ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্বেচ্ছাচারিতায় ১২১৭ একর জমির ফসল নষ্ট, এলাকাবাসীর মানববন্ধন। গাজীপুরের কোনাবাড়ীর পোশাক কারখানা শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সৈয়দপুরে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবায় ‘ইটস হিউম্যানিটি’ গৌরবোজ্জল সংগ্রাম ও সাফল্যের ২৭ বছর পূর্তি, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কিশোরগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জয় এর ৫০তম জন্মবার্ষিকীতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ডাক টিকেট, উদ্বোধন। কক্সবাজারের উখিয়ায় ভারী বর্ষনে পাহাড় ধসে ৫ ও পানিতে ১ শিশু নিহত সময় ও নম্বর কমিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া হবে,এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা ডোমারে করোনা সংক্রমণরোধে মাস্ক বিতরণ চট্টগ্রামে লকডাউনের চতুর্থদিনে মহানগরীতে গাড়ি চলাচল বেড়েছে
নীলফামারীতে বর্ষা আসায় কদর বেড়েছে ছাতার কারিগরদের

নীলফামারীতে বর্ষা আসায় কদর বেড়েছে ছাতার কারিগরদের

নীলফামারীতে বর্ষা আসায় কদর বেড়েছে ছাতার কারিগরদের আয় রোজ বেরেছে।

মিজানুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
নীল নব ঘনে আষাঢ় গগনে তিল ঠাঁই আর নাহিরে, ওগো আজ তোরা যাসনে ঘরের বাহিরে।’হ্যাঁ,পঞ্জিকার পাতা অনুযায়ী এখন বর্ষাকাল।যদিও এখন রোদ আর বৃষ্টির খেলা চলছে। করোনার আঁতুড়ঘরে অন্য ব্যবসায়ীরা অলস সময় পার করলেও বছরের অন্য সময় বসে থাকা ছাতার কারিগররা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। বর্ষাকালে আপামর জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র পাথেয় বস্তুটির নাম হলো ছাতা।আর বর্ষাকাল শুরু থেকে ছাতার কারিগররা নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে গ্রাম অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে ছাতা মেরামত করছেন। এই ছাতা গ্রীষ্মেও যেমন দরকার তেমনি বর্ষাতেও এর প্রয়োজন আরও বেশি।তাই সারা বছর ঘরে তুলে রাখা ছাতার ছোট -খাটো, মেরামত সারছেন ব্যবহারকারীরা। রোদেলা তাপ বা বৃষ্টির ধারা থেকে মুক্তির জন্য ছোট এই বস্তুর প্রয়োজনটা যে কত তা মৌসুমেই বলে দেয়। আগের আমলে কাঠের হাতলের ছাতা থাকলেও ডিজিটাল আমলে ছাতার হাতল ও কাপড়ে বৈচিত্র এসেছে। ছোট্ট সাইজের ছাতা, স্কুল ব্যাগ, ভ্যানিটি ব্যাগ কিংবা প্যান্টের পকেটেও রাখা যায়। যত বৈচিত্রময় হোক ছাতা উল্টে গেলে, কাপড় ছিড়লে বা সেলাই খুলে গেলে ছাতা কারিগর ছাড়া কোনো উপায় নেই।বর্ষা মৌসুমে যেহেতু ছাতার ব্যবহার বেড়ে যায়, তেমনি কারিগরদের কাজের রেটও বেড়ে যায়। সদর ইউপি মুসা গ্রামের ছাতার কারিগর কাশেম আলী জানান, প্রতিটি জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। ফলে ছাতার কাপড়, হাতল, স্প্রিং, কামান প্রভৃতি জিনিসপত্র কিনতে হচ্ছে চড়া দামে। এই সময়টায় কিছু কাজ হয়। আর অন্য সময় বিকল্প পেশায় জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। প্রতিদিন গ্রামাঞ্চল ঘুরে গড়ে ৫শত থেকে ৮শত টাকা পর্যন্ত আয় হয়। ছাতা মেরামত করতে আসা উপজেলার উত্তর দুরাকুটি পশ্চিমপাড়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব মমতাজ আলী জানান,একসময় দল বেঁধে জীবিকার তাগিদে ফরিদপুর, মাদারীপুর জেলার ছাতার কারিগররা আমাদের এলাকায় এসে বাসাভাড়া নিয়ে পুরো বর্ষাকাল কাটিয়ে আয় রোজগার করে চলে যেত। সেই ছাতার কারিগরদের আর চোখে পড়ে না।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST