুমার রায়,স্টাফ রিপোর্টার,
রজনীকান্ত সেনের বিখ্যাত ‘স্বাধীনতার সুখ’ কবিতার চিরচেনা বাবুইপাখির স্বাধীনতা আজ হুমকির মুখে। বসবাস উপযোগী পরিবেশ বিঘ্নিত হওয়ায় হারিয়ে যেতে বসেছে শৈল্পিক বাসার কারিগর বাবুই পাখি ও তাদের বাসা।

কবি নিজ মনের মাধুরি দিয়ে রচনা করেছেন ‘বাবুই পাখিরে ডাকি বলিছে চড়াই, কুঁড়েঘরে থাকি কর শিল্পের বড়াই, আমি থাকি মহাসুখে অট্টালিকা পরে, তুমি কত কষ্ট পাও রোদ-বৃষ্টি ঝড়ে, “বাবুই হাসিয়া কহে সন্দেহ কি তায়, কষ্ট পাই তবু থাকি নিজের বাসায়।”

কিন্তু এখন আর সেই গ্রাম বাংলায় আগের মতো প্রকৃতির বয়ন শিল্পী, স্থপতি এবং সামাজিক বন্ধনের কারিগর গ্রাম বাংলার বাবুই পাখি ও তাদের বাসা দেখা যায় না। আগ্রাসী যান্ত্রিকতা তার শিল্প অহঙ্কার তছনছ করে দিয়েছে। তাদেরকেও চড়াইয়ের মতো আবদ্ধ করেছে অট্টালিকার পরে। তাই হয়ত এখন আর গ্রামের মেঠোপথের ধারে দাঁড়িয়ে থাকা তালগাছটির সামনে তাদের সুরেলা কণ্ঠের কিচিরমিচির ডাক শোনা যায় না। দেখা মেলে না শৈল্পিক বাসায় সঙ্গিনীর সঙ্গে প্রণয়ের দৃশ্য।

তবে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার গ্রাম অঞ্চলের কিছু এলাকায় নারিকেল গাছ ও সুপারী গাছে এদের দৃষ্টিনন্দন বাসা তৈরী করেছে। কয়েক দিনের টানা প্রখর রোদের উজ্জ্বলতায় রাঙা প্রকৃতির মতো এরাও মেতে ওঠে প্রাণোচ্ছল উচ্ছাসে। নতুন বাসা তৈরির জন্য অতীতের যাবতীয় দুঃখ ঘুচিয়ে আনন্দে উদ্বেলিত মনে তারাও পাখা মেলে নীল দিগন্তে। বাবুই পাখি সঙ্গিনীকে আকৃষ্ট করতে ডোবা, নালা, পুকুরের জলে গোসল করে, এরপর উঁচু তালগাছ, নারিকেল বা সুপারি গাছে বাসা তৈরির কাজ শুরু করে। বাসা তৈরির অর্ধেক কাজ হলে পুরুষ বাবুই স্ত্রী বাবুইকে ডেকে এনে বাসা দেখায়। তার পছন্দ হলে গড়ে উঠে সম্পর্ক।

স্ত্রী বাবুইর বাসা পছন্দের পর পুরুষ বাবুই মহা আনন্দে বিরামহীন ভাবে বাকি কাজ শেষ করে মাত্র চারদিনে।বাবুই পাখি একাধারে শিল্পী, স্থপতি এবং সামাজিক বন্ধনের প্রতিচ্ছবি। বাবুই মানুষের মানবিক ও সৌন্দর্য বোধকে জাগ্রত করার পাশাপাশি দেয় স্বাবলম্বী হওয়ার অনুপ্রেরণা। বাবুই পাখি রাতে জোনাকি পোকা ধরে এনে সে তার বাসায় রাখে বাসা আলোকিত করার জন্য। আবার সকালে ছেড়ে দেয়।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো. মোজাম্মেল হক জানান, আমাদের দেশে বাবুই পাখি সাধারনত ৩ প্রকার। বাংলা বাবুই, দেশী বাবুই ও দাগী বাবুই। এরা দুই হতে চারটা ডিম দেয়। ১৩ হতে ১৫ দিনের মধ্যে ডিম থেকে বাচ্চা বের হয় ও এক মাসের মধ্যে উড়তে পারে। স্ত্রী বাবুই ডিম দিলেই পুরুষ বাবুই আরেক সঙ্গী খুঁজতে বের হয়। তারপর আবার বাসা বানানো, ডিম দেয়া ও সঙ্গী খোঁজা। এভাবে এক মৌসুমে পুরুষ বাবুই সর্বোচ্চ ছয়টি বাসা তৈরি করে। তবে এতে স্ত্রী বাবুইর কোনো আপত্তি নেই। এরা দলগতভাবে বসবাস করে। কিট পতঙ্গ ধান ও গাছের কচিপাতা খেয়ে জীবন ধারন করে থাকে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST